1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

স্বাস্থ্য বীমার নতুন প্রোডাক্ট আনছে চার্টার্ড লাইফ

  • Last Update: Thursday, June 15, 2023

রাসেল মাহমুদ

চতুর্থ প্রজন্মের বীমা কোম্পানি চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড স্বাস্থ্য বীমায় নতুন একটি প্রোডাক্ট লঞ্চ করতে যাচ্ছে। জুলাই মাসের শুরুর দিকে নতুন প্রোডাক্টটি বিপণন শুরু করবে কোম্পানিটি। তার আগে প্রোডাক্টটির বিস্তারিত বাণিজ্য বার্তার কাছে তুলে ধরেছেন কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এস. এম. জিয়াউল হক, এফএলএমআই।

বাণিজ্য বার্তা: চার্টার্ড লাইফ নতুন একটি প্রোডাক্ট আনতে যাচ্ছে। আপনাদের বেশ কিছু প্রোডাক্ট রয়েছে। তারপরও নতুন প্রোডাক্ট কেন?

এস. এম. জিয়াউল হক: বাংলাদেশের বীমা শিল্পে চার্টার্ড লাইফ সব সময় নতুন কর্মসূচি নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি, গ্রাহকের প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো গুরুত্ব দিলে গ্রাহক সন্তুষ্টি যেমন পাওয়া যাবে, তেমনি চাহিদা অনুযায়ী প্রোডাক্ট তৈরি করলে, সেবা দিলে তা বিপণনও করা যাবে।

বীমা যে এক ধরনের নিরাপত্তা গ্রাহকের কাছে আমরা সেটাই বার বার প্রমাণ করতে চাই।

চার্টার্ড লাইফ বিভিন্ন গবেষণায় দেখেছে, স্বাস্থ্য খাতে বীমার প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। এই জায়গায় ফোকাস করতে পারলে ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য খাতের এই সেবাকে পরিপূর্ণ করা যাবে।

এই বিষয়টাকে প্রাধান্য দিয়ে চার্টার্ড লাইফ ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে ‘চার্টার্ড নিরাপত্তা’ নামে নতুন একটি প্রোডাক্ট এনেছিল। ওই প্রোডাক্টে আমাদের ফোকাস ছিলো অল্প প্রিমিয়ামের মাধ্যমে গ্রাহককে তিন বা পাঁচ বছরের জন্য কাভারেজ দেওয়া। এখানে আমাদের ফোকাস ছিল স্বল্প আয়ের মানুষ। গত তিন বছরে এই পলিসি ৫ হাজারের অধিক বিক্রি হয়েছে। এ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আমরা আরেকটি নতুন প্রোডাক্ট আনতে যাচ্ছি।

বাণিজ্য বার্তা: আগের প্রোডাক্ট থেকে ব্যতিক্রম কি আছে?

এস. এম. জিয়াউল হক: এই প্রোডাক্টটি চার্টার্ড নিরাপত্তার চেয়ে কিছুটা ইম্প্রুভ করা হয়েছে। আগেরটা ছিলো টার্ম ইন্সুরেন্স। টার্ম ইন্সুরেন্সে মানুষের একটা অনাগ্রহ থাকে। কারণ মেয়াদান্তে কিছু পাওয়া যায় না। তিন বছর পর যদি গ্রাহকের কোনো ক্লেইম না হয় তাহলে কোনো ধরনের রিটার্ন পান না। যদিও এটার প্রিমিয়াম মূল্য অনেক কম। প্রিমিয়াম মূল্য কম সেটাকেই আমরা ফোকাস করেছিলাম। কিন্তু আমরা অভিজ্ঞতা থেকে দেখছি, যেহেতু মানুষ রিটার্ন পান না, সেক্ষেত্রে এটার প্রতি একটা অনাগ্রহ থাকবে। এটাকে আমরা কাজে লাগিয়ে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) থেকে প্রোডাক্টটির অনুমোদন পেয়েছি। এই প্রোডাক্ট আইডিয়াটা বাংলাদেশে নতুন। চার্টার্ড লাইফ সব সময় উদ্ভাবনী কাজ করে নতুন নতুন প্রোডাক্ট নিয়ে আসে।

