1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

লভ্যাংশের আশায় স্বদেশ লাইফে টাকা দিয়ে ভুগছেন গ্রাহক

  • Last Update: Monday, December 4, 2023

রাসেল মাহমুদ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের আয়েশা আক্তার প্রবাসী স্বামীর কষ্টার্জিত অর্থ থেকে ১২ লাখ টাকা স্বদেশ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সাবেক মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীনকে দিয়েছিলেন ‘এফডিআর’ বাবদ।

কথা ছিল প্রতিমাসে তিনি ব্যাংকের মতো লভ্যাংশ পাবেন। দুই দফা দেওয়া সেই টাকার বিপরীতে বছরখানেক লভ্যাংশ দিলেও চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে আর লভ্যাংশ দেওয়া হচ্ছে না। লভ্যাংশ না পেয়ে মূল টাকা ফেরতের জন্য একাধিকবার কোম্পানিতে চিঠি দিয়েছেন আয়েশা। কিন্তু কোনোভাবেই তিনি টাকা ফেরত পাচ্ছেন না।

আয়েশা আক্তারের দাবি, ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীন নিজে নোয়াখালী গিয়ে ক্যাশ টাকা নিয়েছেন। এর বিপরীতে প্রিমিয়াম রিসিটও দিয়েছেন।

তবে ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীনের দাবি, তিনি কোনো টাকা নেননি। বরং একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

এদিকে গত অক্টোবরে কোম্পানিতে টাকা ফেরত চেয়ে পঞ্চম দফায় আবেদন করেন আয়েশা আক্তার। সেই আবেদনে তিনি লিখেছেন, মাসিক লাভ প্রদানের শর্তে ২টি পলিসির মাধ্যমে (পলিসি নং-০১০০০১৬২৭২-৫ এবং ০১০০০১৭৯৪৮-৯) এককালীন ৬ লাখ করে দুইবারে মোট ১২ লাখ টাকা জমা প্রদান করি।

প্রথমবার ২০২১ সালের জুলাই মাসের ২৮ তারিখে আর দ্বিতীয় দফায় ২০২২ সালের ২৮ জানুয়ারি টাকা প্রদান করি। শর্ত মোতাবেক আমার ব্যাংক একাউন্টে প্রতিমাসে লাভ বাবত ১০ হাজার ২০০ টাকা জমা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েও গত ১০ মাস কোনো টাকা প্রদান করেননি। ফোন দিলেও রিসিভ করছেন না। এমতাবস্থায় আমার জমাকৃত ১২ লাখ টাকাসহ লাভ বাবত এক লাখ দুই হাজার টাকা (১০ অক্টোবর ২০২৩ পর্যন্ত) আগামী ৩০ অক্টোবর ২০২৩ এর মধ্যে পরিশোধ করার অনুরোধ করছি।

রেবাবার (৩ ডিসেম্বর) আয়েশা আক্তার বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, আমি দিনের পর দিন ঘুরেও টাকা পাচ্ছি না। কোম্পানির সাবেক সিইও ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীন আমাকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে এফডিআর বাবদ ১২ লাখ টাকা নিয়েছে। বীমা কোম্পানিতে এইভাবে টাকা রাখার নিয়ম সম্পর্কে আমি জানতাম না। এখন কোনোভাবেই আমার টাকা ফেরত পাচ্ছি না।

তিনি বলেন, শুধু আমি না, বেগমগঞ্জ থেকে এফডিআর বাবদ অন্তত ৫০ লাখ টাকা নিয়েছেন শাহীন সাহেব।

শুধু বেগমগঞ্জ থেকেই নয়, ফেনীর একজন গ্রাহকের কাছে থেকেও মাসিক লভ্যাংশ দেওয়ার আশ্বাসে ৫০ লাখ টাকা নেওয়ার তথ্য মিলেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই গ্রাহক বলেন, আমার টাকার বিষয়ে কথা চলছে। শাহীন সাহেব বলেছেন টাকা দিয়ে দেবেন। তাই এই মুহূর্তে বিস্তারিত কিছু বলতে চাই না।

ব্যাংকে স্থায়ী আমানতের বিপরীতে জমাকারীকে ব্যাংক যে সুদ দেয়, তার নামই ফিক্সড ডিপোজিট রেট বা স্থায়ী আমানতে সুদের হার। যা এফডিআর হিসেবে ব্যাপক পরিচিত। ব্যাংক এভাবে আমানত সংগ্রহ করতে পারলেও বীমা কোম্পানি তা পারে না।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মাসিক লভ্যাংশ প্রদানের শর্তে বীমা কোম্পানির আমানত সংগ্রহের কোনো বৈধতা নেই। এটা সম্পূর্ণ অবৈধ। এটা যারা করছেন তারা বীমা খাতের শত্রু।

এফডিআর বাবদ আমানত সংগ্রহরে কথা অস্বীকার করেছেন ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীন। বাণিজ্য বার্তাকে তিনি বলেন, গ্রাহক আয়েশা আক্তারের কাছ থেকে আমি নিজে কোনো টাকা নিইনি। তিনি টাকা দিলে কোম্পানিকে দিয়েছেন। আমাকে নয়। আর এফডিআর বাবদ টাকা নেওয়ার কোনো নিয়ম বীমা কোম্পানিতে নেই। তাকে দলীলসহ প্রমাণ করতে বলেন।

আয়েশা আক্তার বলেন, শাহীন সাহেব নিজে আমার কাছ থেকে নোয়াখালী এসে ক্যাশ টাকা নিয়েছেন। এর বিপরীতে আমাকে প্রিমিয়াম রিসিট দিয়েছেন। দলিল চাইলে স্ট্যাম্প নেই বলে দলিল দেননি।

আয়েশা আক্তারের প্রশ্ন তিনি টাকা না নিলে বছর খানেক লভ্যাংশ দিয়েছেন কেনো? তিনি বলেন, টাকা যে নিয়েছেন, তার স্বাক্ষী তার তৎকালীন পিএস।

আয়েশা আক্তার যে দুই দফায় টাকা জমা দিয়েছেন তার দুটি রশিদ বাণিজ্য বার্তা পেয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) মুখপাত্র ও পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, কোনো গ্রাহক যদি নিয়ম না জেনে বীমা কোম্পানিতে টাকা রাখে এ দায় তাকেই নিতে হবে। তবে আমাদের কাছে অভিযোগ আসলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন

স্বদেশ লাইফের সাবেক সিইওকে ‘আত্মসাতের’ কোটি টাকা ফেরতের নির্দেশ

অপসারণের পরও স্বদেশ লাইফে বহাল তবিয়তে ইখতিয়ার উদ্দিন শাহীন!

বেতন বন্ধ, মানবেতর জীবন-যাপন স্বদেশ লাইফের কর্মকর্তাদের

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com