1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

কথাসাহিত্যিক মোশতাক আহমেদের লেখালেখির দুই দশক

  • Last Update: Friday, February 9, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০০৪ থেকে ২০২৪। বিশ বছর। নিশ্চিতভাবেই একটি মাইলফলক। এই দীর্ঘ দুই দশক ধরে লেখালেখিতে নিজেকে যুক্ত রেখেছেন কথাসাহিত্যিক মোশতাক আহমেদ। একটি-দু’টি নয়, এসময়ে বাংলা সাহিত্যকে তিনি উপহার দিয়েছেন ১২০টি উপন্যাস। এরমধ্যে যেমন রয়েছে সায়েন্স ফিকশন, ঠিক তেমনই রয়েছে ভৌতিক থ্রিলার।

তিনি সমানতালে লিখছেন রোমান্টিক উপন্যাস, আবার নতুন ধারার প্যারাসাইকোলজি উপন্যাস তাকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা এনে দিয়েছে। তিনি ক্ষুদে পাঠকদের জন্যও লিখেছেন শিশিলিন কিশোর গোয়েন্দা সিরিজ। একইসঙ্গে ভ্রমণ ও মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস রচনায়ও তিনি সমাদৃত হচ্ছেন সর্বত্র। অর্থাৎ সাহিত্যের একাধিক শাখা-প্রশাখায় তিনি বিচরণ করেছেন শতাধিক উপন্যাসের মাধ্যমে। এর ফলশ্রুতিতে বহুমাত্রিক লেখক মোশতাক আহমেদের প্রাপ্তির ঝুলিতে জমা হয়েছে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারসহ মর্যাদাপূর্ণ বিভিন্ন সম্মাননা।

ঔপন্যাসিক মোশতাক আহমেদের সাহিত্যকর্ম খুবই পাঠকপ্রিয়। তিনি এতটাই জনপ্রিয় যে, বাংলাদেশ এবং কলকাতাসহ বিভিন্ন জায়গায় তার একক বইমেলা হয়েছে। বইমেলার স্টলেও পাঠকদের ভিড় লক্ষ্যণীয়। মেলা ছাড়াও সারাবছর অনলাইন এবং অফলাইনেও তার বই হাজার হাজার কপি বিক্রি হয়। এমনটাই জানালেন মোশতাক আহমেদের ৯০টিরও বেশি বইয়ের প্রকাশক অনিন্দ্য প্রকাশের স্বত্বাধিকারী আফজাল হোসেন।

তিনি বলেন, মোশতাক আহমেদ অনেক জনপ্রিয় লেখক। এবারের বইমেলায় তার নতুন চারটি উপন্যাস এসেছে। উপন্যাসগুলো হলো, প্যারাসাইকোলজি- হারানো জোছনার সুর; সায়েন্স ফিকশন- দ্য ওল্ড ওয়ার্ল্ড; ভৌতিক- মৃত্যুবাড়ি এবং শিশিলিন গোয়েন্দা সিরিজের রূপার সিন্দুক। এ নিয়ে তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা একশ’ বিশটি। পাঠকের কাছে তার উপন্যাসের অতিরিক্ত চাহিদার কারণে সব উপন্যাস একসঙ্গে জড়ো করে রাখা হয়েছে। মেলা উপলক্ষে ত্রিশটির অধিক উপন্যাস পুনর্মুদ্রণ করা হয়েছে। মেলায় শুরুর দিকে তার বইয়ের পাঠকচাহিদায় আমরা সন্তুষ্ট। সামনের দিকে এ চাহিদা আরও বাড়বে বলে আশা করি।

তবে এই সময়টা একেবারেই কুসুমাস্তীর্ণ পথ ছিল না, কণ্টকাকীর্ণও ছিল। কথাসাহিত্যিক মোশতাক আহমেদ নিজেও ভুলে যাননি শেকড়ের সেসব দিনের কথা। জানালেন, ২০০৪ সালের বইমেলায় আমার প্রথম বই বের হয়। সেবারের মেলায় মাত্র ১ কপি বই বিক্রি হয়েছিল। সেই মেলায় দেখলাম ১টি স্টলে খুব ভিড়। তিনি আর কেউ নন, ড. জাফর ইকবাল। ওই স্টলে পরে খোঁজ নিয়ে জানলাম পাঠক আসলে ওনার লেখা সায়েন্স ফিকশনের খুব ভক্ত। আমিও তখন ভাবলাম, সায়েন্স ফিকশন লেখা যায়। পরে এ বিষয়ে বিস্তর পড়াশোনা বাড়িয়ে সায়েন্স ফিকশন লেখা শুরু করলাম। কয়েকটি সায়েন্স ফিকশন লেখার পর আমাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এরপর থেকে অন্যান্য প্যারাসাইকোলজি, ভৌতিক থ্রিলার ও কিশোর গোয়েন্দা সিরিজসহ অন্যান্য উপন্যাস লেখা শুরু করলাম। পাঠকরা আমাকে সমানভাবে সমাদৃত করা শুরু করল। এজন্যই আমি আজকের লেখক মোশতাক আহমেদ।

আলাপচারিতায় পাঠকপ্রিয়তার গোপন রহস্যও জানিয়েছেন বহুমাত্রিক লেখক মোশতাক আহমেদ।

তিনি জানান, আমার লেখা পড়ে পাঠক একাডেমিকভাবে উপকৃত হবে সেই বিবেচনায় আমি লিখি না। পাঠকের বিনোদনের জন্য নানাভাবে লিখে থাকি। আমি লিখতে আনন্দ পাই, সেই আনন্দ পাঠকের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য লিখি। এতে পাঠকও আনন্দিত হয়। এজন্যই সম্ভবত পাঠক আমাকে দীর্ঘ দুই দশক ধরে ভালোবাসা দিয়ে যাচ্ছে। পাঠকের ভালোবাসার ফলেই ৫০তম সায়েন্স ফিকশন ‘দ্য ওল্ড ওয়ার্ল্ড’সহ মোট ১২০টি উপন্যাস তাদেরকে উপহার দিতে পেরেছি। এই দীর্ঘ যাত্রাপথে যারা আমার সাথে ছিলেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

মোশতাক আহমেদ ২০১৮ সালে বাংলা একেডেমি সাহিত্য পুরস্কার এবং শিশু একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত হন। এছাড়াও তিনি কালি ও কলম সাহিত্য পুরস্কার, ছোটদের মেলা সাহিত্য পুরস্কার, কৃষ্ণকলি সাহিত্য পুরস্কার এবং সিটি আনন্দ সাহিত্য পুরস্কারসহ নানা সম্মাননায় ভূষিত হন। অন্যদিকে লেখালেখির বিগত দুই দশকে বহুবার বইমেলা এবং অনলাইনে বই বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানসমূহে তার বই বেস্ট সেলার হয়েছে। এবারের বইমেলায়ও অনিন্দ্য প্রকাশ এর স্টলে (প্যাভিলিয়ন ২০) এবং ওয়েবসাইটে আকর্ষণীয় ছাড়ে বইগুলো পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া রকমারি ডটকমসহ বই বিক্রির অন্যান্য ওয়েবসাইটে উপন্যাসগুলো পাওয়া যাচ্ছে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com