1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বিশেষ নিরীক্ষার জন্য সোনালী পেপারে অডিটর নিয়োগ

  • Last Update: Thursday, February 17, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

দ্বিতীয় প্রান্তিকে পাঁচগুণ মুনাফা করা সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস লিমিটেডে বিশেষ নিরীক্ষার জন্য অডিটর নিয়োগ দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বুধবার কোম্পানিকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দিয়েছে বিএসইসি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বিশেষ নিরীক্ষার জন্য অডিট ফার্ম আজিজ হালিম খায়ের চৌধুরী অ্যান্ড কো চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে বিশেষ নিরীক্ষা শেষ করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

নিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠানটি সোনালী পেপারের ২০১৯-২০ এবং ২০২০-২১ অর্থ বছরের আর্থিক প্রতিবেদন বিশেষ নিরীক্ষা করবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস লিমিটেডের কোম্পানি সচিব মো. রাশেদুল হোসাইন। বাণিজ্য বার্তাকে তিনি বলে, গত দুই বছরের আর্থিক প্রতিবেদন বিশেষ নিরীক্ষার জন্য সিএ ফার্ম আজিজ হালিম খায়ের চৌধুরী অ্যান্ড কো চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসকে বিএসইসি দায়িত্ব দিয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে তারা প্রতিবেদন দেবে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে সোনালী পেপার এসএইচ খান অ্যান্ড কো চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের দ্বারা তার সম্পদের পুনঃমূল্যায়ন করেছিল। কোম্পানিটি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার তারাবো এলাকায় ১১৫০ ডেসিমেল জমি কিনেছিল ১ কোটি ১৩ লাখ টাকায়। কিন্তু নিরীক্ষক জমির পুনঃমূল্যায়ন করেছেন ৫১৭.৫ কোটি টাকা। এসময় প্রতি ডেসিমেল জমির মূল্য ধরা হয়েছে ৪৫ লাখ টাকা করে।

বিএসইসি মনে করছে এটি বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি শেয়ারহোল্ডারদের ইক্যুইটি এবং সোনালী পেপারের নেট অ্যাসেট ভ্যালুকে প্রভাবিত করেছে। এ জন্য ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং স্ট্যান্ডার্ডস (আইএফআরএস) এবং ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অন অডিটিং (আইএসএ) অনুযায়ী কোম্পানির সম্পদ, দায় এবং ইক্যুইটিসহ ব্যালেন্স শীট এবং আর্থিক বিবরণী দেখার জন্য বিশেষ নিরীক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস লিমিটেড দ্বিতীয় প্রান্তিকে (১ অক্টোবর ২০২১-৩১ ডিসেম্বর ২০২১) প্রায় পাঁচগুণ মুনাফা করেছে। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬ টাকা ১৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ইপিএস ছিলো ১ টাকা ২০ পয়সা।

গত ছয় মাসে (১ জুলাই ২০২১-৩১ ডিসেম্বর ২০২১) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১ টাকা ৬৭ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ইপিএস ছিলো ১ টাকা ৭২ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১ তারিখে কোম্পানির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২৪৬ টাকা ৯৫ পয়সা।

২০২০ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে কোম্পানিটি বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন করছে।

কোম্পানিটির শেয়ারের ৭১ দশমিক ৬১ শতাংশ রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে ৬ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ার। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে ২১ দশমিক ৪৪ শতাংশ শেয়ার। কোম্পানিটিতে বিদেশিদের কোনো বিনিয়োগ নেই।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com