1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সুশাসনের অভাবে বীমা খাত

  • Last Update: Friday, March 1, 2024

রাসেল মাহমুদ

দেশের দ্বিতীয় প্রজন্মের একটি বীমা কোম্পানিতে ১২ বছর মেয়াদি পলিসি করেছিলেন পুরান ঢাকার আলেয়া বেগম। স্বল্প আয়ের আলেয়া বেগম অনেক কষ্ট হলেও সবগুলো প্রিমিয়াম জমা দিয়েছিলেন। তবে বীমার মেয়াদ শেষ হওয়ার ৪ বছর পার হলেও তিনি এখনো টাকা ফেরত পাননি। উল্টো নিয়মিত বিরতিতে কোম্পানির হেড অফিসে আসতে-যেতে তাকে অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে।

রাজধানীর দিলকুশায় বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) অফিসের নিচে দাঁড়িয়ে আলেয়া বেগম বাণিজ্য বার্তাকে অভিযোগ করে বলেন, ‘৩ লাখ টাকার একটি পলিসি করেছিলাম। মেয়াদ শেষ হওয়ার এক বছর পর কাগজপত্র জমা নিয়েছে টাকা পরিশোধ করবে বলে। তারপর ৪ বছের কেটে গেলেও টাকা ফেরত পাচ্ছি না। বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিয়েও সমাধান পাইনি।’

একই অভিযোগ কুমিল্লার লাকসামের শাহ আলমের। ফাইন্যান্সিয়াল এসোসিয়েট হয়ে শতাধিক মানুষের বীমা করিয়ে বিপাকে পড়েছেন তিনি। বাণিজ্য বার্তাকে তিনি বলেন, ‘কোম্পানি বীমার টাকা পরিশোধ করছে না। বছরের পর বছর কোম্পানিতে ঘুরে, আইডিআরএ অভিযোগ দিয়েও প্রতিকার পাইনি। এখন বাড়িতেই থাকতে পারছি না।’

শুধু আলেয়া বেগম বা শাহ আলম নয়, এমন অভিযোগ হাজার হাজার গ্রাহক ও বীমা কর্মীদের। সময়মতো টাকা না পেয়ে বীমার প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েছেন তারা।

সংকটে আর্থিক সুরক্ষার জন্য মানুষ বিভিন্ন ধরনের বীমা পলিসি গ্রহণ করলেও অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে কোম্পানিগুলো সময়মতো বীমা দাবি নিষ্পত্তি করছে না। ফলে আস্থার সংকট যেমন বাড়ছে তেমনি দেখা দিচ্ছে সুশাসনের অভাব।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ বীমাখাতে সুশাসন ফেরাতে কার্যক্রম পরিচালনার কথা বললেও বাস্তবে তার প্রতিফলন নিয়ে সন্দিহান অনেকেই।

আইডিআরএ’র তথ্যমতে, বর্তমানে দেশের ১ কোটি ৭১ লাখ ১০ হাজার মানুষ বীমার আওতায় রয়েছেন। ২০২৩ সালে জীবন বীমা ও সাধারণ বীমা মিলিয়ে মোট দাবি উত্থাপিত হয় ১৫ হাজার ৬৯৯ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। বিপরীতে দাবি পরিশোধ হয় ১০ হাজার ২৩৬ কোটি ২২ লাখ টাকা। দাবি পরিশোধের হার ৬৫ শতাংশ, যা ২০২২ সালে ছিলো ৬১ শতাংশ।

বছরটিতে শুধু জীবন বীমায় ১২ হাজার ১১৭ কোটি টাকার দাবি উত্থাপন করা হয়। এর মধ্যে ৮ হাজার ৭৫৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকার দাবি পরিশোধ করা হয়েছে। দাবি পরিশোধের হার ৭২ শতাংশ, যা ২০২২ সালে ছিলো ৬৭ শতাংশ।

তথ্য বলছে, দেশের ১৯টি জীবনবিমা কোম্পানির দাবি পরিশোধের হার ৮০ শতাংশের ওপরে রয়েছে। তবে কিছু কোম্পানির বীমা দাবি পরিশোধের সক্ষমতাই নেই। অথচ দেশে ৮২টি বীমা কোম্পানি রয়েছে। এর মধ্যে ৩৬টি জীবন এবং ৪৬টি সাধারণ বীমা কোম্পানি।

