1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

৮০% ব্রোকারহাউজ ব্যয় নির্বাহ করতে পারছে না: ডিবিএ প্রেসিডেন্ট

  • Last Update: Thursday, January 18, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফ্লোর প্রাইসের কারণে ৮০ শতাংশ ব্রোকারহাউজ পরিচালন ব্যয় নির্বাহ করতে পারছে না বলে জানিয়েছেন ডিএসই ব্রোকার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ডিবিএ) প্রেসিডেন্ট ও ব্র্যাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজ লিমিটেডের পরিচালক সাইফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে গত দেড় বছর শেয়ার লেনদেন নেই বললেই চলে। ৮০ শতাংশ ব্রোকারহাউজ পরিচালন ব্যয় নির্বাহ করতে পারছে না। এতে প্রতিষ্ঠানগুলো টিকে থাকার প্রশ্ন চলে এসেছে বলে।

বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কমে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নলিস্টস ফোরামের (সিএমজেএফ) সদস্যদের সঙ্গে ডিএসই ব্রোকার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ডিবিএ) সদস্যদের মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর নিকুঞ্জের ডিএসই টাওয়ারে মতবিনিময় সভাটি হয়।

মতবিনিময় সভায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ টি এম তারিকুজ্জামান, সিএমজেএফের সভাপতি গোলাম সামদানী ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক আবু আলীসহ উভয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সাইফুল ইসলাম বলেন, শেয়ারবাজারে যে ব্যবস্থাপনা থেকে মালিকানা পৃথককরণ বা ডিমিউচুয়ালাইজেশন করা হয়েছিলো তা সংশোধনের সময় হয়েছে।ডিমিউচুয়ালাইজেশন বাজারে কতটুকু ভূমিকা পালন করতে পারছে সেটিও ভেবে দেখা দরকার।

তিনি বলেন, ২০১০ সালের পর থেকে বাজারে গতি আসেনি। গত ১৫ বছরে দেশের অনেক উন্নয়ন হয়েছে কিন্তু এই উন্নয়ন থেকে শেয়ারবাজার কোনো সুবিধা আদায় করতে পারেনি। শেয়ারবাজারে আইপিও আসার ক্ষেত্রেও অনেকগুলো আইন তৈরি করা হয়েছে; যেগুলো প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করছে।

শেয়ারবাজারের অস্থিরতা দূর করতে সাংবাদিকরা বড় ভূমিকা পালন করতে পারে বলেও মনে করেন তিনি।

বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সভাপতি মাজেদা খাতুন বলেন, পুঁজিবাজারের সার্বিক সহযোগিতায় আমরা সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করি। সবাই মিলে দেশের শেয়ারবাজারের উন্নয়নে একসাথে কাজ করবো। সবাই যার যার জায়গা থেকে এগিয়ে আসলে শেয়ারবাজারের উন্নয়ন হবে বলে আশা করছি।

সিএমজেএফ সভাপতি গোলাম সামদানী ভূঁইয়া বলেন, গত ১৫ বছরে অর্থনীতির যে আকার হয়েছে, সে হিসেবে শেয়ারবাজার বাড়েনি। অর্থনীতি সামনে এগিয়ে গেলেও শেয়ারবাজার পিছিয়েছে। যারা ট্রেড করে তারা দূরাবস্থায় আছে। তাছাড়া অবাধ তথ্য প্রবাহ না থাকায় সাংবাদিকতা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে, তথ্য জানানো যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, ডিবিএর সঙ্গে নানা কর্মসূচি নিয়ে এগিয়ে যাবে সিএমজেএফ। সিএমজেএফ এবং ডিবিএ একত্রে কাজ করলে আশা করি মার্কেটের জন্য ভালো হবে। পাশাপাশি আমার সহকর্মী সাংবাদিক ভাইদের প্রতি অনুরোধ থাকবে মানুষ আতঙ্কিত হয় এমন নিউজ না করার জন্য।

তিনি আরও বলেন, ফ্লোর প্রাইজের কারণে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অনেকে লোকসান দিয়েও শেয়ার বিক্রি করতে চাচ্ছে যেন অন্য শেয়ার কিনতে পারে, কিন্তু ফ্লোর প্রাইসের কারণে শেয়ার বিক্রি করতে পারছে না।

তিনি আগামী দিনগুলোতে ডিবিএর পাশে থেকে শেয়ারবাজার উন্নয়নে একত্রে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

সিএমজেএফের সাধারণ সম্পাদক আবু আলী বলেন, শেয়ারবাজারের উন্নয়ন এবং সাংবাদিকদে দক্ষতা বৃদ্ধিতে সিএমজেএফ বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে।এছাড়া আমরা বিভিন্ন গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করেছি যা বাজারের উন্নয়নে কাজে আসবে। বাজারের উন্নতি করতে হলে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ডিবিএর সাবেক প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি রোজারিও, বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ছায়েদুর রহমান, সিএমজেএফের সাবেক সভাপতি জিয়াউর রহমান প্রমুখ।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com