1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ঝুঁকিতে এজেন্ট ব্যাংকিং

  • Last Update: Monday, September 5, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

মূল ধারার ব্যাংকিং কার্যক্রমের পাশাপাশি সহজে এবং হাতের নাগালে ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দিতে দেশে ২০১৩ সালে এজেন্ট ব্যাংকিং শুরু হয়। একযুগে এর ব্যাপক প্রসার হয়েছে। ২৫টি ব্যাংকের ১৪ হাজারের বেশি এজেন্ট দেশব্যাপী ব্যাংকিং সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

এসব এজেন্টের আওতায় রয়েছে প্রায় এক কোটি ৬১ হাজার একাউন্ট। এতে একদিকে যেমন আর্থিক সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে, অন্যদিকে কর্মসংস্থান হয়েছে কয়েক হাজার মানুষের। তবে সময়ের বিবর্তনে ঝুঁকির মুখে পড়েছে এই খাত।

ছিনতাই, চুরি, ডাকাতিসহ নানা ঝুঁকিতে রয়েছেন এজেন্ট উদ্যোক্তারা। কখনো কখনো জীবন নাশের মতো পরিস্থিতিও তৈরি হচ্ছে।

এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সঙ্গে জড়িতরা জানান, ছিনতাই, চুরি, ডাকাতির পাশাপাশি ব্যাংকগুলোর নতুন শাখা খোলার সিদ্ধান্ত এজেন্টদের নতুন করে ঝুঁকির মুখে ফেলছে।

তারা বলছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালাকে উপেক্ষা করে গ্রামাঞ্চলে যেসব এলাকায় এজেন্ট ব্যাংকিং ভালো হচ্ছে সেসব এলাকায় ব্যাংকের শাখা, উপ-শাখা খুলতে তৎপরতা শুরু করেছে কিছু ব্যাংক। এতে আর্থিক ক্ষতিসহ নানা ক্ষতির আশঙ্কা করছেন তারা। আশু ক্ষতি থেকে বাঁচতে এজেন্টরা বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে লিখিত অভিযোগও করেছেন।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক বিভিন্ন ব্যাংকের প্রায় ১১ হাজার শাখার অনুমোদন দিয়েছে। এর ৫২ শতাংশ শহর এলাকায় এবং ৪৮ শতাংশ গ্রামীণ এলাকায়।

সূত্র জানায়, এ পর্যন্ত ৩০টি ব্যাংককে এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এই ব্যাংকিং পরিচালনার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক ‘গাইডলাইনস ফর এজেন্ট ব্যাংকিং অপারেশন ইন বাংলাদেশ’ নামে একটি গাইডলাইন তৈরি করে। এই গাইডলাইনে এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনার বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এ সব নির্দেশনার একটি হচ্ছে, লেনদেনে করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশিত সময় মতো। তবে ব্যাংক যদি মনে করে কোনো রিস্ক নেই তাহলে সময় কম বা বেশি হতে পারে। ক্যাশ জমা ও উত্তোলন থেকে শুরু করে এজেন্টরা কি কাজ করতে পারবে সেটি স্পষ্ট করা হয়েছে।

এজেন্টরা কি করতে পারবে না সেটি উল্লেখ করে গাইডলাইনে বলা হয়েছে- কোনো ইউনিট ও মাস্টার এজেন্ট একাধিক ব্যাংকের এজেন্ট হতে পারবে না। বৈদশিক মুদ্রাও লেনদেন করতে পারবে না। ব্যাংকগুলোকে অবশ্যই গ্রামাঞ্চলে তিনটি আউটলেটের বিপরীতে শহরে একটা আউটলেটের অনুপাত মেইনটেইন করতে হবে।

সূত্র জানায়, ইউনিট (ব্যক্তি) ও মাস্টার (ব্যবসা প্রতিষ্ঠান) এজেন্টের মাধ্যমে সারাদেশে এই এজেন্ট ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে। এসব এজেন্টের কাছে যে কেউ তাৎক্ষণিকভাবে যেমন আমানত রাখতে পারছেন তেমনি ঋণও নিতে পারছেন। শুধু তাই নয়, প্রবাসীরাও দেশে স্বজনের কাছে রেমিট্যান্স পাঠতে পারছেন।

