1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপিরাও পেল বড় ছাড়

  • Last Update: Sunday, September 4, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ব্যাংকের মতো আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি গ্রাহকদের ঋণ নিয়মিত করার শর্ত শিথিল করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাশাপাশি এসব ঋণ পুনঃতফসিলের ক্ষমতা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেরাই নিতে পারবে। ফলে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদই নিয়ম মেনে যে কোনো ঋণ নিয়মিত করার অনুমোদন দিতে পারবে। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কোন অনুমোদন নিতে হবে না। তবে জালিয়াতির ঋণ পুনঃতফসিল করা যাবে না।

রোববার (৪ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ এ সংক্রান্ত নীতিমালা জারি করেছে। এতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ঋণ পুনঃতফসিল ও পুনর্গঠনের এসব সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

নতুন নীতিমালা অনুযায়ী, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের যে কোন ঋণ চারবার পর্যন্ত পুনঃতফসিল করা যাবে। ৬ মাস ঋণ পরিশোধে বিরতি দেওয়া যাবে। আগে তিনবার ঋণ পুনঃতফসিল করা যেত, ঋণ পরিশোধে কোন বিরতি ছিল না।

এতে বলা হয়েছে, প্রথমবার পুনঃতফসিলে মোট বকেয়ার ৪ শতাংশ অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির কমপক্ষে ৭ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা জমা দিতে হবে। আগে মোট বকেয়ার ১০ শতাংশ বা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির ১৫ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা নগদ জমা দিতে হতো। ঋণের নতুন মেয়াদ হবে ৬ বছর।

দ্বিতীয়বার পুনঃতফসিলে মোট বকেয়ার ৫ শতাংশ অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির কমপক্ষে ৮ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা জমা দিতে হবে। আগে মোট বকেয়ার ২০ শতাংশ বা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির ৩০ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা নগদ জমা দিতে হতো। ঋণের নতুন মেয়াদ হবে ৫ বছর।

তৃতীয়বার পুনঃতফসিলে মোট বকেয়ার ৬ শতাংশ অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির কমপক্ষে ৯ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা জমা দিতে হবে। আগে মোট বকেয়ার ৩০ শতাংশ বা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির ৫০ শতাংশের মধ্যে যা কম, তা নগদ জমা দিতে হতো। ঋণের মেয়াদ হবে ৫ বছর।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, নগদ আদায় ছাড়া ঋণ পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠন করা যাবে না। গ্রাহকের অস্তিত্ব, ঋণের যথাযথ ব্যবহার ও জামানত যাচাই করতে হবে। পুনঃতফসিল করতে তহবিল খরচ অবশ্যই আদায় করতে হবে, এরপর সুদ মওকুফ করা যাবে। জালিয়াতি হয়েছে, এমন কোন ঋণ পুনঃতফসিল করা যাবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, নীতিমালা মেনে ঋণ পুনঃতফসিল করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে নীতিমালার লঙ্ঘন করে ঋণ পুনঃতফসিলের প্রমাণ পাওয়া গেলে পরিদর্শকেরা পুনঃতফসিল সুবিধা বাতিল করতে পারবে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে দেশে আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে ৩৫ টি। এসব আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে খেলাপি ঋণ বাড়ছে। অনেক গ্রাহককে খুঁজেও পাওয়া যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে এই সিদ্ধান্ত দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত জুন শেষে দেশে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ স্থিতি ছিল ৬৯ হাজার ৩৩২ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৫ হাজার ৯৩৬ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ২২ দশমিক ৯৯ শতাংশ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com