1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সিইও তৈরির ‘কারখানা’ বায়রা লাইফ

  • Last Update: Thursday, February 29, 2024

রাসেল মাহমুদ

অনিয়ম, দুর্নীতি, গ্রাহকের টাকা ফেরত না দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগে ২০২০ সালের ২৮ জুন বেসরকারি খাতের জীবন বীমা কোম্পানি বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে প্রশাসক বসায় বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সুপারিশে সরকারের সাবেক যুগ্ম সচিব হুমায়ুন কবিরকে কোম্পানিটির প্রশাসক করা হয়।

দেড় বছর দায়িত্ব পালনের পর ২০২২ সালের ৩১ জানুয়ারি হুমায়ুন কবিরকে সরিয়ে বোর্ড পুনর্গঠন করে কর্তৃপক্ষ। নতুন বোর্ডে চেয়ারম্যান করা হয় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও কলম্বিয়া গ্রুপের চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান চৌধুরীকে।

নতুন বোর্ড ডুবন্ত কোম্পানিকে টেনে তোলার প্রত্যয়ে দায়িত্ব নিলেও গত দুই বছরে তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। উল্টো কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) পদে যখন-তখন নিয়োগ ও ছাঁটাই কোম্পানির স্বাভাবিক গতি ব্যহত করেছে। ফলে ডুবতে থাকা কোম্পানিটি কার্যত আরও ডুবছে। এ অবস্থায় বীমা সংশ্লিষ্টরা এই কোম্পানিকে সিইও তৈরির ‘কারখানা’ বলেও আখ্যা দেন।

এই বিশেষণের যৌক্তিক কারণও অবশ্য রয়েছে। চরম অর্থনৈতিক সংকটে থাকা বায়রা লাইফের বোর্ড গত দুই বছরে সিইও পদে ৬ জনকে নিয়োগ দিয়েছে।

নথিপত্র বিশ্লেষণ ও কোম্পানি সংশ্লিষ্টদের দেওয়া তথ্য অনুসারে, ২০২২ সালের ৩১ জানুয়ারি প্রশাসক সরানোর পর থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বায়রা লাইফে মোট ৬ জন সিইও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

বীমা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একজন সিইও নিয়োগ পাওয়ার পর কোম্পানির সামগ্রিক অবস্থা বুঝতেও কয়েকমাস সময় লেগে যায়। কিন্তু বায়রা লাইফে নিয়োগ পাওয়ারা সে সময় পাচ্ছেন না। এতে স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

জানা গেছে, প্রশাসককে অব্যাহতি দেওয়ার পর নতুন বোর্ড ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে সিইও পদে নিয়োগ দেয় প্রণব কুমার দাসকে। সিইও হওয়ার শর্ত পূরণ না করলেও শীর্ষ পদে তার ওপরই আস্থা রাখে বোর্ড। কিন্তু বোর্ড বেশি দিন তার উপর ভরসা করতে পারেনি। মাত্র তিন মাস দায়িত্ব পালনের পরই তাকে ছাঁটাই করে মফিজুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বোর্ড। এরপর দ্বিতীয় সিইও হিসেবে নিয়োগ পান আবু আহমেদ রানা। তার ভাগ্যও সুপ্রসন্ন হয়নি। মে এবং জুন মাস কাজ করলেও জুলাইয়ের আগেই তাকে ছাঁটাই করা হয়।

২০২২ সালের ১ জুলাই তৃতীয় সিইও হিসেবে নিয়োগ পান সুশান্ত প্রামাণিক। তিনি দায়িত্ব পালন করেন ৮ মাস। তবে কোম্পানি সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, সুশান্ত প্রামাণিক কোম্পানির সিইও হলেও তাকে মূলত অবলিখন বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ফলে কোম্পানির স্বাভাবিক কার্যক্রমে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

সুশান্ত প্রামাণিকের দায়িত্বকালে গ্রাহকের টাকা ফেরত দেওয়াসহ কোম্পানির কমপ্লায়েন্স নিশ্চিতে কঠোর হয় আইডিআরএ। কোম্পানির সম্পত্তি বিক্রি করে গ্রাহকের অর্থ ফেরতের নির্দেশ দেয় সংস্থাটি। কিন্তু কোম্পানিটি গ্রাহকের টাকা ফেরত দিতে পারেনি। পরে বোর্ড সুশান্ত প্রামাণিককে সরিয়ে ফের দায়িত্ব দেয় প্রণব কুমার দাসকে। ২০২৩ সালের মার্চের ১ তারিখে দায়িত্ব নিলেও প্রণব কুমার দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র ৩ মাস। তাকে সরিয়ে ওই বছরের ১ জুন পঞ্চম সিইও হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় জাহাঙ্গীর আলমকে।

‘ম্যাজিক প্ল্যান’ দিয়ে কোম্পানির ব্যবসার বড় ধরনের প্রবৃদ্ধি দেখানোর প্রতিশ্রুতি দিলেও আশানুরূপ ব্যবসা আনতে পারেননি তিনি। ফলাফল ৫ মাসের মাথায় চাকরি হারান জাহাঙ্গীর। এরপর ষষ্ঠ সিইও হিসেবে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি যোগদান করেছেন মেটলাইফ থেকে আসা জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া। বর্তমানে তিনিই দায়িত্ব পালন করছেন।

তবে জয়নাল আবেদিন ভূঁইয়ার নিয়োগ নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। ‘মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ ও অপসারণ’ প্রবিধানমালা অনুসারে সিইও পদে নিয়োগ পেতে হলে ১২ বছরের কর্ম অভিজ্ঞতাসহ সিইওর অব্যবহিত নিম্নপদে কমপক্ষে দুই বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তবে জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া তার পূর্ববর্তী কোম্পানি মেট লাইফে সিইওর পরের পদে কাজ করেননি।

ঘনঘন সিইও পরিবর্তনের বিষয়ে জানতে বায়রা লাইফের চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান চৌধুরীকে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।

একাধিক বীমা কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, বীমা কোম্পানিগুলোতে সিইওদের যে হুটহাট চাকরি চলে যায় এটা তার প্রমাণ। চাকরির নিশ্চয়তা না থাকায় সিইওরা শতভাগ আন্তরিকতা দিয়ে কাজ করতে পারেন না। এছাড়া চাকরির ভয়ে বোর্ডের অনৈতিক সিদ্ধান্তের সঙ্গেও অনেক ক্ষেত্রে আপস করতে হয়। এ জন্য সিইওসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের চাকরির নিশ্চয়তা প্রদান করা গেলে এ খাতের অনেক অনিয়ম দূর হয়ে যেত।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com