1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সেতু কর্তৃপক্ষের টাকা দিচ্ছে না আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক

  • Last Update: Sunday, November 27, 2022

রাসেল মাহমুদ

শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের স্থায়ী আমানতের রশিদ বা এফডিআর-এর কিস্তি পরিশোধ করছে না। কর্তৃপক্ষের বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও ২০১৭ সাল থেকে কিস্তি পরিশোধ বন্ধ রেখেছে ব্যাংকটি। ফলে বিপাকে পড়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সম্প্রতি সেতু বিভাগ অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে একটি চিঠি দিয়েছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

সূত্র বলছে, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের কাছে বাংলাদেশ সেতু বিভাগের বর্তমানে যে তহবিল রয়েছে তার পরিমাণ ৪৫.৩৪ কোটি টাকা। ২০১৭ সাল পর্যন্ত মাত্র ২৭.৩৪ কোটি টাকা পরিশোধ করা হলেও এরপর আর কোনো অর্থ পরিশোধ করেনি ব্যাংকটি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, সরকারের তহবিল সংকটের এই সময়ে স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের টাকা খুব প্রয়োজন। আমরা বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করব যাতে দ্রুত এই অর্থ ফেরত দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

জানা গেছে, ৬৫০ কোটি টাকার আর্থিক জালিয়াতির কারণে ২০০৬ সালে ওরিয়েন্টাল ব্যাংক অধিগ্রহণ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিছু শেয়ার হোল্ডার বিধি লঙ্ঘন করে ১০ শতাংশের বেশি এবং বেনামে ওরিয়েন্টাল ব্যাংকের শেয়ার ধারণ করেছিল। বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় এবং ব্যাংক কোম্পানি আইনের ১৪(ক) ধারা লঙ্ঘন করায় শেয়ারধারীদের ৮৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ শেয়ার বাংলাদেশ ব্যাংক নিজের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হয়। যার অভিহিত মূল্য ছিল ৪৪৫ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংক পরে এতে প্রশাসক বসায়। ব্যাংকটি থেকে আমানতকারীরা তখন টাকা তুলতে গেলে তারল্য সংকটে পড়ে এ ব্যাংকটি। এরপর আমানতকারীদের অর্থ ফেরত দিতে সাড়ে ছয় বছর সময় দিয়ে ২০০৭ সালে একটি স্কিম বা কর্মসূচি চালু করা হয়। যদিও পরবর্তী সময়ে কয়েক দফা ওই স্কিমের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। নতুন স্কিমে ব্যাংকটির পরিশোধিত মূলধন ধরা হয়েছে ৭০০ কোটি টাকা। এর ৫২ দশমিক ৬৭ শতাংশ শেয়ার উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক মালয়েশিয়ার মালিকানাধীন আইসিবি ফাইন্যান্সিয়াল গ্রুপ হোল্ডিংস এজির কাছে বিক্রি করা হয়। পুনর্গঠনের পর ব্যাংকটির নামকরণ হয় আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লিমিটেড।

সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, ২০০৪-০৫ অর্থবছরে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ ৬৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা এফডিআর হিসেবে পূর্বের ওরিয়েন্টাল ব্যাংকে রেখেছিল। ওরিয়েন্টাল ব্যাংক বন্ধ হওয়ার পর সেতু কর্তৃপক্ষ গত ১০ বছরে (২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত) বিভিন্ন কিস্তিতে মাত্র ২৭ কোটি ৩৪ লাখ টাকা পেয়েছে।

সেতু কর্তৃপক্ষের অর্থ কেন ফেরত দেওয়া হচ্ছে না তা জানতে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ শফিক বিন আবদুল্লাহকে ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ না করার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

১৯৯০ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকটি বর্তমানে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন করছে। গত ২১ অক্টোবরের তথ্য অনুযায়ী ব্যাংকটির মোট শেয়ারের ৫২ দশমিক ৭৬ শতাশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। সরকারের হাতে রয়েছে দশমিক ১৭ শতাংশ শেয়ার। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাঠে রয়েছে ২২ দশমিক ৮২ শতাংশ শেয়ার। আর সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ধারণ করছে ২৪ দশমিক ২৫ শতাংশ শেয়ার।

আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের বর্তমান অনুমোদিত মূলধন দেড় হাজার কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৬৬৪ কোটি ৭০ লাখ ২০ হাজার টাকা। মোট শেয়ার সংখ্যা ৬৬ কোটি ৪৭ লাখ ২ হাজার ৩০০টি।

ঋণ খেলাপি, প্রভিশন ঘাটতিসহ দীর্ঘদিন ধরেই নানা সমস্যায় জর্জরিত আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক। তবে চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে ভালো ব্যবসা করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এমনকি এ সময়ে মুনাফাও করেছে। তবে নয় মাসের হিসাবে লোকসানে পড়েছে ব্যাংকটি। চলতি বছরের প্রথম নয় মাসের ব্যবসায় শেয়ারপ্রতি লোকসান করেছে ১১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছিল ৪৭ পয়সা।

শুধু লোকশান নয়, ব্যাংকটির সম্পদমূল্যও রয়েছে নেতিবাচক অবস্থায়। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর শেষে শেয়ারপ্রতি সম্পদ দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১৮ টাকা ২৫ পয়সা, যা গত বছরের সেপ্টেম্বর শেষে ছিল ১৮ টাকা ১ পয়সা। অন্যদিকে শেয়ারপ্রতি ক্যাশ-ফ্লো দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ৬০ পয়সা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ঋণাত্মক ১৫ পয়সা।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com