1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার নিয়ে যা বলছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

  • Last Update: Tuesday, January 16, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেড় বছর আগে দেশের শেয়ারবাজারে ফ্লোর প্রাইস বা সর্বনিম্ন মূল্যসীমা নির্ধারণ করে দেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এতে প্রাথমিকভাবে বাজার ‘বিপর্যয় ঠেকানো’ গেলেও দীর্ঘ সময় ধরে অনেক শেয়ার লেনদেন করা যাচ্ছে না। এতে ক্ষতির মুখে পড়েছেন বিনিয়োগকারীসহ বাজার মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো। এ অবস্থায় ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহারের দাবি ওঠে সব মহল থেকে।

ধারনা করা হচ্ছিল দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বাজার পরিস্থির উন্নতি হলে ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার করা হবে। বর্তমানে বাজার পরিস্থিতিও ইতিবাচক হচ্ছে। এ অবস্থায় শিগগিরই ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার হচ্ছে বলে গুঞ্জন শুরু হয়েছে।

তবে বিএসইসি বলছে এখনই নয়, পরিস্থিতি অনুকূলে আসলে যেকোনো দিন ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার হতে পারে।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, তিন ধাপে ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহারের কথা চিন্তা করছে সংস্থাটি। বর্তমানে যেসব কোম্পানির শেয়ারের দাম ফ্লোর প্রাইসের ওপরে রয়েছে এবং মার্জিন ঋণ সুবিধা পায় না, প্রথম ধাপে ওই কোম্পানির ফ্লোর তুলে দেওয়া হবে। দ্বিতীয় ধাপে যেসব কোম্পানি ফ্লোরে আছে; কিন্তু এদের শেয়ারদর ওঠানামায় মূল্যসূচকে খুব বেশি প্রভাব পড়ে না, তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আর সর্বশেষ ধাপে যেসব কোম্পানি সূচকে প্রভাব রাখে, এ ধরনের বড় মূলধনের কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস তুলে দেওয়া হবে।

এ বিষয়ে বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, আমরা এখন মার্কেট অবজারবেশন করছি। সূচকের গতিধারাসহ বেশ কিছু বিষয় দেখা হচ্ছে। এটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না যেকোনো দিন ফ্লোর প্রাইস তুলে দেওয়া হবে। পরিস্থিতি অনুকূলে আসলে এক সপ্তাহ পরও তুলে দেওয়া হতে পারে। আবার একমাস বা তার চেয়ে বেশি সময়ও লাগতে পারে। আমরা বাজারের স্বার্থে ফ্লোর প্রত্যাহারের জন্য কাজ করছি।

ফ্লোর প্রাইস তুলে দিতে এরই মধ্যে বাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহলের সঙ্গে আলোচনা করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। এরমধ্যে বাজারে গুরুত্বপূর্ণ দুটি অংশীজন ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ) এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সঙ্গেও বৈঠক করেছে সংস্থাটি। এ দুটি সংগঠনই ফ্লোর প্রাইস তুলে দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছে। কিন্তু পদ্ধতি নিয়ে দুই পক্ষের মতবিরোধ রয়েছে। ডিবিএ বলছে, একসঙ্গে সব কোম্পানির ফ্লোর তুলে দেওয়া হোক। কিন্তু বিএমবিএ চাচ্ছে ধাপে ধাপে তুলে দেওয়া হোক।

ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহারের আগে বাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহলের সঙ্গে পুনরায় আলোচনায় বসার কোন পরিকল্পনা আছে কিনা জানতে চাইলে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, বাজার সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়ে গেছে। তারা সবাই ফ্লোর প্রাইস তুলে দেওয়ার পক্ষে। তবে বিভিন্ন পক্ষের বিভিন্ন মতামত রয়েছে। আমরা সব পক্ষের মতামত বিবেচনায় নিয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেবো। যাতে মার্কেটে প্যানিক সেল না হয়, কিংবা গুজব না ছড়ায় এমন পরিবেশ নিশ্চিত করেই ফ্লোর প্রাইস তুলে দেব।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com