1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

দেশের অর্থনীতি নিয়ে ভয়ের কিছু নেই: বিএসইসি চেয়ারম্যান

  • Last Update: Sunday, May 29, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে ভয়ের কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। তিনি বলেন, শুধু স্বপ্ন দেখার অনেক কারণ আছে।

রোববার (২৯ মে) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বিএসইসির মাল্টিপারপাস হল রুমে বাংলাদেশ একাডেমি ফর সিকিউরিটিজ মার্কেটস (বিএএসএম) আয়োজিত ‘বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনীতির প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ’ শীর্ষক লেকচার সেশনে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে একক বক্তৃতা দেন পিকেএসএফএর চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলিকুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও বিএএসএমের ডিরেক্টর জেনারেল ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরী।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, লেবানন শ্রীলঙ্কার আগে দেউলিয়া হয়েছে। তারা অনেক আগে থেকেই ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। ওই দেশে কোনো পাওয়ার প্ল্যান্ট নেই। সেটা কিন্তু কেউ বলেনি। ওটা নিয়ে কারও কোনো ব্যথা ছিল না। হঠাৎ সবার শ্রীলঙ্কার কথা মনে পড়ে গেছে। এরপর তারা নানা ধরনের গুজব ছড়াতে শুরু করল। আমরা নিজেরাই শ্রীলঙ্কাকে ২৫০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিলাম। যে সাহায্য দিল, সে-ই নাকি ওর (শ্রীলঙ্কা) মতো হয়ে যাচ্ছে। এটা হয় নাকি।

শ্রীলঙ্কা ইস্যুতে বাংলাদেশকে টেনে আনার বিষয়ে বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, অনেকে অর্থনীতি বুঝেও না বোঝার মতো কথা বলেন। তখনই বিষয়টি হয়ে যায় ক্ষতিকর। আমাদের পাঁচ বছর আগের তুলনায় রেমিট্যান্স এখন কত এবং প্রবৃদ্ধি কত। করোনার সময়ও রেমিট্যান্স বেড়েছে। আরও মজার বিষয় হচ্ছে, গত ১০ মাসে সাত লাখ শ্রমিক বিদেশ গেছে। যার সুবিধা আমরা এখনো পাইনি। সামনে তারাও রেমিট্যান্স পাঠাবে। এতে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়বে।

তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কা ২ বিলিয়ন ডলারের সমস্যায় পড়েছে। আর আমরা মাসে শুধু একটা খাত থেকেই ২ বিলিয়ন ডলার পাই। কিন্তু একটি শ্রেণি কোনটার সঙ্গে কোনটার তুলনা করে ভয় দেখিয়ে দেশকে অস্থির করে তুলেছে। এটা আমার বোধগম্য নয়। বাংলাদেশকে নিয়ে আমাদের ভয়ের কোনো কারণ নেই। শুধু স্বপ্ন দেখার অনেক কারণ আছে।

শিবলী রুবাইয়াত বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ যেখানে এখনো করোনা থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে। তবে আল্লাহর রহমতে আমাদের সে অবস্থা নেই। যে কারণে সবাই বাংলাদেশ থেকে আমদানি করতে ঝুঁকছে। এ কারণে জাহাজে কন্টেইনার ভাড়া বেড়ে গেছে। নিশ্চয়ই চাহিদা বা রপ্তানি বৃদ্ধির কারণে এই ভাড়া বেড়েছে। আগে জাহাজ বাংলাদেশ থেকে ইউরোপে যাওয়ার পথে বিভিন্ন জায়গায় ট্রান্সজিট বা নোঙর করতে হতো। কিন্তু এখন সরাসরি ইউরোপে যায়। এর কারণ বাংলাদেশ থেকেই জাহাজ পণ্যে পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

অন্যদিকে রপ্তানি বৃদ্ধির কারণে স্বাভাবিকভাবেই আমদানি বেড়েছে বলে জানান বিএসইসি চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, আমাদের পণ্য রপ্তানির জন্য কাঁচামাল আমদানি করতে হয়। যে কারণে আমদানিও বেড়েছে। অতএব, এক্সপোর্ট বাড়লে ইমপোর্ট বাড়বেই।

