1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য সুশাসন ও জবাবদিহিতা জরুরি’

  • Last Update: Friday, December 1, 2023

বাণিজ্য বার্তা ডেস্ক

সুশাসন ও জবাবদিহিতা পরস্পর সম্পর্কিত। সুশাসনের জন্য জবাবদিহীতা অপরিহার্য। জবাবদিহিতার ব্যবস্থা না থাকলে সুশাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। অন্যদিকে টেকসই উন্নয়নও সুশাসন এবং জবাবদিহিতার উপর নির্ভর করে। এ দুটির ঘাটতি থাকলে উন্নয়ন টেকসই হবে না।

অ্যাকাউন্টিবিলিটি অ্যান্ড সাসটেনেবিলিটিঃ ইমপ্লিমেন্টেশন প্রগ্রেসেস” শীর্ষক এক সম্মেলনে বক্তারা এ কথা বলেছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দি ইন্সটিটিউট অব চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি), ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলিংটন, নিউজিল্যান্ড এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়৷

আইসিএবি অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাক্তন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সচিব ড. মোঃ খায়রুজ্জামান মজুমদার এবং সম্মানিত অতিথি ছিলেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু৷

সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলিংটনের স্কুল অব বিজনেস অ্যান্ড গভর্নমেন্টের একাডেমিক প্রোগ্রাম লিডার ড. ইয়ানকা মোজেস।

অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন আইসিএবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুভাশীষ বসু এবং স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন আইসিএবির প্রেসিডেন্ট মোঃ মনিরুজ্জামান এফসিএ৷

মূল প্রবন্ধে ড. ইয়ানকা মোজেস বলেন, অ্যাকাউন্টিং এবং নিরীক্ষা এমন হওয়া উচিত, যাতে তা জবাবদিহিতা নিশ্চিতে সহায়তা করে। ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্সিয়াল স্ট্যান্ডার্ড (আইএফআরএস) সঠিকভাবে অনুসরণের মাধ্যমে এটা সম্ভব।

আইসিএবির প্রেসিডেন্ট স্বাগত বলেন, আমাদের ব্যবসা ও অর্থনীতির বর্তমান প্রেক্ষাপট ও অবস্থায় অ্যাকাউন্টবিলিটি ও সাসটেইনেবিলিটি একটি বড় ভূমিকা রাখছে। জবাবদিহিতা এবং স্থায়িত্ব নিশ্চিতে আমাদের যে প্রতিশ্রুতি ছিল তার যে অগ্রগতি হয়েছে সে বিষয়ে তথ্য দিতে চাই। একটি জাতির জন্য আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং পরিবেশগতভাবে উন্নতি লাভ করা। সেই সঙ্গে দেশের সব নাগরিকদের মধ্যে সুবিধাগুলো সমানভাবে ভাগের নিশ্চিত করা।

তিনি বলেন, সব অংশীজন‌দের স্বার্থ রক্ষা করে আর্থিক প্রতি‌বেদন তৈ‌রির মাধ্যমে হিসাবের ক্ষে‌ত্রে জবাব‌দি‌হিতা নি‌শ্চিত করা যায়। দেশ, সমাজ ও কোম্পা‌নির উপর ইতিবাচক ও নে‌তিবাচক প্রভাবের বিষয়‌টি মাথায় রে‌খে প্রতিবেদন তৈ‌রি কর‌তে হ‌বে। কোম্পা‌নির ব্যবস্থাপকদের শুধু মুনাফা করলেই হবে না, একইস‌ঙ্গে নতুন কর্মসংস্থান সৃ‌ষ্টি ও উপযুক্ত জীবনমান নি‌শ্চিত করার মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পদক্ষেপ নিতে হবে।

মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, আমরা যেভাবে অ্যাকান্টিবিলিটি এবং সাসটেইনেবিলিটিতে কাজ করে এতে সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্ব একটি বড় পরিবর্তন দেখেছে। সরকার থেকে শুরু করে ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত, আমাদের কার্যক্রম আজকের এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের মঙ্গলকে অনেক প্রভাবিত করবে।

কনফারেন্সের প্রধান অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, এসডিজিতে সাসটেইনেবিলিটির গুরুত্ব অনেক। যখন এসডিজির লক্ষ্য অর্জনের পরিকল্পনা নেয়া হয় তখন টেকসই উন্নয়নের গুরুত্বারোপ করে অন্যান্য দেশগুলো। শুধু প্রকল্প উন্নয়নে সাসটেইনেবিলিটি হলে হবে না, জলবায়ু এবং পরিবেশের ক্ষেত্রেও এর গুরুত্ব দিতে হবে। টেকসই হচ্ছে এসডিজির কাজ করার বেসিক যায়গা। যা একটি সুন্দর ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য রেখে যেতে হবে। যখন এসডিজির প্রস্তাব জমা দেয়া হয়, তখন বাংলাদেশের ১১টি প্রস্তাবের মধ্যে ১০টিই বর্তমান ১৭ এসডিজি লক্ষ্যের সঙ্গে মিলে যায়। পরে সেই প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাক্ষর করেন ও এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। দূর্নীতি বন্ধে ভালো সুশাসন প্রয়োজন, আর সেই সুশাসনের জন্য অ্যাকাউন্ট সাসটেইনেবিলিটি প্রয়োজন। ১৯৭১ সালের পর গত ১৫ বছরে বাংলাদেশের পরিবর্তনের সঙ্গে অর্থনীতির সর্বোচ্চ গ্রোথ হয়েছে।

বিশেষ অতিথি অর্থ বিভাগের সচিব ড. মোঃ খায়রুজ্জামান মজুমদার বলেন, আইসিএবি পেশাদার চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের সংগঠন। যা স্বাধীনতার‌ পর ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাসনামলে কার্যক্রম শুরু করে। গত এক দশক ধরে এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আর টেকসই উন্নয়নের জন্য নিয়মিত প্রকল্প বাস্তবায়ন ছাড়াও দরকার স্বচ্ছ এবং টেকসই অ্যাকান্টিবিলিটি।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু বলেন, যে কোনো উন্নয়ন দীর্ঘস্থায়ী না হলে সেটিকে প্রকৃত উন্নয়ন বলা যায় না৷ তাই টেকসই উন্নয়ন প্রতিটি ক্ষেত্রেই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ জাতিসঙ্গের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) হল ১৭টি লক্ষ্যের একটি৷ যার লক্ষ্য হল ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্রের অবসান, পৃথিবীকে রক্ষা করা এবং সবার জন্য সমৃদ্ধি নিশ্চিত করা৷ এটি বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত যে, এসডিজি প্রণয়নে পেশাদার হিসাবরক্ষকদের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে৷

পরবর্তীতে ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলিং-এর ড. ইয়াংনকা মোজেস (Dr. Yinka Moses) এর সঞ্চলনায় ‘কর্পোরেট সাসটেনেবিলিটি প্রাকটিস: মহাপরিচালক বিষয়ের উপর প্যানেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. এটিএম তারিকুজ্জামান, সিপিএ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং সেল-এর মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মোহাম্মদ আবু ইউসুফ, আইসিএবির কাউন্সিল মেম্বার এবং হুদা ভাসি চৌধুরী অ্যান্ড কোং চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস-এর পার্টনার সাব্বির আহমেদ, এফসিএ, আইসিএবি-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুভাশিষ বোস এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের টেকসই অর্থ বিভাগের পরিচালক চৌধুরী লিয়াকত আলী৷

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com