1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

জুয়াড়িদের শাস্তির আওতায় আনতে সময় লাগে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

  • Last Update: Saturday, September 17, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

জুয়াড়িদের ধরে শাস্তির আওতায় আসতে ছয় মাস থেকে এক বছর সময় লাগে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম।

শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্টস ফোরাম (সিএমজেএফ) ও বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) যৌথ আয়োজনে ‘বাংলাদেশের শেয়ারবাজার: বর্তমান ও ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম বলেন, অর্থনীতির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমরা যদি অন্য কোন দেশের সঙ্গে তুলনা করি, তখন প্রথমেই ওই দেশের সার্বিক অবস্থার দিকে তাকাতে হবে। তারপরও বিভিন্ন দেশেই খারাপ কিছু কোম্পানি তালিকাভুক্ত হয়, আবার তারা একটা সময় টিকে থাকতে না পেরে তালিকাচ্যুতও হয়।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের দেশে মার্কেটের সাইজ জিডিপির ১৬ থেকে ১৭ শতাংশ। এটা নিয়ে আমরা বিভিন্ন তুলনা করি। যদিও বাহিরের দেশগুলো কেবলমাত্র ইকুইটি মার্কেট দিয়ে জিডিপিতে অবদান বাড়ায়নি, আমরাও শিগগিরই ট্রেজারি বন্ড লেনদেন শুরু করতে যাচ্ছি, এটা শুরু হলেই আমাদের মার্কেট সাইজও ২৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাবে।

শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম বলেন, কমোডিটি এক্সচেঞ্জে কেবল বাংলাদেশি পণ্য না, বিদেশি পণ্য কেনাবেচা হবে। কৃষকের ধান উত্তোলনের আগেই এখানে কেনা বেচা হবে। কিন্তু এই সফটওয়ার প্রচন্ড ব্যয়বহুল। সাধারণ মানের একটি সফটওয়ার ১০০ থেকে দেড়শ কোটি টাকা। আর একটু ভালো সফটওয়্যার যদি কিনতে চাই তাহলে লাগবে সোয়া ৪০০ কোটি টাকা। আমরা এত বড় প্রকল্প নিযে কাজ করছি, শিগগিরই এগুলো শুরু হলে মার্কেটের সাইজ অনেক বাড়বে।

তিনি জানান, বিএসইসি শর্ট সেল নিয়ে কাজ করছে। আগে সিসিবিএল চালু হওয়ার পর আমাদের শর্ট সেল চালু করার চিন্তা রয়েছে। কেন না শর্ট সেলের জন্য ট্রেডিং ক্যাপাসিটির উন্নয়ন দরকার।

মিউচুয়াল ফান্ড সম্পর্কে তিনি জানান, আমাদের মিউচুয়াল ফান্ড বর্তমানে বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে। তারা ডিভিডেন্ডও দিতে শুরু করছে। না দিলে তার কারণ জানতে চাওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা যে রোড শোগুলো করেছি, এটা মূলত প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই যাচ্ছি। এটার সুফলও আমারা পেতে শুরু করছি। সামনেও কয়েকটি দেশে আমরা রোড শো করবো। মূলত রোড শোর মাধ্যমে যখন আমরা আমাদের পণ্যগুলো বিদেশে ব্রান্ডিং করি তখন তারা এখানে বিনিয়োগ করার ব্যপারে আগ্রহী হয়ে উঠে। রোড শোতে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নীতি নির্ধারকরা আমাদের সঙ্গে উপস্থিত থাকেন। তাদের সুন্দর উপস্থাপনের বিদেশিরা আগ্রহী হয়।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের ১৮টি বন্ধ কোম্পানি ইতোমধ্যে চালু হয়েছে। এই কোম্পানিগুলোর ব্যাংকের যে ঋণ ছিলো সেগুলো পরিশোধের একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এতে করে ব্যাংকগুলো লাভবান হয়েছে। এছাড়াও এনবিআরও লাভবান হবে কারণ এখান থেকে বড় একটা টেক্স পাওয়া যাবে। তাই এনবিআরের সহযোগিতাও আমাদের প্রয়োজন।

ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের (সিএমজেএফ) সভাপতি জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সভাপতি মো. ছায়েদুর রহমান।

আলোচনায় অংশ নেন শেয়ারবাজার স্থিতিশীল তহবিলের চেয়ারম্যান ও সাবেক মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী, ড. এম খায়রুল হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক (ইডি) ড. মো. এজাজুল ইসলাম, অর্থ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ, আইসিএবি, আইসিএমএবি, আইসিএসবির প্রতিনিধিরা।

