1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

অপপ্রচার পায়ে মাড়িয়ে দূরন্ত সোনালী লাইফ

  • Last Update: Tuesday, June 13, 2023

নিজস্ব প্রতিবেদক

সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড দীর্ঘ ১০ বছর ধরে সুনামের সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনা করছে। এ সময়ে গ্রাহক সার্ভিস, দাবি পরিশোধ আর ব্যবস্থাপনায় শতভাগ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করেছে। ফলশ্রুতিতে কোম্পানির গ্রস প্রিমিয়াম, লাইফ ফান্ডসহ সকল সূচকে পৌঁছেছে অনন্য অবস্থানে।

তবে কোম্পানির এই সাফল্যে ঈর্ষান্বিত একটি মহল। তারা সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের নামে ‘নকল’ প্যাড বানিয়ে কোম্পানির প্রোডাক্টের বিষয়গুলো ব্যবহার করে ফেসবুকে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এতে সাময়িকভাবে কিছুটা বিভ্রান্তি তৈরি হলেও কোম্পানির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীলতার কারণে অপপ্রচার আর বাড়তে পারেনি। বরং অপপ্রচার পায়ে মাড়িয়ে দূরন্ত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে চতুর্থ প্রজন্মের কোম্পানিটি।

কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, সোনালী লাইফ নিয়ে ফেসবুকে অপপ্রচার চালানোর প্রতিবাদে গত ৮ মে রামপুরা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন কোম্পানির একজন কর্মকর্তা।

জিডি’র তথ্য মতে, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের প্যাড ব্যবহার করে এবং কোম্পানির প্রোডাক্টের বিষয়গুলো ব্যবহার করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছেন একজন বীমা কর্মী; যিনি চট্টগ্রামে একটি বীমা কোম্পানির গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত। ‘ইন্স্যুরেন্স, ব্যাংকিং এন্ড ফাইন্যান্স সেক্টর ইন বাংলাদেশ’ নামক ফেসবুক পেইজে তিনি নিজের আইডি থেকে এ সংক্রান্ত পোস্ট করেন।

সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের প্রধান কার্যালয়ের সিনিয়র অফিসার নাঈমুর রহমান গত ৬ মে বিকালে অফিসে বসে নিজের মোবাইলের ফেসবুক আইডিতে প্রবেশ করে কামাল হোসেনের ওই পোস্ট দেখতে পান। তবে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য না থাকায় তিনি শুধু জিডি করেন। ভবিষ্যতে তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে মামলা করার জন্য পুনরায় আবেদন করবেন বলেও উল্লেখ করেছেন জিডিতে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের লোগো ব্যবহার করে ‘ইন্স্যুরেন্স, ব্যাংকিং এন্ড ফাইন্যান্স সেক্টর ইন বাংলাদেশ’ নামে একটি ফেসবুক পেইজ (পাবলিক গ্রুপ) খোলা হয়েছে। পেইজটি পরিচালনায় এডমিন হিসেবে রয়েছে ৫টি ফেইসবুক আইডি; যাদের একজন গ্রুপ এক্সপার্ট। পেইজটিতে মডারেটরের সংখ্যা রয়েছে ৪১টি। এসব মডারেটরের একজন অভিযুক্ত কামাল হোসেন। পেইজটির সদস্য সংখ্যা ২৩ হাজারেরও বেশি।

অভিযোগের বিষয়ে সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মীর রাশেদ বিন আমান সম্প্রতি বলেন, আমাদের কোম্পানির সুনাম নষ্ট করার জন্য কিছু ব্যক্তি বানোয়াট তথ্য দিয়ে সাজানো বিভিন্ন ডকুমেন্টস প্রচার করছে। নিয়মিতভাবেই তারা এটা করে আসছে। বানোয়াট এসব ডকুমেন্টস সোনালী লাইফের নয় এবং আমাদের সাথে এগুলোর কোনো সম্পর্ক নেই। আমাদের কোম্পানির পারফরমেন্সকে ডিসক্রেডিট করার জন্য তারা এসব বানাচ্ছে।

সোনালী লাইফের একজন কর্মকর্তা বলেন, কোনো অপপ্রচারে সোনালী লাইফের পদযাত্রাকে দমিয়ে রাখতে পারবে না। কারণ সোনালী লাইফের সকল ব্যবসা স্বচ্ছ। ৭ দিনে মৃত্যু দাবি, ডিউ-ডেটে বীমা দাবি পরিশোধ করে শুধু সোনালী লাইফ। আমাদের কোনো ক্লেইম পেন্ডিং নেই। হেড অফিসের পলিসি সার্ভিস সেন্টার নিয়মিত গ্রাহকের সঙ্গে যোগাযোগ করে। এ জন্য আমাদের গ্রাহকরা এসব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সচেতন ও স্বোচ্চার রয়েছেন।

কোম্পানির একটি সূত্র জানিয়েছে, ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে গত মাসে সোনালী লাইফ নিয়ে অপপ্রচার চালালেও ব্যবসায় তার কোনো প্রভাব পড়েনি; বরং গত মে মাসে সোনালী বেশ ভালো ব্যবসা করেছে। গত মাসে ক্লোজিং হয়েছে প্রায় ৬৮ কোটি টাকায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি জীবন বীমা কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, কিছু মানুষ সব সময় মানুষের পিছনে পড়ে থাকেন। কারো ভালো দেখতে পারেন না। সোনালীর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। পুরো বীমা খাতে সোনালী বেশ ভালো করছে, এটা মানতে অনেকেরে বেশ কষ্ট হচ্ছে। তাই অপপ্রচার চালাচ্ছে। তবে এতে খুব বেশি লাভ হবে না।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com