1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সব টাকা এক জায়গায় বিনিয়োগ না করার আহ্বান বিএসইসি কমিশনারের

  • Last Update: Thursday, October 6, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

সঞ্চয়ের সব টাকা এক জায়গায় বিনিয়োগ না করার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কমিশনার ড. রুমানা ইসলাম।

তিনি বলেন, আপনারা সব টাকা এক জায়গায় বিনিয়োগ করবেন না। কয়েকটি ভাগে বিনিয়োগ করবেন, তাহলে কখনো লস হলে সেটা কাভার করা যাবে। সব টাকা যদি এক জায়গায় বিনিয়োগ করেন তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হলে আর ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা যাবে না।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) ‘বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ’ উপলক্ষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। তার আগে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমান বলেন, আপনার সঞ্চয়ের একটি অংশ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করুন। তবে কখনো সব টাকা বিনিয়োগ করবেন না।

রুমানা ইসলাম বলেন, পুঁজিবাজারে এখন দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ খুবই কম। সবাই আজকে বিনিয়োগ করে আজকেই গেইন করতে চায়। রাতারাতি মুনাফা তুলে নিতে চায়। এ কারণে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিনিয়োগকারীরা। তাই বিনিয়োগকারীদের উচিত ঝুঁকি কম নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ করা। দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন-ই।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর উদ্যোক্তাদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আমাদের দেশের কোম্পানিগুলো প্রথম প্রজন্মের হাতে ভালো চললেও সেকেন্ড জেনারশেনের (দ্বিতীয় প্রজন্ম) হাতে গেলেই কোম্পানিগুলো আর বেঁচে থাকতে পারে না। এগুলো কোনোরকম বেঁচে থাকলেও ভালো কিছু করতে পারে না। তার কারণ হচ্ছে কোম্পানিগুলোতে সুশাসনের অভাব রয়েছে। এগুলো ঠিক করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ করে সাইফুর রহমান বলেন, সব বিনিয়োগকারীদের উচিত আপদকালীন ফান্ড রাখা। কারণ এই ফান্ড যদি না থাকে আর সব ফান্ড পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে ফেলে, তাহলে যেকোনো জরুরি প্রয়োজন হলে ক্ষতি করে অর্থের যোগান দিতে হয়।

কারণ আমরা চিন্তাভাবনা না করে সঞ্চয়ের সব টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে ফেলি, কোনো কোনো ক্ষেত্রে লোন নিয়ে, সম্পদ বিক্রি করে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করি। যেহেতু পুঁজিবাজার ঝুঁকির জায়গা, এজন্য আমার বক্তব্য হলো- আপনারা সঞ্চয়ের একটা অংশ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করুন।

একটি আইটেমে বিনিয়োগ না করে দেখেশুনে গবেষণা করে বিভিন্ন আইটেমে বিনিয়োগ করুন। তবে বিনিয়োগের আগে কোম্পানিগুলোর পরিচালনা পর্ষদে কারা রয়েছেন, কোম্পানিগুলো ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে কি না এগুলোর দেখে বিনিয়োগ করার আহ্বান জানান তিনি।

এছাড়া কখনো কোনো কোম্পানির শেয়ার উচ্চ দামে না কেনার আহ্বান জানিয়েছেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমান।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সিএসইর চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম। আলোচনা করেন সিএসইর ভারপ্রাপ্ত এমডি গোলাম ফারুক। মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চিফ রেগুলেটরি অফিসার (সিআরও) মোহাম্মদ মাহদী হাসান।