তিনি বলেন, যে অর্থনীতির দেশে (বাংলাদেশ) বছরে ২ বিলিয়ন ডলার ঋণ পরিশোধ করতে হয়, সেখানে কেন যে মানুষ ভয় পায়, তা আমি বুঝি না। আমরা রপ্তানির অর্থ বাদই দিলাম, বছরে ২২-২৪ বিলিয়ন ডলার তো পাই। এখান থেকে ২ বিলিয়ন ডলার ঋণ পরিশোধে দিতে পারব না। ধরলাম ৪-৫ বিলিয়ন ডলারই ঋণ পরিশোধে যাবে, তাতে কি আসবে যাবে আমাদের। বরং আমরা যদি হুন্ডি ব্যবসায়ীদের ধরে ফেলতে পারি। তাহলে ৫-১০ বিলিয়ন ডলার বেঁচে যাবে। কারণ এরাই আমদানি-রপ্তানির সময় ওভার ভয়েস-আন্ডার ভয়েস এলসি খুলে বিদেশে টাকা পাচার করে।

তিনি বলেন, ট্যাক্স ফ্রি পণ্যের মাধ্যমে ওভার ইনভয়েসিং হয় বেশি, এর মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে টাকা পাচার হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের উচিত ট্যাক্স ফ্রি পণ্যের মাধ্যমে পাচার হওয়া টাকার দিকে নজর দেওয়া।

বিএসইসির চেয়ারম্যান উদাহরণ দিয়ে বলেন, পাচারকারীরা ৫ ডলারের পণ্যের মূল্য ৭ ডলার দেখিয়ে দেশের টাকা বিদেশে পাচার করছে। তারা বাংলাদেশের পাশাপাশি হংকং, সিঙ্গাপুর, লন্ডন এবং নিউইয়র্কে নিজের অফিস তৈরি করেছেন। তাদের ছেলে-মেয়েদের বিদেশে রেখেছেন। সেসব দেশে বাড়ি-গাড়ি করছেন এ টাকা দিয়েছে।

একক বক্তৃতায় ড. কাজী খলিকুজ্জামান বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশকে নিয়ে অনেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করছেন যে বাংলাদেশে বুঝি শ্রীলংকা হয়ে যাচ্ছে। শ্রীলংকা এবং বাংলাদেশের অবস্থান এক নয়। এই মুহূর্তে বাংলাদেশ যে অবস্থানে রয়েছে তাতে আতঙ্কিত হওয়ার মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ বাংলাদেশের এখন বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে তা দিয়ে আমাদের আমদানি এবং রপ্তানিকারক জন্য যথেষ্ট সক্ষমতা রয়েছে। এই মাসে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা রেমিট্যান্স আহরণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। করোনার মধ্যে যখন বিশ্ব অর্থনীতি থমকে ছিল তখন বাংলাদেশের অর্থনীতি স্বাভাবিক সময়ের মতোই দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু এখন আর স্বপ্ন নয় বাস্তব। পদ্মা সেতু নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি করার মাধ্যমে আমরা প্রমান করেছি যেকোনো ধরনের বড় কাজ করতে আমরা সক্ষম। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতি নতুনভাবে গতি পাবে। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে যোগাযোগ ব্যবস্থা যেমন উন্নতি হবে তেমনি জিডিপিতেও পরিবর্তন আসবে।

ড. খলিকুজ্জামান বলেন, আমরা এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। খুব সামান্য পরিমাণে খাদ্য আমাদের আমদানি করতে হয়। দেশে যখন রপ্তানি বাণিজ্যে বেড়ে যাবে তখন আমদানিও বাড়ব। একটির সাথে আরেকটি সম্পর্ক রয়েছে। আমদানি বেড়ে যাওয়ার কারণে ভয়ের কোন কারণ নেই কারণ রপ্তানির মাধ্যমে বৈদেশিক বাণিজ্যের ঘাটতি রয়েছে তবে তা পূরণ হয়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন না করে এখন নিজেদের ভুল বুঝতে পারছে। আর আমাদের প্রধানমন্ত্রী প্রমান করেছেন যে কোন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশের উন্নতি থামিয়ে রাখা সম্ভব নয়।

বিএসইসি কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, কোভিড এবং যুদ্ধসহ বিভিন্ন কারণে বিশ্বব্যাপী জ্বালানিসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম বেড়েছে। এটা নিয়ে গুজব বা অপব্যাখ্যাও হচ্ছে। এই গুজব এবং অপব্যাখ্যা আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এবং তথ্যের অপব্যাখ্যা রোধ করতে হবে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com