1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সামাজিক সুরক্ষায় বীমা

  • Last Update: Tuesday, February 28, 2023
চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও এস এম জিয়াউল হক

এস এম জিয়াউল হক, এফএলএমআই

উন্নয়ন অগ্রযাত্রার বাংলাদেশে, মানুষের মৌলিক অধিকার পূরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন মৌলিকনীতি বাস্তবায়নে সচেষ্ট আছে। আমরা দেখছি যে, সরকার সর্বস্তরের জনগণের জন্য শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি, বয়স্কভাতা ইত্যাদি বাস্তবায়নে অগ্রাধিকার দিয়ে যাচ্ছে। অর্থনৈতিক অগ্রাধিকার কার্যক্রমের সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের প্রতি সরকারের নজর দেয়া প্রয়োজন। বীমাসেবার মাধ্যমে বীমা কোম্পানিগুলো সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারে। বীমাসেবা শুধু বীমা সুরক্ষার মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নতিতে সহায়তায়ই করে না; বরং অর্থনিতিকে সুরক্ষিত রাখে।

বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সমানতালে অংশগ্রহণের জন্য বীমা কোম্পানিগুলো তাদের বিভিন্ন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নানান ধরনের কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে৷ সামাজিক সুরক্ষার জন্য সর্বজনীন পেনশন নিশ্চিত করতে পেনশন চালু করা হচ্ছে। সকলকে পেনশনের আওতায় আনা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২১ সালে বাংলাদেশে ষাটোর্ধ্ব নাগরিকদের আর্থিক ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সর্বজনীন পেনশন চালুর নির্দেশ দেন। সর্বজনীন পেনশনকে বীমাসেবার মাধ্যমে সকলের জন্য নিশ্চিত করা অত্যন্ত সহজ। এটি সফল করতে মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় কমিটি এককভাবে কাজ না করে যদি বীমা কোম্পানিগুলোকে সঙ্গে নিয়ে যৌথভাবে কাজ করে তাহলে দ্রুত সুফল পাওয়া যাবে।

সরকারের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল বাস্তবায়নের জন্য ডিজিটাল টেকনোলজির সাহায্যে ক্ষুদ্র বীমা যুক্ত করা যেতে পারে। অতীতে ঝুঁকি মোকাবেলা আর দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র বীমা প্রকল্প চালু করা হয়েছিল। তবে প্রিমিয়াম তুলনামূলক বেশি এবং তামাদি হয়ে যাওয়ার হার বৃদ্ধি পাওয়ায় এই বীমার আশানুরূপ সুফল পাওয়া যায় নাই। এক্ষেত্রে এনজিওর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগের ভিত্তিতে কাজ করা গেলে দরিদ্র মানুষের জন্য স্বল্প প্রিমিয়ামে ক্ষুদ্র বীমা চালু করে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে বীমা সুরক্ষার আওতায় আনা যাবে।

সরকার যেমন ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট সুবিধা দিচ্ছে তেমনি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য স্বল্প প্রিমিয়ামে (দৈনিক মাত্র ৩ টাকা প্রিমিয়ামে ) চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড স্বাস্থ্য ও জীবন বীমা সুবিধা দিচ্ছে। যেখানে থাকছে অসুস্থতাজনিত হাসপাতালে ভর্তি খরচ, অপারেশন সংক্রান্ত খরচ এবং মৃত্যু দাবির সুবিধা।

ক্ষুদ্র শিল্পের মালিক এবং শ্রমিকদের সুরক্ষিত করতে ক্ষুদ্র বীমা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। এতে কর্মীদের জান-মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। অতীতে প্রায় ৫০-৬০ লাখ মানুষকে ক্ষুদ্র ঋণের আওতায় আনতে কাজ করা হয়েছিল, এখন এই জনগোষ্ঠীকে তাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে বীমা পলিসির মাধ্যমে সুরক্ষিত করতে হবে। যেমন, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড কোনো প্রতিষ্ঠানে নূন্যতম ৫ জন থেকে ২৫ জন শ্রমিক বা জনবল থাকলেই সেখানে গ্রুপ এসএমই বীমার সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

এছাড়া বাংলাদেশের ৭-৮% নারী ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করছে। তাদের আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ক্ষুদ্র বীমা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। ক্ষুদ্র ঋণের সঙ্গে ক্ষুদ্র বীমা যুক্ত করে ঋণ গ্রহীতার আর্থিক সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যসুরক্ষা বীমার মাধ্যমে নিশ্চিত করা সম্ভব।

বীমা আইন ২০১০-এর সংশোধন করে যদি বীমা কোম্পানিগুলোকে ক্ষুদ্র ঋণ সংস্থা এবং এনজিওর সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার সুযোগ দেয়া যায় তবে আরও দ্রুত এর সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে। নারী অথবা নারী উদ্যোক্তাদের জন্য নতুন বীমা পরিকল্প প্রণয়নের মাধ্যমে নারীদেরকে বীমা সুরক্ষায় আনা সম্ভব।

সামাজিক সুরক্ষায় শুধু মাত্র জীবন ও স্বাস্থ্যবীমা দিয়েই জনগনকে সুরক্ষিত করা যাবে না, তাদের বিভিন্ন সম্পদ সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্পদ সুরক্ষার অংশ হিসেবে শস্যবীমা, গবাদিপ্রাণী বীমা, মৎস্যবীমা চালু করা যেতে পারে।

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রতি হাজারে ৪ জন মানুষ বীমার আওতায় রয়েছে। ডেল্টা প্ল্যান-২১০০, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০২১-২০৪১, ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিভিন্ন ধরনের বীমার প্রতি বিশেষ জোর দেয়া হয়েছে।

নতুন নতুন বিতরণ ব্যবস্থা, নতুন বীমা পরিকল্প, দ্রুত গ্রাহকসেবা ইত্যাদির মাধ্যমে বীমা কোম্পানিগুলো যদি বীমাসেবায় আস্থা তৈরি করতে পার তাহলে বীমার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়বে।

লেখক
প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও)
চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com