বর্তমানে এজেন্ট ব্যাংকিং এতোটাই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে, ব্যাংকিং সময়ের পরও এজেন্টদের লেনদেন করতে হচ্ছে। ফলে ব্যাংকিং সময়ের পরও অনেক টাকা জমা হচ্ছে আউটলেটে। এই টাকা জমা রাখতে হচ্ছে এজেন্টদের নিজ দায়িত্বেই। আর তাতেই ঝুঁকি বাড়ছে। চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির মতো ঘটনা ঘটছে।

নোয়াখালীর চৌমুহনী পৌরসভা এলাকা থেকে সম্প্রতি ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের এক কর্মীর কাছ থেকে ১৯ লাখ টাকা ছিনতাই হয়েছে। এজেন্ট থানার শরণাপন্ন হলে ৩৩ দিন পর পুলিশ চার ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করে। এভাবেই দেশের বিভিন্ন স্থানে অহরহ ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা।

মোহম্মদপুরের বসিলার ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট লাইভ ট্রেডার্সের মহিউদ্দিন হাওলাদার বলেন, বাসাভাড়া, কর্মচারীদের বেতন সব কিছুই আমাদের দিতে হচ্ছে। শর্ত মেনেই এজেন্ট হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছি। কমিশনই আমাদের আয়ের উৎস। এক লাখে ২০০ টাকা কমিশন পাই। লেনদেন বেশি হলে লাভও বেশি হয়। কিন্তু অনেককে লাভে না এলেও ঝুঁকিতেই থাকতে হচ্ছে। নতুন যারা, তাদের লস করেই এ ব্যবসা করতে হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সমস্যা হচ্ছে ব্যাংকের লেনদেনের পর গ্রাহকের জমা করা টাকা নিয়ে। আমাদের রিস্কে তা রেখে দিতে হয়। এ সুযোগ নিয়ে অনেক জায়গায় ছিনতাই, চুরি, ডাকাতি হচ্ছে। তখনই ঝামেলা হচ্ছে। তাই অনেকে ঝুঁকি মোকাবিলা করতে না পেরে এজেন্ট ব্যবসা ছেড়ে দিচ্ছে, বর্তমানে এ ব্যবসা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে।

জানা গেছে, এজেন্ট ব্যাংকিং একাউন্টে বর্তমানে ২৮ হাজার কোটি টাকার বেশি আমানত রয়েছে। আর এজেন্ট ব্যাংকিং চালু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় লাখ কোটি টাকা। ঋণ দেওয়ার পরিমাণও প্রায় আট হাজার কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন বলছে, এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে একাউন্টধারীর সংখ্যা এক কোটি ৬০ লাখের বেশি দাঁড়িয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ৯০ শতাংশ পাঁচটি ব্যাংকের হিসাব নম্বর। তাতে ব্যাংক এশিয়ার হচ্ছে ৫৩ লাখের বেশি বা ৩৩ শতাংশ, ডাচ বাংলা ব্যাংকের প্রায় ৩১ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংকের ১৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ, আল আরাফা ইসলামী ব্যাংকের ৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ ও অগ্রণী ব্যাংকের ৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

এসব হিসাব নম্বরে আমানত জমা হয়েছে ২৮ হাজার ৮৫ কোটি টাকা। যা এক বছর আগে ছিল ২০ হাজার ৩৭৮ কোটি টাকা। এসব ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আমানত হচ্ছে ইসলামী ব্যাংকের ৩৯ শতাংশের বেশি। এ ছাড়া ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১৫ শতাংশ, ব্যাংক এশিয়ার ১৩ দশমিক ৫১ শতাংশ, আল আলাফা ব্যাংকের ১২ শতাংশ ও অগ্রণী ব্যাংকের ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ আমানত জমা হয়েছে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে।

