1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ইবিএল সিকিউরিটিজের সঙ্গে গ্রাহকের দ্বন্দ্ব চরমে

  • Last Update: Sunday, August 28, 2022

রাসেল মাহমুদ

ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড গ্রাহকের মোবাইলে মিথ্যা তথ্য পাঠিয়ে শেয়ারবাজারে পেনিক সৃষ্টি করছে জানিয়ে গত ২৪ আগস্ট নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে লিখিত অভিযোগ করেন প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহক মো. আলমাস হোসেন তুহিন।

সেই কপি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলে ওই গ্রাহকের নামে মতিঝিল থানায় জিডি করেন ইবিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ছায়েদুর রহমান।

জিডির পরিপ্রেক্ষিতে গ্রাহক আলমাস হোসেন তুহিন ফের নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান বরাবর রোববার (২৮ আগস্ট) লিখিত অভিযোগ করেছেন। তার দাবি, ছায়েদুর রহমান তার ব্যক্তিগত তথ্য প্রিন্ট করে গণমাধ্যমে প্রচার করেছেন। যা আইন পরিপন্থি বলে মনে করছেন তিনি। এক্ষেত্রে গ্রাহকের সাথে চুক্তি লঙ্ঘন এবং গ্রাহকের আমানতের নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন করা হয়েছে।

বিএসইসির কাছে করা অভিযোগে আলমাস হোসেন তুহিন বলেন, ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড গ্রাহকের মোবাইলে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মিথ্যা তথ্য প্রেরণ করে অপপ্রচারের মাধ্যমে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের মধ্যে পেনিক সৃষ্টির জন্য ক্ষতিপূরণ ও প্রতিকার চেয়ে যথাযথ রেগুলেটরি অথরিটি হিসাবে চেয়ারম্যান বরাবর গত ২৪ আগস্ট আবেদন করি।

উক্ত বিষয়ে ইবিএল সিকিউরিটিজের সিইও ছায়েদুর রহমান ক্ষিপ্ত হয়ে আমার বিও একাউন্টের ব্যক্তিগত তথ্য প্রিন্ট করে অসৎ উদ্দেশ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমে পাঠায়, যা আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন ও সিকিউরিটিজ আইনের পরিপন্থি। কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান যথাযথ কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ব্যতিত কোনো গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য প্রিন্ট করে প্রচার করার বিধান নাই। এক্ষেত্রে গ্রাহকের সাথে চুক্তি লঙ্ঘন এবং গ্রাহকের আমানতের নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন করা হয়েছে।

অভিযোগে তিনি আরও বলেছেন, মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি ছায়েদুর রহমান আমাকে নাজেহাল ও সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য মিথ্যা তথ্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে পরিবেশন করছেন এবং গত ২৫ আগস্ট মতিঝিল থানায় আমার নামে জিডি (নং-১৭২৫) করেছেন। এছাড়া বিভিন্ন অজ্ঞাত লোক দিয়ে ফোন করে ভয়-ভীতি ও জীবন নাশের হুমকি প্রদান করছে। ছায়েদুর রহমান কর্তৃক আমার বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো যথাযথ কর্তৃপক্ষ হিসাবে মহোদয়ের দপ্তরে জানাতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা না করে শুধুমাত্র বিদ্বেষ প্রসূত আমার ক্ষতি করার চেষ্টা করছেন।

সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে গ্রাহকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ২৪ তারিখের আবেদন তদন্তপূর্বক ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেডের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধও করেন তিনি।

অভিযোগের বিষয়ে ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ছায়েদুর রহমান বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, ওই গ্রাহক কমিশনে অভিযোগ করেছেন সে জন্য আমরা জিডি করিনি। বরং অভিযোগের কপি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য জিডি করেছি। কারণ এটা ছড়িয়ে দেয়ার রাইট তার নাই। এটা অন্যায়। তাছাড়া তার অভিযোগের কোনো ভিত্তিই নাই। তিনি অভিযোগের একটা শব্দও প্রমাণ করতে পারবেন না। যদি প্রমাণ করতে পারেন- তাহলে তার পোর্টফোলিওর ভ্যালু যা আছে সেই পরিমান অর্থ আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে দিয়ে দেবো।

অজ্ঞাত লোক দিয়ে হুমকি দেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, একজন এমন অভিযোগ করতেই পারেন। যদি তাকে হুমকি দিয়েই থাকি তিনি তা প্রমাণ করুক।

ছায়েদুর রহমান আরও বলেন, বাজারকে অস্থিতিশীল করতে একটি চক্র তাকে দিয়ে এগুলো করাচ্ছে। কেউ পিছনে থেকে তাকে ইনফ্লুয়েন্স করছে। তা না হলে তিনি এগুলো করতেন না।

চক্রের সাথে কারা জড়িত বলে মনে করেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটা আমি জানি না। তবে কেউ না কেউ তাকে দিয়ে এটা করাচ্ছে। না হলে এটা করার কথা না।

কারও দ্বারা প্রভাবিত হয়ে কমিশনে অভিযোগ করেছেন কিনা- মো. আলমাস হোসেন তুহিনের কাছে প্রশ্ন করা হলে তিনি বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, আমি কারও প্ররোচণায় এটা করছি না। সেটা করার দরকারও নেই। আমি প্রভাবিত হওয়ার মানুষও না। এখন উনি (ছায়েদুর রহমান) যেটা করছেন সেটা টোটালি পাওয়ার এক্সসারসাইজ।

এর আগে গত ২৫ আগস্ট গ্রাহক মো. আলমাস হোসেন তুহিনের নামে মতিঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ইবিএল সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ছায়েদুর রহমান। বিএসইসিতে করা অভিযোগের কপি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার কারণে জিডিটি করা হয়।

ওই জিডিতে বলা হয়, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেডের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড একটি কোম্পানি ও স্বনামধন্য ব্রোকারেজ হাউজ। হাউজটির গ্রাহক মো. আলমাস হোসেন তুহিন। যার গ্রাহক আইডি- ৪৬০৯৮ এবং বিও- ১২০১৯৫০০৩৯৬১১৮২২। তিনি গত ২৪ আগস্ট বিএসইসি চেয়ারম্যানের বরাবর একটি অভিযোগ করেন।

জিডিতে দাবি করা হয়, ওই অভিযোগে তিনি কিছু মিথ্যা, বানোয়াট ও ভুল তথ্য এবং ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেছেন। তিনি শুধু এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। উক্ত চিঠির কপি উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবসায়িক সুনাম নষ্ট করেছেন এবং আরও অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

জিডিতে আরও বলা হয়েছে, এ ধরণের অপপ্রচার শেয়ারবাজার এবং বিনিয়োগকারী সকলের জন্যই ক্ষতিকর। এটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর জায়গা। তাই এমন অপপ্রচার রোধে মতিঝিল থানা কর্তৃপক্ষের কাছে সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com