1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

নতুন মুদ্রানীতি: মূল্যস্ফীতির লাগাম টানাই বড় চ্যালেঞ্জ

  • Last Update: Saturday, January 13, 2024

রাসেল মাহমুদ

নানা অনিয়ম আর দুর্নীতিতে জড়িয়ে গত কয়েক বছর ধরেই নেতিবাচক আলোচনায় রয়েছে দেশের ব্যাংক খাত। নিয়ন্ত্রণহীন খেলাপি ঋণ, ডলার সংকট, তারল্য সংকট আর মূল্যস্ফীতির কারণে পিষ্ট খাতটি। এর মধ্যেই আগামী সোমবার (১৫ জানুয়ারি) জানুয়ারি-জুন মেয়াদের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মুদ্রানীতি দেশের ব্যাংক খাত তথা অর্থনীতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এরসঙ্গে মানুষের দৈনন্দিন জীবনাচরণের বিষয় জড়িত। ফলে এটি সব সময়ই চ্যালেঞ্জের। এই চ্যালেঞ্জ বিবেচনায় নিয়ে এবারের মুদ্রানীতিতে সুদহার বাড়িয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ বা কমানোর পরিকল্পনা থাকতে পারে।

আগের বছর বা মাসের সঙ্গে অথবা কোনো নির্দিষ্ট সময়কালের সঙ্গে বর্তমানের তুলনা করে খাদ্য, কাপড়, পোশাক, বাড়ি, সেবা ইত্যাদি বিভিন্ন উপাদানের মূল্য বৃদ্ধির পার্থক্যই মূল্যস্ফীতি। অর্থাৎ মুদ্রাস্ফীতি বলতে বোঝায় পণ্য ও সেবার দাম বেড়ে যাওয়াকে। 

বাংলাদেশের পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, গত ডিসেম্বর পর্যন্ত টানা নয় মাস ধরে মূল্যস্ফীতি ৯ শতাংশের উপরে ছিলো। ২০২৩ সালে খাদ্যের মূল্যস্ফীতি ও সার্বিক মূল্যস্ফীতি দুটোই রেকর্ড গড়ে। গত বছরের আগস্টে খাদ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে উঠেছিলো ১২ দশমিক ৫৪ শতাংশে। এর আগে ২০১২ সালের জানুয়ারিতে খাদ্যের মূল্যস্ফীতি ছিল ১২ দশমিক ৭৩ শতাংশ। একই বছরের মে মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশে উঠেছিলো। এর আগে ২০১২ সালের মার্চে সার্বিক মূল্যস্ফীতি ১০ দশমিক ১০ শতাংশে উঠেছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সামনে এই মুহূর্তে বড় চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি কমানো। এটাতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তাই নতুন মুদ্রানীতিতে পলিসি রেট বা নীতি সুদহার বাড়ানো হবে। এর মাধ্যমে টাকাকে শক্তিশালী করে মূল্যস্ফীতি কমানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। তার ভাষায়, মুদ্রানীতিতে যেসব বিষয় গুরুত্ব দেওয়া হবে তা এখনই বলা যাবে না। এক্ষেত্রে কিছুটা বাধ্যবাধকতা রয়েছে। মুদ্রানীতি ঘোষণার দিনই বিস্তারিত জানানো হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একটি সূত্র জানিয়েছে, মুদ্রানীতি চূড়ান্ত করার আগে আজ শনিবার (১৫ জানুয়ারি) একটি সভা করবে নতুন মুদ্রানীতি কমিটি। এই কমিটিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের বাইরে থেকে তিনজনকে রাখা হয়েছে। তারা হলে- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান মাসুদা ইয়াসমীন, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) মহাপরিচালক বিনায়ক সেন এবং অর্থনীতিবিদ সাদিক আহমেদ। আর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে রয়েছেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারসহ মুদ্রানীতি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডেপুটি গভর্নর, নির্বাহী পরিচালক ও পরিচালক।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ডলার সংকট, মূল্যস্ফীতি ও তারল্য সংকট সমাধানের দায়িত্ব বাংলাদেশ ব্যাংকের। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য গত বছরের শেষের দিকে এসে নীতি সুদহার বাড়ানো হয়। একইসঙ্গে ঋণের সুদহারও বাড়ানো হয়। বর্তমানে নীতি সুদহার ৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ ও বড় অঙ্কের ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার ১১ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এরপরও বর্তমানে দেশের সাধারণ মানুষের প্রধান সমস্যা মূল্যস্ফীতি। আর এটি লাগাম টেনে ধরতে ব্যার্থ হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

জানা গেছে, বর্তমানে বছরে দুবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত প্রথম পর্যায় আর জুলাই থেকে ডিসেম্বর দ্বিতীয় পর্যায়।

২০০৬ সাল থেকে বছরে দুইবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হচ্ছিল। ২০১৯ সাল থেকে সাবেক গভর্নর ফজলে কবির বছরে একবার মুদ্রানীতি প্রণয়নের ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ওই বছরের ৩১ জুলাই একবারই মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়৷ পরবর্তী ২০২০-২১ এবং ২০২১-২২ অর্থবছরেও একবারই মুদ্রানীতি ঘোষণা করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

৪৫০ কোটি ডলারের ঋণের শর্ত হিসেবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) বছরে চারবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করার পরামর্শ দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংককে। তখন বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রকাশিত তথ্য নিয়েই বাংলাদেশ ব্যাংক মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। আর পরিসংখ্যান ব্যুরো বছরে দুইবার এসব তথ্য প্রকাশ করে। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংকও বছরে দুইবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করবে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০২৩ সাল থেকে ফের দুবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com