বাণিজ্য বার্তা: গ্রাহক কী কী সুবিধা পাবে।

এস. এম. জিয়াউল হক: এটা সম্পূর্ণ গ্রাহকবান্ধব পলিসি। গ্রাহক যদি পাঁচ বছরের জন্য এক লাখ টাকার পলিসি ক্রয় করে এবং বছরে ২০ হাজার টাকা করে দেয় তাহলে মেয়াদান্তে জমাকৃত এক লাখ টাকা ফেরত পাবেন। তাছাড়া ৪৫টা রোগের জন্য তিনি হেল্থ কাভারেজ পাবেন। এরমধ্যে ২৫টা মেজর ডিজিজের কথা উল্লেখ্য করা হয়েছে। আর ২০টি মাইনর ডিজিজ।

স্বাস্থ্য বীমায় হসপিটালাইজড না হলে গ্রাহক বীমা সুবিধা পান না। আমরা এই জায়গাটায় পরিবর্তন এনেছি। গ্রাহক ডাক্তারের কাছে গিয়েছেন, বিভিন্ন টেস্ট করিয়েছেন এবং আইডেন্টিফাই হলেন যে তার ক্যান্সার। ওই মুহূর্তেই বীমা অংকের ৩০ শতাংশ আমরা তাকে দিয়ে দেবো।

এটা দেওয়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে তার যে প্রাথমিক খরচ হয়েছে এক লাখ টাকা যদি তার বীমা অংক হয় প্রথমেই তিনি ৩০ হাজার টাকা পেয়ে গেলেন। যা খরচ হয়েছিলো টাকাটা পেলে তার পুষিয়ে যাবে। এর পর হসপিটালাইজড হয়ে কেমোথেরাপি বা রেডিওথেরাপি দিচ্ছেন, হাসপাতালের খরচ করে জমা দিলেই আমরা বাকি টাকাটা দিয়ে দেবো।

আবার মাইনর ডিজিজের ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ টাকা আমরা শুরুতেই দিয়ে দেবো। যাতে করে গ্রাহক ট্রিটমেন্ট নিতে পারেন। এর পর যদি এমন হয় উনার আর ট্রিটমেন্টের দরকার নেই, তাহলে বাকি টাকাটা মেয়াদ শেষে পেয়ে যাবেন।

বাণিজ্য বার্তা: এই পলিসির মেয়াদ কতো দিন, বীমা অংক কতো হবে?

এস. এম. জিয়াউল হক: আমাদের দেশে বীমা পলিসিগুলো সাধারণত ১০ বছরের হয়। মানুষ দীর্ঘ সময়ের পলিসি নিতে চায় না। তাই আমার এই পলিসির সর্বনিম্ন মেয়াদ করেছি ৫ বছর। আর সর্বোচ্চ ২০ বছর। ৫ বছর থেকে ৭০ বছরের মানুষ পলিসিটি নিতে পারবেন। সর্বনিম্ন বীমা অংক হবে এক লাখ টাকা এবং সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা।

আমরা এখানে শুধু লাইফ ফোকাস করিনি বরং গ্রাহক মেয়াদান্তে সব টাকা ফেরত পাচ্ছেন। একই সঙ্গে আবার হেলথের দিকটাও দেখা হচ্ছে।

সব পলিসিতে ক্রিটিকাল ডিজিজের কথা বলা হয় কিন্তু মাইনর ডিজিজগুলো দেখা হয় না। আমাদের এখানে মেজর ডিজিজের যেই কাভারেজ মাইনরের ক্ষেত্রেও সেই কাভারেজ দেওয়া হবে।

প্রোডাক্টটিতে আমরা মিডল এবং আপার ক্লাসকে ফোকাস করছি। ডিজাইন করা হয়েছে সামাজিক সুরক্ষার কথা চিন্তা করে। স্বাস্থ্য নিয়ে গবেষণা করে এখন পর্যন্ত কেউ প্রোডাক্ট আনেনি, আমরা সেটা করেছি। এখন মানুষ যদি বুঝতে পারে তাহলেই আমরা সফল হবো। আগামী জুলাইয়ের ২ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে আমরা প্রোডাক্টটির নাম ঘোষণা করবো।

প্রোডাক্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে ভিডিওতে

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com