1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

কমিশন বিনিয়োগকারীদের জন্য ক্ষতিকর সিদ্ধান্ত নেবে না: শেখ সামসুদ্দিন

  • Last Update: Monday, February 28, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ারবাজার ও বিনিয়োগকারীদের ক্ষতি হওয়ার মতো কোনো সিদ্ধান্ত কমিশন নেবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কমিশনার ড. শেখ সামসুদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, সবার আগে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। তাই নেগেটিভ ইক্যুইটি সমন্বয় নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই।

তিনি আরও বলেন, গত ২ কার্যদিবসে (বৃহস্পতিবার ও রোববার) শেয়ারবাজারে ডিএসইএক্স কমেছে ২৭২ পয়েন্ট। যার জন্য রাশিয়া- ইউক্রেনের যুদ্ধ ও নেগেটিভ ইক্যুইটি সমন্বয়ে সময় বেধে দেওয়া বড় কারণ। বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর এসেছে। প্রকৃতপক্ষে নেগেটিভ ইক্যুইটি সমন্বয় নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মাঝে ভুল বার্তা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ‘ইকনোমিক পলিসি ট্রায়াঙ্গেল: ইন্টার রিলেশনশিপ এমং ফিসক্যাল, মনিটারি এন্ড ক্যাপিটাল মার্কেট পলিসিস’ শীর্ষক এক কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ একাডেমি ফর সিকিউরিটি মার্কেটের (বিএএসএম) এবং ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্টস ফোরাম (সিএমজেএফ) যৌথভাবে কর্মশালাটি আয়োজন করে।

কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য দেন বিএএসএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরী।

এতে প্যানেল আলোচক হিসেবে ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবু আহমেদ, বিএসইসির সাবেক কমিশনার আরিফ খান, সিরডাপের ডিরেক্টর রিসার্চ ড. মোহাম্মাদ হেলাল উদ্দিন, বিআইবিএমের প্রফেসর সিলেকশন গ্রেড ড. শাহ মোহা আহসান হাবীব ও সিএমজেএফ সভাপতি জিয়াউর রহমান।

শেখ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে যুদ্ধ হলেও তার সঙ্গে বাংলাদেশের সর্ম্পক্য খুবই কম। তাই আমাদের অর্থনীতিতে কম প্রভাব পড়বে। ফলে গত ২ দুই দিনে যে পরিমাণ সূচক কমেছে, তা ঠিক না। অন্যদিকে নেগেটিভ ইক্যুইটি নিয়ে গণমাধ্যমে যে খবর এসেছে, তা পুরোপুরি ঠিক না। শেয়ারবাজারে নেগেটিভ ইক্যুইটি সমন্বয়ে ২০১৫ সালে নির্দেশনা দেওয়া হয়। এরপরে নিয়মিত তা সমন্বয়ের জন্য সময় বাড়ানো হয়েছে। সম্প্রতি বর্তমান কমিশন সপ্তম বারের মতো সময় বাড়িয়ে তা ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত করেছে। যা শেয়ারবাজারের স্বার্থে আরও বাড়ানো হবে। এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

বিএসইসি কমিশনার বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাংকিং খাতের ভূমিকা অস্বীকার করার সুযোগ নেই। তবে স্বাধীনতার ৫০ বছরের ব্যবধানে অবস্থানের পরিবর্তন হয়েছে। তার সঙ্গে এই খাত তাল মিলিয়ে চলেছে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুদ্রাস্ফীতি, সুশাসন ও খেলাপি ঋণে বিশেষভাবে নজর দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়কালীন শেয়ারবাজার এখন অনেক এগিয়েছে। একসময় ব্যাংক ছাড়া দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়নের কথা চিন্তা করা না গেলেও এখন শেয়ারবাজার বিকল্প হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সিরডাপের ডিরেক্টর রিসার্চ ড. মোহাম্মাদ হেলাল উদ্দিন বলেন, কিছু অব্যবহৃত ফান্ড শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করার জন্য একটি পক্ষবিনিয়োগকারীদের মধ্যে নেগেটিভ খবর ছড়িয়ে আতঙ্ক তৈরি করেছে। এতে বাজারের পতন হয়েছে। এই পতনের মধ্য দিয়ে পড়ে থাকা ফান্ড দিয়ে সস্তায় সিকিউরিটিজ কেনা হবে। হয়তো তখন সূচক ১ হাজার বেড়ে যাবে। এর বাইরে গত কয়েকদিনের সূচক পতনের পেছনে যৌক্তিক কোনো কারণ নেই।

