1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

৩১ মার্চের মধ্যে অবণ্টিত লভ্যাংশ জমা না দিলে কঠোর শাস্তি: বিএসইসি চেয়ারম্যান

  • Last Update: Tuesday, March 15, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ারবাজারে তালিকাভূক্ত হওয়ার পর থেকে যেসব কোম্পানি অবণ্ঠিত লভ্যাংশ এখনো জমা দেয়নি, আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে তা জমা দিতে হবে। অন্যথায় কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম।

তিনি বলেন, কোম্পানিগুলো তালিকাভুক্তি থেকে ঘোষিত সব লভ্যাংশের তথ্য খুঁজে বের করবো। এবং যারা লভ্যাংশ ঘোষণা করে তা গোপন করেছেন তাদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২ তম জন্মবার্ষিকী উদাযাপন উপলক্ষে রাজধানীর একটি হোটেলে ক্যাপিটাল মার্কেট সট্যাবিলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএফ)-এর উদ্যেগে বিনিয়োগকারীদের অদাবিকৃত লভ্যাংশ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকার সম্পাদক শ্যামল দত্ত। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিএমএসএফ এর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ এবং বাংলাদেশ আ্যসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানির সদ্য সাবেক প্রেসিডেন্ট আজম জে চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিএমএসএফ-এর পরিচালনা পরিষদ, বিভিন্ন কমিটির চেয়ারম্যান ও সদস্যরা। সিএমএসএফ-এর প্রথম চিফ অব অপারেশন মনোয়ার হোসেন এফসিএ, এফসিএমএ।

শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, বিনিয়োগকারীদের দাবি মেটানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। বিনিয়োগকারীরা হয়তো অনেক বছর জানতোই না তাদের পাওনা টাকার বিষয়ে। আজকে পাওয়ার মাধ্যমে তাদের মধ্যে শেয়ারবাজার নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব আসবে। এই বাজারে বিনিয়োগ করলে যে রিটার্ন পাওয়া যায়, তা আজকের অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিনিয়োগকারীদের মাধ্যমে বাহিরে ম্যাসেজ চলে যাবে। এছাড়া তাদের পাওনা আদায় করে দেওয়ার জন্য যে রেগুলেটর আছে, সেটা তাদের মধ্যে আস্থা তৈরী করবে।

তিনি বলেন, কোম্পানিগুলোতে বিনিয়োগকারীদের হাজার হাজার কোটি টাকার লভ্যাংশ জমে থাকার বিষয়টি যখন আমরা তুলে নিয়ে আসলাম, তখন কোম্পানি কর্তৃপক্ষ ওই লভ্যাংশের পাওনাদার বিনিয়োগকারীদের খুঁজে পাচ্ছে। ঠিক আছে পাক। আমাদের উদ্যোগের ফলে যদি বিনিয়োগকারীরা তাদের পাওনা ফেরত পায়, সেটাও ভালো।

তবে এখনো কিছু কোম্পানি থেকে অবণ্টিত লভ্যাংশের হিসাব নেই বলে কমিশনে চিঠি পাঠায় বলে জানান তিনি। অনেকেই মাসের পর মাস সময় চেয়েই যাচ্ছেন। তবে ৩১ মার্চের পরে কমিশন কঠোর হবে। এখনো জরিমানা করা শুরু করিনি, তবে শিগগিই কমিশন পদক্ষেপ নেবে। আমরা অনেক সময় দিয়েছে এবং অপেক্ষা করেছি। চলতি মাসের পরে আর সময় দেওয়া হবে না।

অবণ্টিত লভ্যাংশের অপব্যবহারকীরদের হুশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, চলতি মাসের মধ্যে যদি ওই লভ্যাংশের হিসাব দিতে না পারে এবং ফান্ড কোথায় রয়েছে বলতে না পারলে ও স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে স্থানান্তর না করলে, কমিশন কঠোর ব্যবস্থা নেবে। যা অবণ্টিত লভ্যাংশের থেকে কয়েকগুণ বেশি জরিমানা হবে।

গত সপ্তাহে বাজারে নেতিবাচকতার কারন হিসাবে শিবলী রুবাইয়াত বলেন, যুদ্ধ বা যেকোন কারণ হোক, বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরী হয়েছিল। বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এমন পরিস্থিতি হয়েছে। তবে আমরা স্ট্র্যাটেজিক ও ফাইন্যান্স ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে সেই সংকট কাটিয়ে উঠেছি। এক্ষেত্রে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। আমরা যে উদ্দেশ্যে এই ফান্ড গঠন করেছিলাম, সেটা সত্যিই কাজে লেগেছে। তাই শেয়ারবাজারে ভয়ের কিছু নাই বলে বিনিয়োগকারীদের আশ্বস্ত করেন তিনি। এই বাজারে বিনিয়োগকারীদের পাশে সরকার থেকে শুরু করে সবাই আছে বলে জানান তিনি।