শুধু তাই নয়, ঋণেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। ৯৭ দশমিক ৪১ শতাংশ ঋণ দিয়েছে পাঁচটি ব্যাংক। জুন পর্যন্ত ঋণ দেয়া হয়েছে ৭ হাজার ৬৪৫ কোটি টাকা। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩ হাজার ১৮৬ কোটি টাকা।

এরমধ্যে সর্বোচ্চ ঋণ দিয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। ঋণের পরিমান ৬২ দশমিক শতাংশ। এ ছাড়া সিটি ব্যাংক ১২ দশমিক ৭৫ শতাংশ, ব্যাংক এশিয়া ১২ দশমিক ৫০, ডাচ বাংলা ব্যাংকের ৫ দশমিক ৯১ ও আল আলাফা ব্যাংক ৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ ঋণ দিয়েছে। এ ছাড়া এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে রেমিট্যান্সও পাঠাচ্ছেন প্রবাসীরা। গত জুন পর্যন্ত প্রবাসীরা ৯৭ হাজার কোটি টাকার বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৬৮ হাজার কোটি টাকা। করোনাকালেও রেমিটেন্স এসেছে ২৯ হাজার কোটি টাকার বেশি। ৯৭ শতাংশ রেমিট্যান্স এসেছে পাঁচটি ব্যাংকের মাধ্যমে।

এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্যোক্তারা ব্যবসা শুরু করতে ভল্ট নির্মাণ, আসবাবপত্র, ল্যাপটপ কেনার জন্য লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। কিন্তু ব্যাংকগুলো এখন এজেন্টদের বাদ দিয়ে উপ-শাখা বা শাখা স্থাপন করছে। তাদের আউটলেট অন্যত্র সরিয়ে নিতে বলছে। এতে বিপাকে পড়েছেন এজেন্টরা। সম্প্রতি প্রতিকার চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে লিখিত দাবি জানিয়েছেন তারা।

ব্র্যাক ব্যাংকের ধামরাই বাজারের এজেন্ট জিন্নাত বলেন, প্রায় ৩০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে ঝুঁকি ও ভোগান্তি সহ্য করে এ পর্যায়ে এসেছি। এলাকায় ভালো পরিচিতি লাভ করেছি। কিন্তু ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অফিস থেকে গত ১ মার্চ চিঠি দিয়ে আউটলেট ধামরাই থেকে অন্য স্থানে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দিয়েছে।

তিনি বলেন, এতে আমি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হব। এমনতাবস্থায়, বাধ্য হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছে প্রতিকার চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। কারণ এটা এজেন্ট ব্যাংকিং নীতিমালা ও নৈতিকতা বিরোধী।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তা থাকলে সব সময় লেনদেনে সমস্যা নেই। তবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাংক সময় ছাড়া লেনদেন করা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। অনেক এলাকায় ছিনতাইকারীরা এজেন্টদের টাকা লুট করে নিচ্ছে।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান সেলিম আর এফ হোসেন বলেন, বর্তমানে এজেন্টদের লেনদেনে কোনো ঝুঁকি নেই। কারণ প্রতি আউটলেটে ভল্ট রয়েছে। দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী খুবই সজাগ। তা ছাড়া গ্রাহকের বীমা করা আছে। কোনো টাকা ছিনতাই হলে তারা বীমার আওতায় ক্ষতিপূরণ পাবে।

তিনি বলেন, ব্যবসা বাড়লে সেখানে উপ-শাখা বা শাখা করা হবে এটাই স্বাভাবিক। এতে গ্রাহকরা আরও বেশি ও দ্রুত সেবা পাবে।

ব্যাংকিং সময় ছাড়া লেনদেন করতে এজেন্টরা ঝুঁকিতে পড়ছে। বিকল্প কোনো পথ বের করা হবে কিনা— এমন প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, এটা আমার আগে জানা ছিল না। তাই কিছু বলতে পারছি না। তবে সংশ্লিষ্ট পরিচালকের সঙ্গে কথা বলে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের নিরাপত্তার জন্য কিছু করার সুযোগ থাকলে তা করা হবে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com