তিনি আরও বলেন, শেয়ারবাজারে সূচক বাড়লেই লেখালেখি শুরু হয়ে যায়। এর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের আতঙ্কিত করা হয়। এটা ঠিক না। কোম্পানির আর্নিংস বাড়লে শেয়ারের দামও বাড়বে। এতে করে মূল্যসূচক বাড়বে। এটাতো খারাপ কিছু না। গত ১০ বছরে দেশের অর্থনীতির আকার, জিডিপি ও কোম্পানিগুলোর যে পরিমাণ পরিশোধিত মূলধন বেড়েছে, তাতে সূচক বাড়াটা স্বাভাবিক। এখন সূচক ৭৫০০ হওয়াটা স্বাভাবিক। এছাড়া দৈনিক লেনদেনের পরিমাণ ৩-৪ হাজার কোটি হওয়া উচিত ছিল।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট যে পদক্ষেপ নিয়েছে, তা সময় উপযোগী না। তারা হয়তো ২০১০ সালের পরিস্থিতির কারণে ভয়ে এইসব ব্যবস্থা নিচ্ছে।

ঢাকা বিশ্বাবিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, বড় বড় মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজারে আনতে হবে। তিনি বলেন, মেটলাইফ ইন্স্যুরেন্স অনেক বড় একটি প্রতিষ্ঠান। এদেশে তারা ব্যবসা করলেও দেশের মানুষের কোনো মালিকানা নেই কোম্পানিটিতে। মেটলাইফের সামনে দেখি মানুষ লাইন ধরে টাকা জমা দিচ্ছে। অথচ কোম্পানিটি দেশের শেয়ার মার্কেটে তালিকাভুক্ত নয়।

প্যানেল আলোচক হিসেবে অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, দেশের লাইফ বীমা খাতের ৪৫ শতাংশ কোম্পানি শেয়ার মার্কেটে তালিকাভুক্ত নয়। তিনি বলেন, মেটলাইফকে তালিকাভুক্ত হতে বললে হয়তো তারা বলবে আমরা আইপিও’তে আসার চুক্তি করি নাই। আমার কথা হলো- আপনারা কি অন্য কোন দেশের শেয়ার মার্কেটে নেই। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও মেটলাইফ, নেসলের মতো মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি শেয়ার মার্কেটে তালিকাভুক্ত এবং বড় বিনিয়োগকারী।

অর্থনৈতিকভাবে ভালো ও বড় কোম্পানিকে দেশের শেয়ার মার্কেটে আনার জোর দাবি জানিয়ে অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, দশ বছরের জন্য লাইফ বীমা পলিসি না কিনে দশ বছরের জন্য ভালো কোম্পানির শেয়ার কিনলে বেশি লাভ হয়।

বিএসইসি সাবেক কমিশনার আরিফ খান বলেন, যেসব সাধারণ বিনিয়োগকারি না বুঝে এ বাজারে আসে তাদের ৯৫ শতাংশ পুঁজি হারাতে বাধ্য হয়। বাজারের গুজব শুনে, অন্যকে অনুসরণ করে হয়তো মুনাফা করা যায়, কিন্তু সেই মুনাফা শেষ পর্যন্ত ঘরে তোলা যায় না। ভয় এবং লোভ যদি কেউ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে তার এ বাজারে আসা উচিত না।

তিনি বলেন, যারা শেয়ার ব্যবসা ঠিক মতো বোঝেন না , তাদেরকে বিনিয়োগের জন্য অ্যাসেট ম্যানেজারদের কাছে যেতে হবে। এই খাতের অ্যাসেট ম্যানেজারদের নিয়ে সমালোচনা থাকলেও সবাই খারাপ না। টুকটাক সব খাতেই খারাপ লোকজন আছে। তাই ভালো ফান্ড ম্যানেজারদের মাধ্যমে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের পরামর্শ দেন তিনি।

এক্ষেত্রে ফান্ড ম্যানেজারদের বিগত কয়েক বছরের ইতিহাস দেখে বাছাই করে বিনিয়োগের পরামর্শ দেন তিনি।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com