1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বৈদেশিক ঋণ ছাড়ে গতি কমেছে

  • Last Update: Wednesday, October 26, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিক জুলাই-সেপ্টেম্বরে কমেছে বৈদেশিক ঋণ ছাড়। প্রথম তিন মাসে ১৩৪ কোটি ৯২ লাখ ডলার ছাড় করেছে উন্নয়ন সহযোগীরা। যেখানে গত অর্থবছরের একই সময়ে ছাড় হয়েছিল ১৯৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে অর্থছাড় কমেছে প্রায় ৫৯ কোটি ডলার। এদিকে ঋণ পরিশোধেই প্রথম প্রান্তিকে ব্যয় হয়েছে ৫২ কোটি ৫৬ লাখ ডলার। যা মোট ঋণের প্রায় ৩৯ শতাংশ।যদিও প্রথম প্রান্তিকে বেড়েছে নতুন ঋণের প্রতিশ্রুতি।

মঙ্গলবার অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে।

ইআরডির তথ্য অনুযায়ী, অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে উন্নয়ন সহযোগীরা ছাড় করেছে ১৩৪ কোটি ৯২ লাখ ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে বৈদেশিক সহায়তা ছাড় হয়েছিল ১৯৩ কোটি ৮০ লাখ ডলারের। এদিকে অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে বাংলাদেশের জন্য ৪৮ কোটি ৮০ লাখ ডলার এবং আগস্টে ৩৮ কোটি ডলার ঋণ-সহায়তা ছাড় করেছিল উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা ও দেশগুলো। সেপ্টেম্বরেও ৪৮ কোটি ৫০ লাখ ডলার ছাড় করেছে ।

দেশের অর্থনীতির এ সংকটকালে বিদেশি উন্নয়ন সহযোগীদের অর্থছাড়ের পরিমাণ হঠাৎ করে নেতিবাচক ধারায় যাচ্ছে। ইআরডির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, সংকটকালীন সময়ে বৈদেশিক উন্নয়নসহযোগিদের কাছ থেকে অর্থছাড়ের ধারা আগের চেয়ে কমেছে। অন্যদিকে প্রতিশ্রুত অর্থ বাস্তবায়নের পাশাপাশি বাংলাদেশের ঋণ পরিশোধের দিকে চাপে আছে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, প্রথম দুই মাসে ঋণ পরিশোধ করেছে ৫২ কোটি ৫৬ লাখ ডলার, যা বাংলাদেশী টাকায় ৪ হাজার ৯৮৬ কোটি টাকা। যদিও আগের বছর একই সময়ে আগের নেওয়া ঋণ ও সুদের বিপরীতে ৫৯ কোটি ৩৮ লাখ ডলার বা ৫ হাজার ৬কোটি টাকা ঋণ পরিশোধ করেছিল বাংলাদেশ।

চলতি অথবছর প্রথম দুই মাসে অর্থ ছাড় কমে যাওয়ার পাশাপাশি নতুন প্রতিশ্রুতি কম এসেছে। মাত্র ৪০ কোটি ৫৪ লাখ ডলার ঋণের চুক্তি হয়েছে অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে। যদিও গত বছরের প্রথম তিন মাসে মাত্র ৯৪ লাখ ডলারের নতুন প্রতিশ্রুতি পাওয়া গিয়েছিল।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে সরকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি-এডিপির আওতায় ঋণ ও অনুদান মিলে মোট ৯৩ হাজার কোটি টাকা পাওয়ার লক্ষ্য ঠিক করেছে। এই লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী প্রতি মাসে ৮৩ কোটি ডলার করে ছাড় হতে হবে। সে অনুযায়ী দুই মাসে কমপক্ষে ২৪৯ কোটি ডলার অর্থছাড়ের কথা ছিল। কিন্তু সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অর্থছাড়ে বেশ পিছিয়ে আছে।

এ সময়ে সবচেয়ে বেশি অর্থছাড় হয়েছে জাপানের উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে। তাদের কাছ থেকে এসেছে ৪৫ কোটি ৯৩ ডলার। এরপরই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অর্থছাড় চীনের কাছ থেকে এ দেশ থেকে অর্থছাড় হয়েছে ২৭ কোটি ৪৭ লাখ ডলারের। এছাড়া বিশ্ববব্যাংকের কাছ থেকে এসেছে ১৯ কোটি ২১ লাখ ডলার। এডিবির কাছ থেকে এসেছে ১৬ কোটি ৭৯ লাখ ডলার।

এর আগের অর্থবছরে রেকর্ড পরিমাণ ১০ বিলিয়ন ডলারের অর্থছাড় করেছিলো উন্নয়ন সহযোগীরা। বিদেশি অর্থায়নে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে গত ২০২১-২২ অর্থবছরে ঋণ ও অনুদান মিলিয়ে এসেছে মোট ১ হাজার কোটি ৮৩ লাখ ডলার, যা আগের অর্থবছরের চেয়ে প্রায় ২৬ শতাংশ বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থায়ন করে এডিবি। এরপর রয়েছে জাপান ও বিশ্ব ব্যাংক। এর  আগে ২০২০-২১ অর্থবছর উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা ও দেশ বাংলাদেশের অনুকূলে মোট ৭৯৫ কোটি ৭৫ লাখ ডলার অর্থছাড় করেছিল।

২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ৭১০ কোটি (৭.১ বিলিয়ন) ডলার ঋণসহায়তা পেয়েছিল বাংলাদেশ। তার আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বিদেশি ঋণ আসে। ওই বছর ৭৩৮ কোটি (৭.৩৮ বিলিয়ন) ডলার ঋণ পাওয়া গিয়েছিল।

বাংলাদেশে বিদেশি ঋণ বাড়তে থাকে ২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকে। ওই বছরই এক লাফে অর্থছাড় ৩০০ কোটি থেকে ৬৩৭ কোটি ডলারে উন্নীত হয়। তারপর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এসেছিল ৬৫৪ কোটি ডলার।

ইআরডির কর্মকর্তারা জানান, অর্থবছরের প্রথম দিকে সাধারণ উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ ব্যয় কম হয়। বেশ কিছু মন্ত্রণালয় ও বিভাগ বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দের ১ শতাংশের কম অর্থ ব্যয় করেছে। বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দের কোন অর্থ ব্যয় করতে পারেনি। তবে অর্থবছরের শেষ দিকে অর্থ ব্যয় বাড়বে।

অন্যদিকে বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গে বাজেট সহায়তা নিয়ে আলোচনা চলছে। বাজেট সহায়তার প্রতিশ্রুতি পাওয়া সঙ্গে সঙ্গে অর্থছাড় হয়ে যায়। আগের অর্থবছরের মতো চলতি অর্থবছরে বৈদেশিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি ও অর্থছাড় বাড়াতে বাজেট সহায়তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউট অব বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, গত কয়েক অর্থবছরে বাজেট সহায়তা ও কোভিড সহায়তা অর্থছাড়ে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় চলতি অর্থবছরেও উন্নয়নের সহযোগীদের কাছ থেকে বাজেট সহায়তার আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে উন্নয়ন সহযোগীদের শর্ত মেনে বিভিন্ন সেক্টরে সংস্কার না করলে বাজেট সহায়তা পাওয়া কঠিন হবে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com