1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ব্যবসায় বড় প্রতিষ্ঠানের ভাগ

  • Last Update: Sunday, February 19, 2023

রাসেল মাহমুদ

সাভারের সারওয়ার আলম ও আলেয়া বেগম দম্পতি মুড়ি বানিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে বিপণন করেন। স্বল্প পুঁজিতে ব্যবসা শুরু করেও কঠোর পরিশ্রমে স্বাচ্ছন্দ ফিরেছে তাদের সংসারে।

এই দম্পত্তিকে ‘আইডল’ মেনে তাদের এক আত্মীয় সাহারা খাতুন শুরু করেছিলেন চানাচুর তৈরি। বাড়িতে তৈরি সেই চানাচুর ধামরাইয়ের বিভিন্ন দোকানে সরবরাহ করতেন তিনি। এতে স্বাচ্ছন্দ ফিরেছে তার সংসারেও।

তবে আগের মতো আর ‘ভালো ব্যবসা’ হচ্ছে না তাদের। কারণ হিসেবে সারওয়ার আলম বলেন, প্রায় একযুগ আগে আমরা মুড়ি ভেজে স্থানীয়ভাবে বিক্রি করতাম। বাড়িতে বানানো হতো বলে চাহিদাও ছিল বেশ। তবে গত কয়েক বছরে বড় বড় কোম্পানিগুলো মুড়ি বানিয়ে বাজারজাত করছে। ফলে আমরা কোম্পানিগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকতে পারছি না।

শুধু সারওয়ার আলম, আলেয়া বেগম বা সাহারা খাতুন নন; দেশের বিভিন্ন প্রান্তের যেসব ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা স্থানীয় পর্যায়ে ছোট ছোট উদ্যোগ নিয়ে আয়ের পথ তৈরি করেছিল তাতে ভাগ বসিয়েছে বড় বড় কোম্পানি। করপোরেট এসব প্রতিষ্ঠানের আগ্রাসনে হারিয়ে যেতে বসেছেন এসব ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উদ্যোক্তারা।

জানা গেছে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সিটি গ্রুপ, আকিজ, বসুন্ধরা, প্রাণসহ বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠান মুড়ি, চানাচুর, আটা ও চালের ব্যবসায় নেমে প্যাকেটজাত করে অনেক বেশি দামে বিক্রি করছে। এসব খাতে কোম্পানিগুলো একচ্ছত্র আধিপত্য তৈরি করেছে। যার প্রভাব সরাসরি গিয়ে পড়ছে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ও সাধারণ ক্রেতার ওপর।

শিল্পনীতিতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের বিকাশের কথা বলা হলেও কুটির ও ক্ষুদ্র শিল্পখাতে বিনিয়োগে করপোরেটদের নিষেধ করা হয়নি। ফলে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা হারিয়ে যাচ্ছেন। করপোরেটদের বিনিয়োগে মন্ত্রী থেকে শুরু করে শীর্ষ ব্যবসায়ীরাও ক্ষুদ্ধ। তারা বলছেন, করপোরেটরা সব জায়গয়ে বিনিয়োগ করলে ক্ষুদ্র ও ছোটরা যাবে কোথায়?

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারসহ খুচরা দোকানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করপোরেট গ্রুপগুলোর মধ্যে সিটি গ্রুপ, আকিজ গ্রুপ, প্রাণ, বসুন্ধরাসহ বেশ কয়েকটি বড় গ্রুপ প্যাকেটজাত চাল বাজারজাত করছে। এসব চালের দাম স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি নেওয়া হচ্ছে।

কারওয়ার বাজারের চাল ব্যবসায়ী আব্দুল আওয়াল বলেন, করপোরেট কোম্পানির চালের বাড়তি দামে আমরাও অতিষ্ট। গুণাগুণ একই হলেও প্যাকেটজাত করার কারণেই করপোরেট কোম্পানির চালের দাম বেশি। এতে ভোক্তাদের বাড়তি টাকা করপোটেরদের পকেটে যাচ্ছে। কোম্পানি থেকে লোক এসে বলে ভালো চাল, আমরাও রাখি। কারণ অনেকে মনে করে, বেশি দাম তাহলে বেশি ভালো হবে।

মুদি ব্যবসায়ীরা জানায়, আটা তৈরি করছে তীর, ফ্রেশ, বসুন্ধরাসহ বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠান। এসব কোম্পানি দুই কেজি আটা প্যাকেটজাত করে ১৩০ টাকা বিক্রি করছে। কিন্তু খোলা আটার কেজি ৬০ টাকা। পোলাও চালও বেশি দামে বিক্রি করছে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। খোলা চাল ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা বিক্রি করা হলেও প্রাণ, তীর কোম্পানির প্যাকেট চাল ১৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে।

বিভিন্ন করপোরেট কোম্পানি বেশি দামে চাল, আটা, ময়দা, তেল, চানাচুর বিক্রি করছে। তাদের ব্যবসার পরিধিও বাড়ছে। কিন্তু কুটির ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ওই সব পণ্য কম দামে বিক্রি করা হলেও তাদের ব্যবসা সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের জাতীয় শিল্পনীতি-২০২২ এ শিল্পখাতের উন্নয়নের ব্যাপারে বলা হয়েছে, এসএমই নীতিমালা ২০১৯-এর আলোকে এসএমই ফাউন্ডেশন এবং বিসিক উদ্যোক্তা উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখসহ এর সার্বিক কার্যক্রম আরও শক্তিশালী করা হবে এবং অপ্রাতিষ্ঠানিকখাতে কটেজ ও মাইক্রো শিল্পের বিকাশকে ত্বরান্তিত করা হবে। শিল্পখাতে নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তার ব্যাপারেও বলা হয়েছে।

এতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠায় উৎসাহ প্রদানে বিসিকের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষিভিত্তিক, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, ফল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও চামড়া শিল্পের উন্নয়নের জন্য আধুনিক সুবিধা সম্বলিত পরিবেশবান্ধব শিল্প পার্ক গড়ে তোলা হবে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা একেবারেই ভিন্ন। বৃহৎ শিল্প বা করপোরেটদের চাপে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের বিকাশ দূরের কথা, দিনে দিনে তলিয়ে যাচ্ছে। কারণ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উদ্যোক্তারা ১০ লাখ টাকা বিনিয়োগ না করেও চানাচুর, মুড়ি সরবরাহ করছে। তারা কম দামেও ভোক্তাদের এসব পণ্য সরবরাহ করছে।

অপরদিকে জাতীয় শিল্পনীতির আলোকে আমদানি বিকল্প পণ্য হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে এসব ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প এবং কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পেও কর ছাড় দেওয়া হয়েছে। এরফলে সম্প্রতি সিটি গ্রুপ, প্রাণ, আকিজের মতো বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান এসব ব্যবসায় নজর দিয়েছে। ফলে তাদের প্রভাবে ছোট উদ্যোক্তারা হারিয়ে যাচ্ছেন। অপরদিকে ভোক্তাদেরও চাল, আটা, ময়দা, তেল, মুড়ি, চানানচুর বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। এভাবে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের বাজার করপোরেটদের দখলে চলে যাওয়ায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

বিষয়টি নিয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, করপোরেটরা ব্যবসা করবে। কিন্তু চাল প্যাকেটজাত করে কেজিতে ৫ টাকা বেশি দাম নিবে, এটা হতে পারে না। আমাদের কাছেও অন্য চাল ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করছে। বাজারে আসলে দাম বাড়াচ্ছে করপোরেটরা। কারণ তারা নিজে ধান কিনে মজুদ করে রাখছে। কিন্তু তথ্য প্রমাণ না পেলে তো ব্যবস্থা নেওয়া যায় না। শিল্পনীতিতে কী আছে তাও দেখার বিষয়

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইএর সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন সম্প্রতি বলেছেন, সিটি গ্রুপসহ বড় বড় সাহেবরা চাল ব্যবসায়ে ঢুকে পড়েছে। একেকটা মিল দেড় থেকে দুই কিলোমিটার জুড়ে গড়ে উঠেছে। সিটির তীর চাল তারা খুচরাও বিক্রি করছে। এটা কেন? সব জায়গায় কেন তাদের যেতে হবে। এটা সরকারের দেখা উচিৎ। কারণ এভাবে চললে মুদির দোকানও বন্ধ হয়ে যাবে।

সম্প্রতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রাক-বাজেট আলোচনায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, বড় বড় প্রতিষ্ঠানের ছোট ব্যবসায় জড়ানো উচিত নয়। বড় বড় শিল্প গ্রুপ যদি এসএমইর (ক্ষুদ্র ও মাঝারি) ব্যবসা খেয়ে ফেলে তাহলে তো হবে না। উন্নত দেশ হতে আমাদের যে বড় বড় শিল্প করতে হবে সেসব বিনিয়োগ কে করবে? আমার মনে হয়, নির্দিষ্ট করে দেয়া দরকার যে, কে কোন ব্যবসা করতে পারবেন। এগুলো শিল্প বা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে করতে হবে। আমাদের কোম্পানি আইনে এগুলো অবারিত করা আছে। বড় বড় গ্রুপ এখন আসুক, হেলিকপ্টার বানাক, গাড়ি বানাক। তাদের আর মুড়ি না বানানোই ভালো। তাদের মুড়ি ভাজার দরকার নেই। তাহলে বড় ব্যবসার পাশপাশি ছোট ব্যবসায়ও দ্রুত বিকশিত হবে। দ্রুত আমাদের দেশ ভালো করবে।

বাংলাদেশ অটো মেজর ও হাসকিং রাইস মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও দিনাজপুর চেম্বারের পরিচালক শহিদুর রহমান পাটওয়ারী (মোহন) বলেন, পুঁজি থাকলে যে কেউ ব্যবসা করবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কিছুটা নিয়ম মেনেই তা করতে হবে। যেভাবে পারব ভোক্তাদের কাছে বেশি দাম নেব, এটা কোনো ব্যবসা না। করপোরেটরা মিনিকেট চাল বাজারে বিক্রি করছে আমরাও অটো রাইস মিল থেকে সেই মিনিকেট চাল বিক্রি করছি কম দামে। ভোক্তাদের তা দেখতে হবে। তাহলে তারা একচেটিয়ে বাজার দখল করতে পারবে না। অন্যরা টিকে থাকবে।

পলিশ করে মিনিকেট নামে চিকন চাল বাজারে বেশি দামে বিক্রি করার ব্যাপারে সম্প্রতি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. শামসুল আলম বলেন, যে কেউ আইন মেনে বৈধপথে ব্যবসা করবে এটা দোষের কিছু না। কিন্তু বর্তমানে মিনিকেটের নামে ভোক্তাদের সঙ্গে ডাহা প্রতারণা করা হচ্ছে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com