1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

কমেছে বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি

  • Last Update: Friday, October 28, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

গত আগস্টে বেসরকারি খাতের ঋণের প্রবৃদ্ধি ছিলো ১৪ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। সেপ্টেম্বরে প্রবৃদ্ধি কমে নেমে এসেছে ১৩ দশমিক ৯৩ শতাংশে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

তথ্য অনুযায়ী, সেপ্টেম্বর মাসে বেসরকারি খাতে বকেয়া ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৭৯ হাজার ৪১৩ কোটি টাকা। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ১২ লাখ ১০ হাজার ৭২২ কোটি টাকা। আর চলতি বছরের আগস্টে ছিল ১৩ লাখ ৬২ হাজার ৪৭৭ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২২-২৩ অর্থবছরের যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে, তাতে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ১৪ দশমিক ১০ শতাংশ। গত ২০২১-২২ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছিল ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ। গত অর্থবছর ১৩ দশমিক ৬৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে শেষ হয়।

তবে গত আগস্টে বেসরকারি খাতের ঋণের যে প্রবৃদ্ধি ছিল তা নতুন মুদ্রানীতির লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি। তবে সেপ্টেম্বরে সে প্রবৃদ্ধি থেকে আরও কমে গেছে।

বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, সেপ্টেম্বরে আমদানির পরিমাণ কমেছে। লোডশেডিং ও জ্বালানি সংকটের কারনে উৎপাদন ক্ষমতা কমেছে। তাই বিনিয়োগের জন্য বেসরকারি খাতে ঋণের খুব একটা দরকার পড়ছে না। তাই আগের মাসের তুলনায় সেপ্টেম্বরে এ খাতের প্রবৃদ্ধি কমেছে। এর আগে এ খাতে গ্রোথ হওয়ার কারণ ছিল ডলারের রেট বৃদ্ধি। তাই আমদানির ব্যয় টাকার অংকে বেড়েছে। তাই বেসরকারি খাতের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, সেপ্টেম্বর মাসে বিভিন্ন পণ্য আমদানির জন্য মোট ৫৭০ কোটি ডলারের এলসি খোলা হয়। আগের মাস আগস্টের তুলনায় যা ৬৩ কোটি ডলার বা প্রায় ১০ শতাংশ কম। সেপ্টেম্বরে আমাদনি এলসি নিষ্পত্তিও আগের মাসের চেয়ে ১৮ শতাংশ কমে ৬০০ কোটি ডলারে নেমেছে। আগস্টে আমদানি নিষ্পত্তি হয়েছিল ৭৩৩ কোটি ডলার। এছাড়া গত বছরের একই সময়ের চেয়ে এলসি খোলা ও নিষ্পত্তি দুটোই কমেছে। এছাড়া গত অর্থবছরে রপ্তানির তুলনায় আমদানি বেশি হওয়ায় সর্বোচ্চ বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে। বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, ২০২২ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে বেসরকারি খাতের ঋণের প্রবৃদ্ধি ১১ শতাংশ ছাড়িয়ে ১১ দশমিক ০৭ শতাংশে উঠেছিল। তবে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় ফেব্রুয়ারিতে এই প্রবৃদ্ধি কমে ১০ দশমিক ৭২ শতাংশে নেমে আসে। মার্চে তা দশমিক ৫৭ শতাংশ পয়েন্ট বেড়ে ১১ দশমিক ২৯ শতাংশে ওঠে। এপ্রিল মাসে তা ১২ শতাংশ ছাড়িয়ে ১২ দশমিক ৪৮ শতাংশে ওঠে। মে মাসে তা আরও বেড়ে ১২ দশমিক ৯৪ শতাংশ ওঠে। জুন মাসে ১৩ শতাংশ ছাড়িয়ে ১৩ দশমিক ৬৬ শতাংশে ওঠে। জুলাই মাসে ১৩ দশমিক ৯৫ শতাংশে ওঠে। আগস্টে বেড়ে ১৪ দশমিক ০৭ শতাংশ ছাড়িয়েছে। আর সর্বশেষ সেপ্টেম্বরে কমে ১৩ দশমিক ৯৩ শতাংশে নেমেছে।

গত মে মাস থেকে ডলারের বাজারে অস্থিরতা চলছে। আমদানি খরচ বেড়ে যাওয়ায় প্রবাসী আয় ও রপ্তানি আয় দিয়ে ডলারের চাহিদা মিটছে না। এতে সংকট তৈরি হয়েছে। তাই রিজার্ভ থেকে ধারাবাহিকভাবে ডলার বিক্রি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ইতিমধ্যে প্রতি ডলারের দাম ৮৬ থেকে বাড়িয়ে ৯৭ টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের চার মাসে রিজার্ভ থেকে ৪৮১ কোটি ডলার বিক্রি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতে রিজার্ভ কমে ৩৫ দশমিক ৮৫ বিলিয়ন ডলারের ঘরে নেমেছে।

যদিও ব্যাংকগুলোতে ডলার কেনাবেচা হচ্ছে আরও অনেক দামে। গতকাল বাণিজ্যিক ব্যাংকগু‌লো‌ আমদানি পর্যায়ে ডলারের দাম নিচ্ছে ১০০ টাকা ৫০ পয়সা থে‌কে ১০৩ টাকা ৫৬ পয়সা।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com