1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বাংলাদেশের শেয়ারবাজারে বন্ড ছাড়তে আইএফসির কঠিন শর্ত

  • Last Update: Friday, October 14, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিশ্বব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) বাংলাদেশের শেয়ারবাজারে বন্ড ছাড়তে চায়। এ জন্য কয়েকটি শর্ত দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য শর্ত প্রতিষ্ঠানটিকে কর অব্যাহতি দিতে হবে। পাশাপাশি মুদ্রা অদলবদল বা কারেন্সি সোয়াপের সুবিধাও চায় তারা।

জানা গেছে, আইএফসি যে বন্ডটি ছাড়বে তার নাম হবে ‘টাকা বন্ড’। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক বন্ড ছেড়ে আইএফসিকে ৪ বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ অর্থ উত্তোলনের প্রাথমিক অনুমোদনও দিয়েছে।

শেয়ারবাজার থেকে সংগৃহীত অর্থ শিল্প খাতে বিনিয়োগ করবে বেসরকারি খাত সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানটি। এর আগে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে (এলইসি) ‘বাংলা বন্ড’ ছেড়ে সেই দেশ থেকে অর্থ উত্তোলন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। সংস্থাটি মনে করে এর ফলে শেয়াবাজারে বন্ড মার্কেটের উন্নয়ন ঘটবে।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে বন্ড ছেড়ে অর্থ উত্তোলনের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. হাবিবুর রহমানের কাছে চিঠি দিয়েছে আইএফসির বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার মার্টিন হোল্টম্যান। বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) এবং বিএসইসিকে জানানো হয়েছে।

আইএফসির চিঠিতে বলা হয়েছে, এর আগে ২০২১ সালের ১৭ অক্টোবর অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ শেয়ারবাজারে টাকায় অনশোর ডিনোমিনেটেড বন্ড ইস্যু করার জন্য আইএফসিকে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছিল। এর একটি অংশ আইপিও’র মাধ্যমে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির কথাও বলা হয়েছে। তবে সেখানে আইএফসিকে অন-ল্যান্ডিংয়ের পাশাপাশি অফশোর এবং অনশোর মুদ্রা রূপান্তরের অনুমতি দেওয়া হয়নি এবং অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মতো কর দিতে বলা হয়েছিল।

চিঠিতে বলা হয়, আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে এটা প্রতীয়মান হয় যে, বৈদেশিক মুদ্রার অদলবদল এবং ঝুঁকি প্রশমন সম্পর্কে আরও ভালো বোঝার প্রয়োজন এবং আইএফসি দ্বারা স্থানীয় মুদ্রা-নির্ধারিত বন্ড ইস্যু করার ক্ষেত্রে কর মওকুফের মতো বিষয়গুলোতে জোর দিয়ে আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে। তাই আলোচনার মাধ্যমে আইএফসি তাদের ট্রেজারি বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে একটি বৈঠকের প্রস্তাব করেছে, যারা কর্মশালায় উপস্থিতির জন্য বাংলাদেশ সফর করবেন। কারণ আইএফসি ট্রেজারি বিশেষজ্ঞদের স্থানীয় মুদ্রার অনশোর বন্ড ইস্যুতে ভালো অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং তারা বিশ্বব্যাপী শেয়ারবাজারের উন্নয়ন সম্পর্কে খুব ভালোভাবে অবগত। আইএফসি এই গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগের জন্য দৃঢ় সমর্থন প্রত্যাশা করছে, যা বিভিন্ন অগ্রাধিকার খাতে দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়নের প্রাপ্যতা বাড়াতে এবং দেশীয় শেয়ারবাজারের বিকাশে সহায়তা করবে।

২০১৯ সালের শেষের দিকে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে (এলএসই) প্রথমবারের মতো তালিকাভুক্ত হয় ‘বাংলা বন্ড’, যার মাধ্যমে ১ কোটি ৯৫ লাখ হাজার ডলার সংগ্রহ করা হয়, যা তখন বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬০ কোটি টাকার সমান ছিল।

বাংলা বন্ডের নামে আইএফসি প্রথমে ৬ দশমিক ৩ শতাংশ সুদে ৯৫ লাখ ডলার ও পরে ৭ দশমিক ১০ শতাংশ সুদে ১ কোটি ডলার সংগ্রহ করে। ব্যাংক অব আমেরিকা ও স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের মাধ্যমে বিদেশি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা এই বন্ডে বিনিয়োগ করেছে। বন্ডটির সুবিধা ছিল দেশীয় মুদ্রায় আসল ও সুদ পরিশোধ করা।

আইএফসি বিশ্বব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। তারা সরকারি ও বেসরকারি খাতে ঋণ দিয়ে থাকে। এছাড়া প্রযুক্তিগত সহায়তাও করে থাকে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com