শেয়ারবাজার থেকে কোম্পানির বেরিয়ে যাওয়ার জন্য পলিসি করা হয়েছে উল্লেখ করে শিবলী বলেন, প্রায় ২০টি কোম্পানি এখন শেয়ারবাজার থেকে বেরিয়ে যেতে চায়। ওইসব কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের অর্থ বুঝিয়ে দেবে। যেসব কোম্পানির কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বিনিয়োগকারীদের অর্থ ২০-৩০ বছর ধরে আটকে আছে।

তবে বর্তমানে বের হয়ে যাওয়া ও বিনিয়োগকারীদের অর্থ ফেরত দীর্ঘমেয়াদি বলে জানান তিনি। এটি সহজ করার জন্য সিএমএসএফের হাতে দেওয়া হবে। এখান থেকে বিনিয়োগকারীরা তাদের অর্থ ফেরত পাবে। এভাবে শেয়ারবাজার থেকে বেরিয়ে যেতে চাওয়া কোম্পানিগুলোর ফান্ড সিএমএসএফে নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা করছি।

তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশ ব্যাংককে বন্ড মার্কেট ছাড়া কোন দেশ উন্নতি হয় না বলে জানিয়েছি। আমরা এই মার্কেটটাকে এগিয়ে নিতে কাজ করছি। তবে বিনিয়োগ সীমার মধ্যে অন্তর্ভূক্ত করার কারণে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। এ বিষয়টি সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংককে সহযোগিতার জন্য বলেছি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন এবং ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশের একটি স্বাধীন দেশ এবং টেকসই অর্থনীতি গড়ে তুলতে বঙ্গবন্ধুর অবদানের কথা উল্লেখ করেন। তিনি বিশিষ্ট অতিথি, স্টেকহোন্ডার, বিনিয়োগকারী এবং আয়োজক কমিটির প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং পুঁজিবাজার উন্নয়নে সিএমএসএফের দায়িত্ব ও কর্তব্যের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি বলেন, সব সময় আমাদের পথ চলায় সমস্যা থাকে। আমার কোভিড পেয়েছি এবং সম্প্রতি যুদ্ধের দামামার মধ্যে কিছু সমস্যায় পড়েছি। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি সব সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে সামনে এগিয়ে যাবো। সেক্ষেত্রে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের দায়িত্ব আছে। যা পালনে চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে আমরা কাজ করছি।

তিনি বলেন, নজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন পর্ষদ চমৎকার কাজ করছে। কয়েক মাসের মধ্যে তারা একটা সিস্টেম তৈরী করেছে এবং নিয়মিত কাজ করেছে। তারা অনেক আগ্রহের সাথে কাজটি নিয়েছেন ও সম্পাদন করেছেন। স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড থেকে তারা বিনিয়োগকারীদের প্রাপ্য ফিরিয় দেওয়ায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বিএসইসির এই কমিশনার।

তিনি বলেন, স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড গঠন নিয়ে আমাদের যে উদ্দেশ্য ছিল, সেটা সঠিক এবং বাস্তবসম্মত ছিল। যা গত সপ্তাহে শেয়ারবাজারকে সাপোর্ট ও বিনিয়োগকারীদের প্রাপ্য ফিরিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে প্রমাণিত।

বিএসইসি কমিশনার মনে করেন, সিএমএসএফকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তা সঠিক পালনের মাধ্যমে ফান্ড বিতরন করবে। তারা ফান্ডকে এমন পর্যায়ে ব্যবহার করবে, যাতে করে সেটি সবার প্রতি আস্থা অর্জন করতে পারে। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে অর্থাৎ টাকা টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে তারা যে আস্থা তৈরি করবে, এই আস্থার মাধ্যমে তারা ভবিষ্যতে শেয়ারবাজারে স্থিতিশীলতায় ভূমিকা রাখতে পারবে বলে বিশ্বাস করেন তিনি।

সমাপনী বক্তব্যে মো. নজিবুর রহমান, চেয়ারম্যান, সিএমএসএফ বাজারের স্থিতিশীলতার ক্ষেত্র
সিএমএসএফ-এর বিভিন্ন কার্যক্রম তুল ধরেন। তিনি একই সাথে দাবি নিম্পত্তি প্রক্রিয়ার জনয সমন্বিত কর্ম পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

উল্লেখ্য, সিএমএসএফ এর প্রধান দায়িত্বগুলির মধ্যে একটি বিনিয়োগকারীদের দাবি নিস্পত্তি করা, এই দায়িত্বের একটি অংশ হিসেবে সিএমএসএফ দাবি নিম্পত্তির প্রক্রিয়া শুরু করেছে এবং ইতিমধ্যেই ১৮ টি দাবি নিষ্পত্তি করেছে যা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে উৎসর্গ করা হয়েছে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com