1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

মুক্তিযোদ্ধাদের ১০ টাকার ব্যাংক হিসাবে সঞ্চয় ৯৬৩ কোটি টাকা

  • Last Update: Saturday, September 24, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা মো. শামসুল হুদা। সরকারের দেওয়া মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা তিনি ব্যাংকের মাধ্যমে সংগ্রহ করেন। এই ব্যাংক হিসাব খুলতে তার খরচ হয়েছিল ১০ টাকা। এই একটি হিসাব থেকেই তিনি নানা সুবিধা পাচ্ছেন। তিনি বলেন, অন্যদের ব্যাংক হিসাব খুলতে গেলে নানা ধরনের ঝামেলার সঙ্গে ৫০০ থেকে এক হাজার পর্যন্ত টাকা লাগে। তবে আমি মাত্র ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খুলতে পেরেছি। এই হিসাবেই প্রতি মাসে ভাতা পাচ্ছি। টাকা জমা রাখছি। জমা টাকায় আবার মুনাফাও পাচ্ছি।

রাজবাড়ীর পাংশার মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলামও ভাতা সংগ্রহ করেন ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে। তিনিও ব্যাংকে হিসাব খুলেছিলেন ১০ টাকায়। তিনি বলেন, ঝামেলা ছাড়াই ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খুলে নানা সুবিধা পাচ্ছি। অনেকে স্বচ্ছল হওয়ায় ভাতার টাকা ব্যাংকে জমাও রাখছেন। এ জন্য সঞ্চয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুধু ভাতা নয়, কম সুদে ঋণও পাওয়া যাচ্ছে। আমার অনেক পরিচিত দুই লাখ টাকা করে ঋণও নিয়েছে। তাতে সুদের হারও কম। এভাবে সুযোগ পাওয়ায় অনেকেই বিভিন্ন ব্যাংকে হিসাব খুলছে।

শুধু শামসুল হুদা বা শহিদুল ইসলামই নন; ১০ টাকার ব্যাংক হিসাব খুলে সুবিধা পাচ্ছেন কয়েক লাখ মুক্তিযোদ্ধা। জানা গেছে, কোনো রকম ঝামলো ছাড়াই সরকার মাত্র ১০ টাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ দেয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, গত জুন মাস পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংকে তিন লাখ ২২ হাজারের বেশি ব্যাংক হিসাব খুলেছেন মুক্তিযোদ্ধারা। এ সব হিসাবে সঞ্চয়ের পরিমাণ ৯৬৩ কোটি টাকা। এক বছরের ব্যবধানে হিসাব নম্বর খোলার সংখ্যা বেড়েছে ৫৪ হাজারের বেশি। অর্থাৎ ২০ দশমিক ২৬ শতাংশ।

গত বছরের একই সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাবের সংখ্যা ছিল দুই লাখ ৬৮ হাজার। গত তিন মাসে বেড়েছে ১১ শতাংশের বেশি। আর গত মার্চে মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাব ছিল দুই লাখ ৮৯ হাজার ৪৬৯টি।

বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, সরকার দেশের সূর্য সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্নভাবে সম্মান করছে। তারই অংশ হিসেবে তাদের জন্য ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ করে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কম সুদে ঋণেরও ব্যবস্থা করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের মূল্যায়ন করার চেষ্টা করেছে।

তিনি বলেন, ২০১১ সালে ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ করে দিয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। এটা অনেকে আগে জানতেন না। কিন্তু সরকার তাদের ভাতা দেওয়ায় তারা ব্যাংকে হিসাব খুলেছেন। এ কারণে ব্যাংকে হিসাব খোলার সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। বছরের ব্যবধানে ২০ শতাংশের বেশি হিসাব বৃদ্ধি পেয়েছে, এটা ভালো খরব। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র আরও জানান, মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ব্যাংক হিসাবে সঞ্চয়ও করেছেন।

মুক্তিযোদ্ধা মো. শামসুল হুদা বলেন, অন্যদের ব্যাংক হিসাব খুলতে গেলে এটা-সেটার সঙ্গে হাজার টাকাও লাগে। আর আমাদের মাত্র ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খুলতে পেরেছি। সেখানে প্রতি মাসে ভাতা পাচ্ছি। অনেকে স্বচ্ছল হওয়ায় ভাতার টাকা ব্যাংকে জমাও রাখছেন। এ জন্য সঞ্চয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুধু ভাতা নয়, কম সুদে ঋণও পাওয়া যাচ্ছে। আমার অনেক পরিচিত দুই লাখ টাকা করে ঋণও নিয়েছে। তাতে সুদের হারও কম। এভাবে সুযোগ পাওয়ায় অনেকেই বিভিন্ন ব্যাংকে হিসাব খুলছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাবের মধ্যে এক লাখ ৪৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধা সরকার থেকে ২৭৬ কোটি টাকা ভর্তূকি এবং ভাতা গ্রহণ করেছেন। এ ছাড়া সরকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার জন্য কম সুদে ২০০ ও ৫০০ কোটি টাকার যে পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করেছে সেখান থেকেও তারা ঋণ নিতে পারছেন। গত জুন পর্যন্ত ৫ হাজার ৩০৬ জন মুক্তিযোদ্ধা ২০৪ কোটি টাকার বেশি ঋণও গ্রহণ করেছেন। মুক্তিযোদ্ধাদের এই ব্যাংক হিসাব নম্বরে প্রবাসীরা রেমিট্যান্সও পাঠাচ্ছেন। জুন পর্যন্ত ৩৮৪ জন প্রবাসী চার কোটি টাকার বেশি রেমিট্যান্সও পাঠিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাব নম্বরে।

জানা যায়, বিশেষ সুবিধার আওতায় কৃষক, হতদরিদ্র, সামাজিক নিরাপত্তার সুবিধাভোগীদেরও সরকার বিভিন্ন সুযোগ দিয়েছে। এ ছাড়া গার্মেন্টসকর্মী, চামড়া শিল্পের কর্মীদের স্মল লাইফ ইন্সুরেন্স প্রোগ্রামের আওতায় ১০০ টাকার বিনিময়ে ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। জুন পর্যন্ত তাদের ব্যাংক হিসাবে জমার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে দুই কোটি ৫৩ লাখ টাকা। এ ছাড়া তারা প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা সঞ্চয়ও জমা করেছেন। আর ৯৪ হাজার ৫৩৫ অ্যাকউন্টধারী ঋণ নিয়েছেন প্রায় ৫৬০ কোটি টাকা। তাদের এ সব অ্যাকাউন্টে প্রবাসীরা ৫৩০ কোটি টাকা রেমিট্যান্সও পাঠিয়েছেন।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com