মো. গোলাম ফারুক বলেন, আমরা চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জ বিনিয়োগকারীদের সচেতনতা বৃদ্ধি এবং আর্থিক স্বাক্ষরতার উন্নয়নের জন্য বিএসইসির নির্দেশনায় নিয়মিত সেমিনার / কর্মশালা / সম্মেলনসমূহ আয়োজন করে আসছি। বর্তমান এবং ভবিষ্যতের বিনিয়োগকারীদের জন্য আমাদের বিভিন্ন ধরণের প্রোগ্রাম রয়েছে, আপনারা ন্যূনতম ব্যয়ে এই সুযোগটি নিতে পারেন। বিনিয়োগকারীদের টেকসই পণ্যের ঝুঁকি এবং বিভিন্ন আর্থিক পণ্যকে প্রভাবিত করে এমন টেকসই-সম্পর্কিত ঝুঁকি বোঝা উচিত। এই বোঝাপড়া বিনিয়োগকারীদেরকে সচেতন সিদ্ধান্ত নিতে এবং বিভিন্ন ঝুঁকি থেকে নিজেদের রক্ষা করতে সাহায্য করবে। আমাদের দেশে ইনভেস্ট র এর অভাব এবং বেশিরভাগই ডে ট্রেডার যারা আইটেম বেজড ব্যবসা করে ,সেকারনে কখনো খুব লাভ করে আবার কখনো খুব লস করে । এইজন্য আমাদেরকে ইনভেস্টর তৈরি করতে হবে । বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ এর মুল প্রতিপাদ্য বিষয় গুলোকে সফল করতে হবে ।

সভাপতির বক্তব্যে আসিফ ইব্রাহিম, চেয়ারম্যান, সিএসই বলেন, আইওএসসিও বোর্ড-এর চেয়ারম্যান এবং হংকং সিকিউরিটিজ এন্ড ফিউচারস কমিশনের চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার সম্প্রতি ঠিকই বলেছেন যে, গত দুই বছরে, বিশ্বব্যাপী মহমারিকালে, পুঁজিবাজারে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সংখ্যা বাড়তে দেখা গেছে। ভূ-রাজনৈতিক উদ্বেগের কারণে সৃষ্ট মুদ্রাস্ফীতি এবং অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার দরুন উক্ত বিনিয়োগকারীগণ এখন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। আর্থিক শিক্ষা ও বিনিয়োগকারী প্রতিরক্ষা, যথাযথ তথ্যের ভিত্তিতে অর্থবাজারে বিনিয়োগকারীদেরই সহনশীলতা ও আস্থা ত্বরান্বিত করতে, জোরালো ভূমিকা রাখে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের সকল স্টেকহোল্ডাররা বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে আইওএসসিও-র ষষ্ঠ বিশ্ব বিনিয়োগ সপ্তাহের কর্মসূচিতে সক্রিয়ভাবে অংশ নিচ্ছেন। আমরা বিনিয়োগকারীদের বিএসইসি এবং স্টক এক্সচেঞ্জের বিভিন্ন আর্থিক স্বাক্ষরতা প্রোগ্রামে অংশ নিয়ে পুঁজিবাজার সম্পর্কে তাদের সচেতনতা বাড়াতে অনুরোধ করি। বিএসইসি আর্থিক স্বাক্ষরতা সম্পর্কিত বিষয়গুলি সর্বোচ্চ বিবেচনায় নিয়েছে এবং বিএসইসির স্বল্পমেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচির মাধ্যমে এগুলি সারা দেশে পৌঁছে যাবে।

তিনি আরও বলেন, টেকসই অর্থায়ন বলতে আর্থিক খাতে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় পরিবেশগত, সামাজিক ও গভর্নেন্স বিবেচনায় নেওয়ার প্রক্রিয়াকে বোঝায়, যা টেকসই অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ এবং প্রকল্পগুলিতে বিনিয়োগকারীদেরকে আরও দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের দিকে পরিচালিত করে। জাতিসংঘের সাসটেইনেবল স্টক এক্সচেঞ্জ উদ্যোগ, ২০২৯ সালে প্রবর্তিত জাতিসংঘের একটি অংশীদারিত্বমূলক কর্মসূচি। এটি ইউএননিটিএডি, জাতিসংঘের গ্লোবাল কম্প্যাক্ট, জাতিসংঘের পরিবেশ এবং দায়িত্বশীল বিনিয়োগের নীতি দ্বারা পরিচালিত। এটি এসডিজি ইস্যুতে ঐক্যমত্য ও সক্ষমতা গড়ে তুলতে স্টক এক্সচেঞ্জ, পোর্টফোলিও বিনিয়োগকারী, তালিকাভুক্ত কোম্পানি, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রকদের একত্র করে।

Banijjobarta© Copyright 2022-2023, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com