1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বিকেলে মুদ্রানীতি ঘোষণা করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

  • Last Update: Sunday, June 18, 2023
বাংলাদেশ ব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ রবিবার (১৮ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের সভাপতিত্বে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাস (জুলাই-ডিসেম্বর) সময়ের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে। বিকালে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এই মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন।

দেশে চলছে নানামুখী অর্থনৈতিক সংকট। নানামুখী সংকটের মধ্যে বর্তমানে জ্বালানি, বিদ্যুৎ ও ডলার বাজারের অস্থিরতা বিদ্যমান। এমন সংকটের সময় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এর ঋণের শর্ত বাস্তবায়নের কথা মাথায় রেখে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

জানা যায়, আগামী ছয় মাসের জন্য যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হচ্ছে, এতে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এর বেশিরভাগ পরিবর্তন হচ্ছে আইএমএফের ৪৭০ কোটি ডলার ঋণের শর্ত পরিপালনের জন্য। পরিবর্তনগুলোর মধ্যে রয়েছে, বিদ্যমান এক অঙ্কের ব্যাংকে ঋণের ক্যাপ তুলে দিয়ে বাজারভিত্তিক সুদহার চালু করা, ডলারের বিনিময় হারের অনেকগুলো দর তুলে দেওয়া এবং রিজার্ভের প্রকৃত হিসাবায়ন দেখানো।

এ ছাড়া এবারের মুদ্রানীতিতে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে মূল্যস্ফীতি। কারণ উচ্চ মূল্যস্ফীতিতে সাধারণ মানুষ দিশেহারা। তাই মুদ্রানীতিতে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের চেয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। এ জন্য নীতি সুদহার তথা রেপো ও রিভার্স রেপোর সুদ বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

আগামী অর্থবছরের বাজেটে সরকার মূল্যস্ফীতি ৬ শতাংশের মধ্যে সীমিত রাখা এবং সাড়ে ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। বর্তমান বাস্তবতায় যা বাস্তবায়নযোগ্য নয় বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। বাংলাদেশ ব্যাংকও মনে করে, লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে না। বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে তেমন কোনো রূপরেখা না থাকায় নতুন মুদ্রানীতিতে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কী পদক্ষেপ থাকছে, তা নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বিশ্বব্যাপী চার ধরনের লক্ষ্যমাত্রাভিত্তিক মুদ্রানীতি প্রচলতি। এগুলো হলোÑ সুদহার, মূল্যস্ফীতি, মুদ্রা সরবরাহ এবং বিনিময় হার। বাংলাদেশ ব্যাংক এত দিন ‘মূল্যস্ফীতি টার্গেটিং’ মুদ্রানীতি প্রণয়ন করে আসছিল। তবে আইএমএফের পরামর্শে এবারে ‘সুদহার টার্গেটিং’ হবে।

সুদহার টার্গেটিংয়ের মাধ্যমে বাজারে অর্থের সরবরাহ বাড়ানো-কমানো হবে, যাতে বাজারে অতিরিক্ত টাকা না থাকে, আবার ঘাটতিও না হয়। অর্থাৎ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে টাকা ধার দেওয়া-নেওয়ার ক্ষেত্রে ওই করিডরের আওতায় পৃথক রেট থাকবে। এর একটি হলো লেন্ডিং রেট, অপরটি হলো ডিপোজিট রেট। বাজারে যখন অতিরিক্ত তারল্য থাকবে, সেটা তুলে নেওয়ার জন্য ডিপোজিট রেট প্রয়োগ করা হবে। আর যখন ব্যাংকগুলোতে অর্থের সংকট থাকবে, তখন তাদের অর্থ ধার দেওয়ার জন্য লেন্ডিং রেট প্রয়োগ করা হবে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com