এছাড়াও আয়োচনায় অংশ নেন শেয়ারবাজার বিশ্লেষখ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক আবু আহমেদ। তিনি বলেন, বহুজাতিক প্র‌তিষ্ঠান ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কত টাকা ট্যাক্স দেয় এটা সবাই জানে। কারণ তারা পুঁজিবাজারে তা‌লিকাভুক্ত। তাদের আর্থিক প্র‌তিবেদন প্রকাশ ক‌রতে হয়। কিন্তু ইউনিলিভার ও নেসলে বাংলাদেশে দাপটের সঙ্গে ব্যবসা করে যাচ্ছে। তারা কত টাকা ট্যাক্স দেয় তা কেউ জানে না। কারণ তারা তা‌লিকাভুক্ত নয়। ইউনিলিভারের সাবান লাক্স, নেসলের নুডলুস কিন‌ছি, তারা ব্যবসা করে নিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আমাদের মা‌লিকানা দিচ্ছে না। তারা কেন তা‌লিকাভুক্ত হচ্ছে না।

তি‌নি ব‌লেন, আমরা যখন বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের দিকে দে‌খি তখন টপ টেনে (শীর্ষ ১০) ইউনিলিভার ও নেসলে থা‌কে। তাহলে আমাদের এ‌খানে নেই কেন? ১৭ কো‌টি মানুষকে কি তারা মূর্খ মনে করে?

আবু আহমেদ বলেন, আমাদের বাজারে কয়টা ভালো কোম্পানি আছে। এখানে নেসলে, ইউনিলিভারের মতো কোম্পানি আসছে না। জাঙ্ক শেয়ার দিয়ে মূলত শেয়ারবাজার চালানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের বাজারে হতাশা এবং আশা, দুদিকই আছে। এই বাজারে ভালো কোম্পানি আনা দরকার হলেও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির সঙ্গে তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার ব‍্যবধান কমিয়ে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। এটা সরকার সঠিক পলিসি নেয়নি।

তিনি আরও বলেন, দেশে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো কর দেয় বেশি। এজন্য প্রণোদনা দিয়ে ভালো ভালো কোম্পানি তালিকাভুক্ত করতে হবে।

তিনি বলেন, ১০ শতাংশ গ্যাপ ছিল (তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির মধ্যে কর ব্যবধান), সেটা সাড়ে সাত শতাংশ করা হলো। আমরা যেখানে ১৫ শতাংশ গ্যাপ চেয়েছি, কিন্তু মাত্র সাড়ে সাত শতাংশ গ্যাপ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এনবিআর’র মোট ট্যাক্সের ৮০ শতাংশ আসে তালিকাভুক্ত কোম্পানি থেকে। সুতরাং এনবিআর’র প্রচেষ্টা থাকা উচিত বেশি কোম্পানি পুঁজিবাজারে আনা। কোম্পানি কখন লিস্টিংয়ে আসবে? যখন তাদের লাভ হবে।

আবু আহমেদ বলেন, বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে নেসলে আছে, ইউনিলিভার আছে। আমার এখানে নেই কেন? ১৭ কোটি মানুষ, এ দেশের মানুষকে অজ্ঞ, মূর্খ মনে করে তারা? পাবলিক ইন্টারেস্টে কি না করা যায়? মেটলাইফে লাইন ধরে মানুষ টাকা জমা দিচ্ছে। কিন্তু তারা লিস্টেট না। কেন? কেউ কি প্রশ্ন করেছেন।

তিনি বলেন, কতো গুলো সিক ইন্ডাস্ট্রি, জাঙ্ক ইন্ডাস্ট্রি দিয়ে শেয়ারবাজারকে চালানো হচ্ছে। আপনারা দেখেন ৩৫০টার মধ্যে কয়টা যোগ্য কোম্পানি। আমাদেরকে ফোকাস করতে হবে তাদেরকে (নেসলে, ইউনিলিভারের মতো কোম্পানি) আসতেই হবে। হয় ইনসেনটিভ দিয়ে, আমি মনে করি ইনসেনটিভ ভালো উপায়। ওরা অন্যখানে থাকলে এখানে থাকতে পারবেনা কেন?

তিনি আরও বলেন, আমরা তাদের সাবান ব্যবহার করি, পারফিউম ব্যবহার করি, নুডুল খাচ্ছি। বাহিরে তাদের ২০-৩০ শতাংশ শেয়ার শেয়ারবাজারে ছাড়তে হয়। আমাদের এখানে মাত্র ১০ শতাংশ ছাড়লেই হয়। তারা আমাদের দেশে ব্যবসা করে বিপুল পরিমাণ মুনাফা নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মাত ১০ শতাংশ মালিকানা বাংলাদেশকে দিতে চায় না।

আইপিওতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের ন‍্যায় বড় বিনিয়োগকারীদের কোটা সুবিধা দেওয়া দরকার বলে মনে করেন আবু আহমেদ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com