1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

বিতর্কিত প্রি-ওপেনিং সেশন: কার লাভ কার ক্ষতি

  • Last Update: Sunday, September 25, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের শেয়ারবাজারের প্রি-ওপেনিং পদ্ধতি নিয়ে কম বিতর্ক হয়নি। সময়ে সময়ে এর ইতিবাচক নেতিবাচক উভয় দিক নিয়েই কথা উঠেছে। তবে ‘সামগ্রিকভাবে’ এই পদ্ধতিকে ‘বিতর্কিত’ বলে মনে করেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ারবাজারে প্রথম ২০২০ সালের নভেম্বরে ‘প্রি ওপেনিং’ সেশন ও ‘পোস্ট ক্লোজিং’ সেশন চালু করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

তবে চলতি বছরের মে মাসে এই পদ্ধতি বাতিল করা হয়। তখন প্রি-ওপেনিং সেশনের জন্য নির্ধারিত সময় ছিল ১৫ মিনিট। এবার আগের ১৫ মিনিটের পরিবর্তে ৫ মিনিট সময় নির্ধারণ করে আজ রোববার থেকে ফিরছে বিতর্কিত সেশনটি।

গত বৃহস্পতিবার বিএসইসি এ সংক্রান্ত ঘোষণা দেওয়ার পর থেকেই নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে এতে কারা লাভবান হবেন, কারাই বা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন?

সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বড় একটি অংশ এ পদ্ধতির বিরোধিতা করছেন। তাদের দাবি, প্রি-ওপেনি সেশন শুধু ‘বড় পার্টির’ জন্য।

আহমেদ জোবায়ের নামের একজন বিনিয়োগকারী বলেন, প্রি-ওপেনিং পদ্ধতি আমাদের শেয়ারবাজারের জন্য তেমন কার্যকর নয়। এতে একটি গ্রুপ হয়তো লাভবান হবে। সামগ্রিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা।

প্রি-ওপেনিং নিয়ে রুহুল আমিন নামের একজন বিনিয়োগকারী বলেন, এ সিস্টেমের মাধ্যমে যেহেতু আগে থেকেই কোম্পানিগুলোর শেয়ার কেনা বেচার দর বসানো যায় ফলে গ্যাম্বলারদের সুবিধা নেয়ার সুযোগ থাকো।

গত বৃহস্পতিবার প্রি-ওপেনিন সেশন সংক্রান্ত একটি আদেশ দুই স্টক এক্সচেঞ্জে পাঠানো হয়। সেখানে বলা হয়, ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে সকাল ৯টা ২৫ মিনিট থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত সময়ে শেয়ার কেনা-বেচার প্রিঅর্ডার দিতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা। মূল লেনদেন হবে বেলা ১টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত। আর পোস্ট ক্লোজিং সেশন আগের মতোই ১টা ৫০ মিনিট থেকে ২টা পর্যন্ত চলবে।

বিষয়টি নিয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালক শাকিল রিজভী মনে করেন এটা বাজারের জন্য বেশ কার্যকর হবে। তার মতে, বিশ্বের অন্যান্য দেশেও প্রি ওপেনিং সেশন চালু আছে। আমাদের দেশের শেয়ারবাজারে লেনদেন বৃদ্ধির ফলে ডিএসইর ট্রেডিং ইঞ্জিনের ওপর যে চাপ পড়ছে তা কমাতে এটা কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

অনেকটা একই কথা বলছে বিএসইসি। সংস্থাটি বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে বাজারে লেনদেনের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায়, ডিএসইর ট্রেডিং ইঞ্জিনের ওপর চাপ পড়ছে। ফলে প্রি-ওপেনিং সেশন আবারো চালুর জন্য বিএসইসির কাছে অনুরোধ করেছে ডিএসই। তাই এ সেশন আবার চালুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বিএসইসি মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে ডিএসই’র লেনদেন বাড়ার ফলে ট্রেডিং ইঞ্জিনের ওপর যে চাপ পড়ছে তা কমাতে প্রি ওপেনিং সেশন আবার চালু করা হয়েছে। কারসাজি যেন না হয় সেজন্য এর সময় কমিয়ে এবার ৫ মিনিট করা হয়েছে।

প্রি ওপেনিং সেশনের প্রভাব রোববার মার্কেটে ট্রেড শুরু হবার পর দেখা যাবে বলেও জানান তিনি।

শেয়ারবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ বলেন, শেয়ারবাজারের প্রি-ওপেনিং সেশন সাধারণ বিনিয়োগকারীদের সুবিধা নেই, অসুবিধাও নেই। এর সুবিধা সাধারণ বিনিয়োগকারীদের নাগালের বাইরে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com