1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বছরের ব্যবধানে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে গ্রাহক বেড়েছে ৪৬ শতাংশ

  • Last Update: Monday, April 11, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ব্যাংকিং কার্যক্রম সহজ ও সবার কাছে পৌঁছে দিতে ২০১৪ সালে ব্যাংক এশিয়ার হাত ধরে দেশে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সূচনা হয়। শুরুর পর থেকেই এর জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে। তার ধারাবাহিকতায় গত
আট বছরে এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা ছড়িয়েছে সারা দেশে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্যমতে, বর্তমানে ২৯টি বাণিজ্যিক ব্যাংক ১৩ হাজার ৯৫২টি এজেন্টের আওতায় ১৯ হাজার ২৪৭টি আউটলেটের মাধ্যমে এ সেবা দিচ্ছে। শহরে এজেন্ট রয়েছে ১৪ দশমিক ৬৯ শতাংশ আর গ্রামে রয়েছে ৮৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। শহর পর্যায়ে আউটলেট রয়েছে ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ আর গ্রাম পর্যায়ে রয়েছে ৮৬ দশমিক ২৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, এক বছরের ব্যবধানে এ সেবার গ্রাহক সংখ্যা বেড়েছে ৪৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ, আমানত বেড়েছে ৫২ শতাংশ। এছাড়া ঋণ বিতরণ বেড়েছে ১৮২ দশমিক ৪০ শতাংশ। অন্যদিকে রেমিট্যান্সের প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে ৬৮ দশমিক শতাংশে। ২০২০ সালের ডিসেম্বর থেকে গত  বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত তথ্য পর্যালোচনা করে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, ব্যাংকগুলো তাদের এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়ে গেছে। আমানত রাখা, ঋণ বিতরণ ও রেমিট্যান্স আনার পাশাপাশি তারা স্কুল ব্যাংকিং চালু করেছে। সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির ভাতাও বিতরণ করছে এজেন্টরা। সব মিলিয়ে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সফলতার হাত ধরে গ্রামীণ অর্থনীতিও চাঙা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, গ্রামীণ পর্যায়ের যে সব মানুষ ব্যাংকিং সেবার বাহিরে ছিল এর মাধ্যমে অনেক মানুষ ব্যাংক সেবার আওতায় এসেছে। এছাড়া কোভিড-১৯ মহামারীর মধ্যে দেশে এজেন্ট ব্যাংকিং সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আর সেই ধারাবাহিকতা এখনও বিদ্যমান রয়েছে। যার ফলে দিনদিন বেড়ে চলছে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের প্রসার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনের তথ্য বলছে, গত বছরের ডিসেম্বর শেষে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৪০ লাখ ৪৭ হাজার ৪৯১টি। এর মধ্যে শহরাঞ্চলে ২৯ লাখ ২৮ হাজার ৮৩৪টি এবং গ্রামাঞ্চলে ১ কোটি ২১ লাখ ১৮ হাজার ৬৫৭টি। এসব হিসাবে আমানতের পরিমাণ ২৪ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে শহরাঞ্চলে ২ হাজার ৩৩ কোটি এবং গ্রামাঞ্চলে ২২ হাজার ২৬১ কোটি টাকার আমানত রয়েছে।
গত ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে এজেন্ট ব্যাংকিয়ের গ্রাহক সংখ্যা ছিল ৯৬ লাখ ৪৩ হাজার ১৬৩টি এবং আমানত ছিল ১৫ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ একবছরের ব্যবধানে গ্রাহকের সংখ্যা বেড়েছে ৪৪ লাখ ৪ হাজার ৩২৮টি এবং আমানত বেড়েছে ৮ হাজার ৩১৬ কোটি টাকা।

এজেন্ট ব্যাংকিং এখন শুধু হিসাব খোলা ও আমানত সংগ্রহের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, ঋণ বিতরণের মাধ্যমে আয় উৎসারী কর্মকাণ্ড আরও বেশি উৎসাহিত করে গ্রামীণ অর্থনীতিকে সচল রাখতে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, গত ডিসেম্বর শেষে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের আওতায় ঋণ বিতরণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে শহরাঞ্চলে ১৬৭ কোটি ৭০ লাখ এবং গ্রামাঞ্চলে ২৮৭ কোটি ৮০ লাখ টাকা। গত ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে যা ছিল ১ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা। এক বছরে ঋণ বিতরণে বেড়েছে ১৮২ দশমিক ৪০ শতাংশ।
গত ডিসেম্বর শেষে ঋণ বিতরণের দিক দিয়ে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। এজেন্ট ব্যাংকিং সেবার আওতায় বিতরণ করা ঋণের ৬৩ দশমিক ১৪  শতাংশই এই ব্যাংকটির দখলে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্যাংক এশিয়ার বিতরণ করা ঋণ এ খাতের মোট ঋণের ১৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা দি সিটি ব্যাংকের ঋণ প্রায় ১৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে আরও দেখা যায়, গত ডিসেম্বর শেষে এজেন্ট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় এসেছে ৮২ হাজার  ৩৪৩ কোটি টাকা। যা ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে ছিল ৪৮ হাজার ৮০৬ কোটি টাকা। এক বছরের ব্যবধানে প্রবাসী আয়ের পরিমাণ বেড়েছে ৩৩ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা। শতাংশ হিসেবে যার পরিমাণ ৬৮ শতাংশ।

গত ডিসেম্বর শেষে আউটলেটের দিক বিবেচনায় শীর্ষে রয়েছে ডাচ বাংলা ব্যাংক। মোট আউটলেটের ৩০ দশমিক ১৫ শতাংশ রয়েছে ব্যাংকটিতে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্যাংক এশিয়ার রয়েছে ২৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের দখলে রয়েছে ১৩ দশমিক ৯০ শতাংশ।

পরিসংখ্যানে আরও  দেখা যায়, গত ডিসেম্বর শেষে হিসাব খোলার দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে ব্যাংক এশিয়া। ব্যাংকটির একাউন্টের পরিমাণ ৩৫ দশমিক ১ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ডাচ বাংলা ব্যাংকের রয়েছে ৩১ দশমিক ৫৯ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের রয়েছে ১৬ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

এছাড়া গত ডিসেম্বর শেষে আমানত সংগ্রহের শীর্ষে রয়েছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ। ব্যাংকটির আমানতের পরিমাণ ৩৭ দশমিক ১ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ডাচ বাংলা ব্যাংকের রয়েছে ১৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ। আর তৃতীয় অবস্থানে থাকা ব্যাংক এশিয়ার ১৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ।

গত ডিসেম্বর শেষে  এজেন্ট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ এর মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে আসা রেমিট্যান্সের পরিমাণ ৫৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ডাচ বাংলা ব্যাংকরে ২৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ব্যাংক এশিয়ার ১১ দশমিক ২২ শতাংশ।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com