1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

স্বদেশ লাইফের লাইসেন্স বাতিলের আদেশ স্থগিত করেছে হাইকোর্ট

  • Last Update: Thursday, February 29, 2024

নিজম্ব প্রতিবেদক

স্বদেশ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের লাইসেন্স সাময়িক স্থগিত করার আইডিআরএ’র আদেশ ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একইসাথে লাইসেন্স স্থগিতের আদেশ কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

অপরদিকে কোম্পানির চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও পরিচালকদের অপসারণ সংক্রান্ত আইডিআরএ’র আদেশও ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি নাইমা হয়দার ও কাজী জিন্নাত হক গত ২৭ ফেব্রুয়ারি শুনানী শেষে এ আদেশ দেন।

রিট আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার মাসুদুর রহমান এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ১২ ফেব্রুয়ারি স্বদেশ ইসলামী লাইফের নিবন্ধন ৩ মাসের জন্য স্থগিত ঘোষণা করে বীমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ। আইন লঙ্ঘন করে কোম্পানির স্থায়ী আমানতের বিপরীতে নেয়া ঋণের অর্থ আত্মসাৎ এবং বোর্ড পুনর্গঠনে কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পরিপালন না করায় এ সিদ্ধান্ত নেয় আইডিআরএ।

নিবন্ধন স্থগিতের ওই চিঠিতে আইডিআরএ জানায়, স্বদেশ ইসলামী লাইফের পরিশোধিত মূলধনের অর্থ বীমা আইন ২০১০ এর ২১(২) ধারা অনুযায়ী তফসিলী ব্যাংকে দায়মুক্তভাবে জমা রাখার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অথচ বীমা কোম্পানিটি পরিশোধিত মূলধনের বিপরীতে এনআরবিসি ব্যাংকে রক্ষিত স্থায়ী আমানতকে লিয়েন রেখে ১৪.৩০ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করেছে। যা বীমা আইন ২০১০ এর ২১(২) ধারার সুস্পষ্ট লংঘন।

এরূপ ঋণ গ্রহণের তথ্য পরিদর্শনকারী কর্মকর্তাদের দেয়া হয়নি এবং কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদনেও প্রতিফলিত হয়নি। ফলে উক্ত অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয় বলে মন্তব্য আইডিআরএ’র।

এ প্রেক্ষিতে গত ৪ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখে বীমা আইন ২০১০ এর ১০(২) ধারার প্রদত্ত ক্ষমতাবলে স্বদেশ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির নিবন্ধন কেন স্থগিত করা হবে না এ মর্মে ৩০ দিন সময় প্রদানপূর্বক কারণ দর্শানো নোটিশ রেজিস্ট্রিসহ ডাকযোগে এবং ই-মেইলে পাঠানো হয়।

গত ৪ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে কারণ দর্শানো নোটিশের সময়সীমা শেষ হলেও নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে কোম্পানি কোন লিখিত জবাব দাখিল করেনি।

অন্যদিকে কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন লিয়েন রেখে ঋণ গ্রহণের মাধ্যমে বীমাকারীর স্বার্থের পরিপন্থী কার্যক্রমের জন্য গত ৪ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে কোম্পানিটির চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও পরিচালনা পর্ষদের সদস্যগণকে বীমা আইন ২০১০ এর ৫০(১)(খ) ধারা মোতাবেক কেন নিজ নিজ পদ হতে অপসারণ করা হবে না তার কারণ দর্শাতে বলা হয়।

একইসঙ্গে গত ৪ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখের ওই আদেশে কোম্পানির চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট ১১ জন পরিচালককে বীমা আইন ২০১০ এর ৫০(১)(খ) ধারা মতে নিজ নিজ পদ হতে অপসারণ করা হয়।

অবশিষ্ট ৫ জন পরিচালকের সমন্বয়ে কোম্পানির বোর্ড পুনর্গঠনের নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু পরিচালকগণ কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেননি মর্মে অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কোম্পানি সেক্রেটারি (অতিরিক্ত দায়িত্ব) লিখিতভাবে জানান।

এমন অবস্থায় বীমা আইন ২০১০ এর ২১ ধারার বিধান লংঘন এবং কোম্পানির পরিচালকগণ কর্তৃক কোম্পানির পরিচালনায় কোন উদ্যোগ গ্রহণ না করায় বীমা আইন ২০১০ এর ১০(২) ধারা মোতাবেক স্বদেশ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির নিবন্ধন ৩ মাসের জন্য স্থগিত করে আইডিআরএ।

এরই প্রেক্ষিতে কোম্পানির চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান বাদী হয়ে হাইকোর্টে রীট মামলা দায়ের করেন। আবেদনটি বিবেচনায় নিয়ে শুনানী শেষে বিচারপতি স্বদেশ লাইফ ইন্স্যুরেন্সকে ৩ মাসের জন্য লাইসেন্স স্থগিত এবং চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং পর্ষদের সদস্যদের অপসারন সংক্রান্ত আদেশগুলোর বিরুদ্ধে ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দেন হাইকোর্ট বেঞ্চ।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com