1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ব্যাংক আমানতে ৭% ও ঋণে ১০% সুদ নির্ধারণ হচ্ছে

  • Last Update: Monday, October 17, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ব্যাংক ঋণের সুদহার বাড়ানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মূল্যস্ফীতির চাপ সামলাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ১২ অক্টোবর ঋণের সুদহার বাড়ানোর বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু ফারাহ মো. নাসের রাষ্ট্রমালিকানাধীন চার বাণিজ্যিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। ওই বৈঠকে এ বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের শীর্ষ এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ঋণের সুদহার ১ পার্সেন্টেজ বাড়িয়ে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ করার কথা ভাবা হচ্ছে। এতে আমানতের সুদহারও কিছুটা বাড়বে। মেয়াদি আমানতের সুদহার ৭ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে। তবে সুদহার বাড়ালে তা আগে বিতরণ করা ঋণে কার্যকর হবে কিনা, তা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

বিষয়টি নিয়ে সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আফজাল করিম গণমাধ্যমে বলেন, মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আবার বিনিময় হারও বাড়ছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সুদহার বাড়ানো হবে কিনা বাংলাদেশ ব্যাংক তা পর্যালোচনা করছে।

২০২০ সালের এপ্রিলে সরকারের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক ঋণের সুদহারে সর্বোচ্চ সীমা বেঁধে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। সেই থেকে ব্যাংকগুলো ক্রেডিট কার্ড বাদে সব ধরনের ঋণে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদ নিচ্ছে। ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে বেঁধে রাখায় ব্যাংকগুলো ওই সময় থেকে আমানতে সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ সুদ দিচ্ছে। তবে সব ধরনের আমানতে এ সুদহার পান না গ্রাহকরা। সেই থেকে ঋণের সুদহার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশে রয়েছে।

বৈশ্বিক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে দেশের অর্থনীতিবিদরা আগে থেকেই ঋণের সুদহার বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে আসছিলেন। ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিএবিও বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে এ বিষয়ে দাবি জানিয়েছে। যদিও ব্যবসায়ীরা সুদহার বাড়ানোর পক্ষে নন। তারা বলছেন, সম্প্রতি জ্বালানি, পরিবহন বাবদ খরচ বেড়েছে। কাঁচামালের দামও বেড়েছে, যা উৎপাদন খরচ বাড়িয়ে দিয়েছে। এখন ঋণের সুদহার বাড়ানো হলে ব্যবসার খরচ আরও বেড়ে যাবে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ তথ্যমতে, গত সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৯ দশমিক ১০ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের বাজেটে বছর শেষে গড় মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশে রাখার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে সরকার। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ তথ্য বলছে, গত আগস্টে আমানতের গড় সুদহার ছিল ৪ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। সুদহার কমে যাওয়ায় ব্যাংকে আমানত কমছে। গত জুন মাসের তুলনায় জুলাইয়ে ব্যাংকগুলোতে আমানত কমেছে ৫ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এ পরিস্থিতিতে আমানতকারীরা ব্যাংকে টাকা জমা রাখতে চাচ্ছেন না। অন্যদিকে বেসরকারি খাতে ঋণের চাহিদা বেড়েছে। সর্বশেষ গত আগস্টে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ছিল ১৪ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। ব্যাংকে আমানত কমে যাওয়া এবং বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি মূল্যস্ফীতিকে উসকে দিচ্ছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেপোর সুদহার দশমিক ২৫ পার্সেন্টেজ পয়েন্ট বাড়িয়ে ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ করা হয়েছে। এর পরও মূল্যস্ফীতির চাপ রয়েছে। এ অবস্থায় ঋণের সুদহার বাড়ানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শিগগিরই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, অনেক আগেই সুদহার বাড়ানো উচিত ছিল। শুধু রেপো সুদহার বাড়িয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। সুদের হার বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত।

ব্যাংকের শীর্ষ নির্বাহীদের সংগঠন এবিবির চেয়ারম্যান ও ব্র্যাক ব্যাংকের এমডি সেলিম আর এফ হোসেন বলেন, ঋণের সুদহার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের চিন্তাভাবনা করার সময় হয়েছে। কারণ, মূল্যস্ফীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমানতে সুদ দিতে গিয়ে ব্যাংকের কস্ট অব ফান্ড বেড়ে যাচ্ছে। আগামী কয়েক মাসে সেটা আরও বাড়বে। এসব কারণে ৯ শতাংশে ঋণ দেওয়ায় আমানত—ঋণের গ্যাপটা খুব ছোট হয়ে যাচ্ছে। সব খাতে না হলেও এসএমই এবং ব্যক্তি ঋণে ছাড় দেওয়ার চিন্তা করতে পারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com