1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পদোন্নতি নীতিমালায় বৈষম্যের অভিযোগ

  • Last Update: Sunday, June 11, 2023
বাংলাদেশ ব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ব্যাংকে পদোন্নতির সর্বশেষ নীতিমালা নিয়ে বৈষম্যের অভিযোগ উঠেছে। এই নীতিমালায় মূলত নবম (সহকারী পরিচালক) ও দশম (কর্মকর্তা) গ্রেডে প্রবেশন কর্মকর্তাদের পরবর্তী পদোন্নতির জন্য প্যানেলভুক্তির ক্ষেত্রে চাকরিকাল দুই বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছর করা হয়েছে- যা সংবিধান, উচ্চ আদালত ও বাংলাদেশ ব্যাংকের চাকরিবিধির সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলে জানাচ্ছেন কর্মকর্তারা।

এ পরিস্থিতিতে এ দুই গ্রেডের প্রবেশন পদের কর্মকর্তারা সম্পূর্ণ চাকরিজীবনে সর্বোচ্চ যুগ্ম পরিচালক হওয়ার সুযোগ পাবেন। তাছাড়া সাতশর বেশি সহকারী পরিচালক পদ দীর্ঘ সময় শূন্য থাকবে। এ নিয়ে ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে কর্মকর্তাদের মধ্যে।

নতুন নীতিমালায় কর্মকর্তা বা সমমান পদ থেকে সহকারী পরিচালক বা সমমান এবং সহকারী পরিচালক পদ থেকে উপপরিচালক বা সমমান পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে ন্যূনতম চাকরিকাল ধরা হয়েছে পাঁচ বছর। আগে এসব কর্মকর্তার পরবর্তী পদে প্যানেলভুক্তির জন্য সময় লাগত আড়াই বছর (দুই প্যানেল বা দুই এসিআর সমমান)। এ নিয়ম অনুযায়ী ২০১৯ সালে সরাসরি নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মকর্তারাও আড়াই বছরে পরবর্তী পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। সে হিসেবে পরবর্তী ব্যাচের প্রবেশন কর্মকর্তাদের পদোন্নতি ২০২৩ সালের অক্টোবরের মধ্যে হওয়ার কথা। কিন্তু নতুন এ নীতিমালার কারণে তাদের প্যানেলভুক্ত হতে দেরি হবে ৩-৪ বছর।

সংবিধানের ২৯ (১) ধারা অনুযায়ী, প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগ বা পদ লাভের ক্ষেত্রে সুযোগের সমতা থাকবে। সে হিসেবে একটি প্রবেশন পদ (দশম গ্রেড) থেকে আরেকটি প্রবেশন পদে (নবম গ্রেড) পদোন্নতিতে ন্যূনতম চাকরিকাল পাঁচ বছর নির্ধারণ সংবিধান পরিপন্থী। কেননা সরকারি ব্যাংকগুলোতে তিন বছর অতিক্রান্ত হলেই পদোন্নতির জন্য যোগ্য হন। আবার ‘ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল সেটেলমেন্টস’ মানদণ্ড অনুযায়ী কেন্দ্রীয় ব্যাংকারদের সঙ্গে কোনো বৈষম্য করা যাবে না। নতুন নীতিমালা তাই সরকারি ব্যাংকগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের বৈষম্য সৃষ্টি করবে।

একইভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পদোন্নতি নীতিমালার ১৭ নম্বর বিধিতে বলা হয়েছে, পদোন্নতির যোগ্য কর্মকর্তা পাওয়া না গেলে এবং শূন্যপদ পূরণ আবশ্যক হলে ফিডার পদের কর্মকর্তাকে ন্যূনতম তিন বছর চাকরি করা সাপেক্ষে চলতি দায়িত্ব দেওয়া যাবে। আর সহকারী পরিচালক পদে সরাসরি নিয়োগ ও পদোন্নতির কোটা ১:১ অনুসরণ করেই শূন্যপদ পূরণ করতে হবে। তবে এই পদে পদোন্নতির জন্য কর্মকর্তা পদে ন্যূনতম চাকরিকাল পাঁচ বছর নির্ধারণ করায় সাতশরও বেশি সহকারী পরিচালক পদ দীর্ঘ সময় শূন্য থাকবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তা জানান, পরিচালনা পর্ষদের ৪২৫তম সভায় নবম বা তদূর্ধ্ব গ্রেডভুক্ত পদে পদোন্নতির নতুন নীতিমালা প্রকাশে সংশ্লিষ্ট ডেপুটি গভর্নর কাজী সাইদুর রহমান একচ্ছত্র প্রভাব খাটিয়েছেন। এক্ষেত্রে গভর্নরকেও অন্ধকারে রাখা হয়েছে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে সাইদুর রহমানকে একাধিকবার কল ও মেসেজ দিয়েও জবাব মেলেনি।

সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী, কোনো কর্মচারী সাধারণত যে আইনে নিয়োগ পান, সেই বিধি মোতাবেক পদোন্নতি পাবেন। কিন্তু নতুন পদোন্নতি নীতিমালায় আপিল বিভাগের রায়কে উপেক্ষা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। উদাহরণস্বরূপ, চলতি বছরের এপ্রিলে মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজিএ) কর্তৃপক্ষ ‘নন-গেজেটেড এমপ্লয়িজ রিক্রুটমেন্ট রুলস-১৯৮৩ বাতিল করে ২০২৩ সালের একটি নিয়োগ বিধিমালা জারি করেছে। অথচ আপিল বিভাগের রায় মেনে আগের আইনে নিয়োগপ্রাপ্তদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে পূর্বের নিয়ম চালু রেখেছে।

ভুক্তভোগী কয়েকজন কর্মকর্তা জানান, প্রবেশন পদে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের পরবর্তী পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে সাধারণত দুই থেকে আড়াই বছর লাগে। এ বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে বুয়েট ও আইবিএর মতো প্রতিষ্ঠানের মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা বা সহকারী পরিচালক পদে যোগ দিচ্ছেন। কিন্তু পদোন্নতির নতুন শর্তে তারা ক্ষুব্ধ ও হতাশ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. আবুল বশর বলেন, ‘নিয়ম মেনেই নীতিমালা করা হয়েছে। গভর্নরের নেতৃত্বে সব দিক বিবেচনায় নিয়ে এটি করা হয়েছে।’ তবে ‘বৈষম্য ও স্বেচ্ছাচারিতা’ ইস্যু নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মন্তব্য করবেন না বলে জানান তিনি।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com