1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ঋণ পরিশোধে ফের ছাড়

  • Last Update: Tuesday, June 28, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ব্যাংক–বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের ঋণ পরিশোধে আবার ছাড় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে আদায়যোগ্য অর্থের কিস্তির ন্যূনতম ৫০ শতাংশ পরিশোধ করলে খেলাপি করা যাবে না। এ সুবিধা চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেয়া হয়েছে। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদেরকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এ সুবিধা প্রদান করবে। এই বিলম্বের কারণে কোনো গ্রাহককে খেলাপি করা যাবে না। আবার কোনো ধরনের অতিরিক্ত মাশুল, সুদ বা কমিশন আদায় করা যাবে না।

মঙ্গলবার (২৮ জনু) বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ থেকে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, নতুন করে করোনাভাইরাসের বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলসহ বেশ কিছু জেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ সুবিধা দেয়া হয়েছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ/লিজ/ বিনিয়োগ শ্রেণীকরণের বিষয়ে ইতিপূর্বে কিছু শিথিলতা আনা হয়েছিল। এখন একই কারণে যেসব গ্রাহক সাময়িকভাবে কিস্তি পরিশোধে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন, তাঁদের বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এর ফলে চলতি বছরের জুন, সেপ্টেম্বর ও ডিসেম্বর প্রান্তিকে কিস্তির ৫০ শতাংশ আর্থিক প্রতিষ্ঠান-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে ত্রৈমাসিকের শেষ কর্মদিবসের মধ্যে পরিশোধ হলে, তা বিরূপ মানে শ্রেণীকরণ করা যাবে না। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদেরকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এ সুবিধা প্রদান করবে।

এছাড়া দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক চিহ্নিত বন্যা কবলিত জেলায় কৃষি ঋণ ও সিএমএসএমই ক্ষেত্রেও এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত কিস্তির ৫০ শতাংশ পরিশোধ করলে খেলাপি করা যাবে না। তবে গ্রাহক প্রকৃতই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কিনা তা আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহ স্বীয় উদ্যোগে নিশ্চিত করতে হবে। এই নির্দেশনা মোতাবেক ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলে যথানিয়মে শ্রেণীকরণের আওতাভুক্ত হবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, এই সার্কুলারের মাধ্যমে সুবিধা পাওয়া ঋণে এপ্রিল থেকে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত কিস্তি পরিশোধে কোনো দণ্ড সুদ বা অতিরিক্ত ফি আরোপ করা যাবে না। এ সার্কুলারের আওতায় সুবিধা পাওয়া ঋণে আরোপিত সুদ আয়খাতে স্থানান্তর করা যাবে।

প্রতি ত্রৈমাসিকের শেষ কর্মদিবসের মধ্যে কোন ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ গ্রহীতা এ নীতিমালা অনুযায়ী নির্ধারিত অর্থ পরিশোধে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাবের যথানিয়মে শ্রেণিকরণ করে সিআইবি-তে রিপোর্ট করতে হবে। এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com