1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

অনিশ্চয়তা দূর হচ্ছে না তিন ব্রোকারেজ হাউজের গ্রাহকদের

  • Last Update: Wednesday, February 23, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থ হারিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন অনেক বিনিয়োগকারী
ব্রোকারেজ হাউসগুলো বন্ধ হলেও শেয়ার ও অর্থ ফেরতের ব্যবস্থা করতে পারেনি ডিএসই
১৫ মের মধ্যে পর্যাপ্ত নথিসহ শেয়ার ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ জানানোর অনুরোধ
গ্রাহকদের অর্থ ফেরতে কাজ করছে ডিএসই: সাইফুর রহমান মজুমদার

পঞ্চাশোর্ধ রওশন আরা হোসাইন গৃহিণী। শেয়ার ব্যবসায় আকৃষ্ট হয়ে বিভিন্ন সময়ে ৯টি বেনিফিশিয়ারি ওনার্সের (বিও) মাধ্যমে বিনিয়োগ করেন বেশ কয়েক লাখ টাকা। যে টাকায় শেয়ার কিনেছিলেন তা বেড়ে ৩০ লাখ টাকা অতিক্রম করে। তার শেয়ার কেনাবেচার ব্রোকার হাউজ তামহা সিকিউরিটিজ লিমিটেডে সর্বশেষ ছিলো আড়াই লক্ষ নগদ টাকা ও ৩০ লক্ষ টাকার শেয়ার। কিন্তু তার পুরো অর্থ আত্মসাৎ করে ব্রোকারেজ হাউজটি।

আর এক বিনিয়োগকারী মজিবুর রহমান। তামহা সিকিউরিটিজের মাধ্যমে তার বিনিয়োগ ছিলো ১৩ লাখ টাকা। অবসরোত্তর ভাতা আর বিনিয়োগের প্রফিট দিয়েই চলতো তার সংসার। তার পুরো অর্থও আত্মসাৎ করে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ডা. হারুন।

শুধু রওশন আরা বা মজিবুর রহমান নন, কষ্টার্জিত অর্থ বিনিয়োগ করে প্রতারণার মাধ্যমে তা হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার বিনিয়োগকারী। এসব বিনিয়োগকারীর অর্থ আত্মসাৎ করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তিন সদস্য প্রতিষ্ঠান তামহা, বানকো এবং ক্রেস্ট সিকিউরিটিজ। ডিএসই বিনিয়োগকারীদের হারানো অর্থ ফেরতে উদ্যোগ নিলেও আস্থা পাচ্ছেন না বিনিয়োগকারীরা। ফলে সহসাই বিনিয়োগকারীদের অনিশ্চয়তা দূর হচ্ছে না।

জানা গেছে, গ্রাহকদের শেয়ার ও জমা নগদ অর্থ আত্মসাৎকারী তিন ব্রোকারেজের মালিকদের থেকে অর্থ আদায় করার পরিকল্পনা করছে ডিএসই। তবে হারানো অর্থ ও শেয়ার এ প্রক্রিয়ায় ফেরত পাওয়া যাবে কিনা তা নিশ্চিত করে বলতে পারছে না দায়িত্বশীল কেউ।

তবে ইতিমধ্যে দৃশ্যমান পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে ডিএসইকে। প্রতিষ্ঠানটি পত্রিকায় এবং নিজস্ব ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এই তিন ব্রোকারেজ হাউসের গ্রাহকদের আগামী ১৫ মের মধ্যে পর্যাপ্ত নথিসহ শেয়ার ও নগদ অর্থ আত্মসাৎ বিষয়ে অভিযোগ জানাতে অনুরোধ করেছে। ওই তারিখের পর নতুন কোনো অভিযোগ গ্রহণ করা হবে না বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

এখনও এই তিন ব্রোকারেজ হাউসে কোনো গ্রাহকের বিওতে কোনো শেয়ার থাকলে অন্য কোনো ব্রোকারেজ হাউসে বিও অ্যাকাউন্ট খুলে তা সরিয়ে নেওয়ারও অনুরোধ জানিয়েছে ডিএসই।

জানা গেছে, ২০২০ সালের জুনে শেয়ার ও নগদ জমা থেকে তিন হাজার গ্রাহকের প্রায় ৬০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে ক্রেস্ট সিকিউরিটিজ।

গত বছরের জুনে একই কাজ করে বানকো সিকিউরিটিজ। এই প্রতিষ্ঠানটি প্রায় পাঁচ হাজার গ্রাহকের ৬৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে।

ব্রোকারেজ হাউসের মালিক কর্তৃক তার গ্রাহকদের অর্থ ও শেয়ার আত্মসাৎ করার সর্বশেষ ঘটনাটি ঘটে তামহা সিকিউরিটিজের ক্ষেত্রে। ঘটনা কয়েক বছরের হলেও প্রকাশ হয়েছে গত বছরের নভেম্বরে। এ হাউসটি গ্রাহকদের অন্তত ৮৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগ করেন হাউজটির বিনিয়োগকারীরা।

এ ঘটনায় ব্রোকারেজ হাউসগুলো বন্ধ হলেও এখন পর্যন্ত গ্রাহকদের আত্মসাৎকৃত শেয়ার ও অর্থ ফেরতের ব্যবস্থা করতে পারেনি ডিএসই।

এদিকে ডিএসইর এই তৎপরতায় কিছুটা আশা দেখছেন কিছু বিনিয়োগকারী। তবে বেশিরভাগ বিনিয়োগকারী বলছেন, তারা এখনও অনিশ্চয়তায় রয়েছেন।

আলমগীর হোসেন নামের এক বিনিয়োগকারী বলেন, এখনও নিশ্চিত নই টাকা পাবো কিনা। কমিশন ও ডিএসই চাইলে অর্থ ফেরত পাওয়া সম্ভব।

টাকা হারানো রওশন আরা হোসাইন বলেন, ডিএসই যেহেতু পদক্ষেপে নিয়েছে ইতিবাচক কিছু একটা হয়তো হবে। তবে টাকা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত চিন্তামুক্ত হতে পারছি না।

গ্রাহকদের আত্মসাৎকৃত শেয়ার ও অর্থ ফেরতের বিষয়টি নিয়ে ডিএসইর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) এম. সাইফুর রহমান মজুমদার গণমাধ্যমে বলেন, প্রথমত ব্রোকারেজ হাউস এবং ব্রোকারেজ হাউসগুলোর মালিকদের ব্যক্তিগত সম্পদ আইনি প্রক্রিয়ায় বিক্রি করে অর্থ আদায়ের পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছি। তবে এ প্রক্রিয়া শেষ পর্যন্ত সফল হবে কিনা বা সবার দাবি সবটুকু পরিশোধ করা যাবে কিনা, সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি তিনি।

সাইফুর রহমান মজুমদার জানান, এই তিন ব্রোকারেজ হাউসের গ্রাহকদের টাকা ও শেয়ার ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থাকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করছে ডিএসই।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com