সময় মতো দাবি পরিশোধ না হওয়ার কারণে বীমার প্রতি আগ্রহী নন সাধারণ মানুষ। তথ্যমতে, কেবল ১ কোটি ৭১ লাখ ১০ হাজার মানুষ বীমার আওতায় রয়েছেন। অথচ গত বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রকাশিত জনশুমারি ও গৃহগণনা শুমারির চূড়ান্ত প্রতিবেদনে অনুযায়ী দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৯৮ লাখ।

বিষয়টি নিয়ে চার্টার্ড লাইফ ইনস্যুরেন্সের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এস এম জিয়াউল হক বলেন, বিভিন্ন গবেষণার তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ইউরোপের মতো উন্নত দেশের প্রায় প্রত্যেক নাগরিক বীমা পলিসির অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন। সেখানে বাংলাদেশ এখনও পিছিয়ে রয়েছে।

গ্রাহকের দাবি নিষ্পত্তি ও বীমাখাতে সুশাসন ফেরাতে আইডিআরএ কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে সংস্থাটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারী বলেন, নতুন যেসব গ্রাহক বীমা করবেন, তাদের টাকা ফেরতের নিশ্চয়তার জন্য কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগ সঠিক হচ্ছে কিনা সেটা গাইডলাইন অনুসারে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। বিনিয়োগের টাকা যাতে আত্মসাৎ না হয়, সে লক্ষ্যে এবং সলভেন্সি মার্জিন মেইনটেন করার লক্ষ্যে কাজ করছে আইডিআরএ।

মানুষের বৈচিত্রপূর্ণ চাহিদা পূরণে জীবন এবং সাধারণ বীমার সংমিশ্রণে হাইব্রিড প্রোডাক্ট তৈরির মাধ্যমে ইন্টিগ্রেটেড বীমা সেবা প্রদানের পরামর্শ দিয়েছেন গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও শেখ রকিবুল করিম।

তিনি বলেন, আমরা এটা করার স্বপ্ন দেখছি। বীমা কোম্পানিগুলো কর্মীদের গ্রুপ লাইফ বীমার সঙ্গে মোটরযানের বীমার মতো বিভিন্ন বীমা প্যাকেজ অফার করতে পারে। গ্রামীণ এলাকায় মাইক্রো ইন্স্যুরেন্সের উদ্যোগগুলো জীবন বীমা পণ্যের সঙ্গে ফসল, মাছ এবং গবাদি পশু বীমার মতো সাধারণ বীমা পণ্যগুলোকে একত্রিত করতে পারে, যা কৃষক এবং গ্রামীণ সম্প্রদায়কে সম্পূর্ণ সুরক্ষা প্রদান করবে।

বীমা খাতের আস্থা ও সুশাসন ফেরানোর বিষয়ে জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও ও বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরামের সেক্রেটার জেনারেল (ভারপ্রাপ্ত) এস এম নুরুজ্জামান বলেন, বীমা নিয়ে আস্থার সংকট দীর্ঘদিনের। আস্থা ফেরাতে সময় মতো বীমা দাবি পরিশোধ করতে হবে। এছাড়া বীমা খাতে শৃঙ্খলার অভাবও বেশ পুরনো। কোম্পানিগুলোতে শৃঙ্খলা ফেরানোর পাশাপাশি সঠিক নিয়ম পরিপালনে জোড় দিতে হবে। গ্রাহকসেবা উন্নত করতে হবে। সব সময় মনে রাখতে হবে, বীমা করতে কোম্পানিই গ্রাহকের কাছে যায়। তাই গ্রাহক কি চাচ্ছেন, তার জন্য কোন ধরনের পলিসি ফলপ্রসু সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। এগুলো নিশ্চিত করা গেলে বীমা খাতের প্রতি মানুষের আস্থা বৃদ্ধি পাবে, সুশাসন ফিরবে। একই সঙ্গে যে কোম্পানিগুলো দাবি পরিশোধ করছে না তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com