1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

১৫ কোটি টাকা পেলেন তিন সিকিউরিটিজের বিনিয়োগকারীরা

  • Last Update: Thursday, September 1, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

গ্রাহকদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্রোকারেজ হাউজ তামহা, বানকো ও ক্রেস্ট সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকরা ১৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ফেরত পেয়েছেন। এই টাকা পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৩৩ জন বিনিয়োগকারী।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

সিকিউরিটিজ হাউজগুলোর বিরেুদ্ধে প্রায় ১১ হাজরের বেশি বিনিয়োগকারীর প্রায় ১৭৭ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, যেসব বিনিয়োগকারী গত ১৫ মের মধ্যে ডিএসইতে অভিযোগ দাখিল করেছেন তাদের নিজ নিজ বিও হিসাবে উল্লেখিত ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে আনুপাতিক হারে প্রাপ্য অর্থ (যাচাই বাছাই পূর্বক) প্রদানের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) পর্যন্ত ৫ হাজার ৩৩৩ জন বিনিয়োগকারীকে ১৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকা পাঠানো হয়েছে।

এর আগে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) তিন ব্রোকারেজ হাউসের ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের অর্থ ও শেয়ার ফেরতের জন্য চলতি বছরের ১৫ মের মধ্যে আবেদন করতে বলে।

ডিএসইর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) মো. সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, আমরা কিছু সম্পদ বিক্রি করেছি এবং তিনটি ব্রোকারেজ ডিএসইতে লভ্যাংশ জমা দিয়েছে। তহবিল থেকে, কিছু বিনিয়োগকারীকে তাদের দাবিতে গড়ে ১৫ শতাংশ অর্থ প্রদান করা হয়েছে। আরও কয়েকটি পেমেন্ট প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে কমিশন এ ব্যাপারে কঠোর হয়েছে। এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে বিএসইসি তামহা সিকিউরিটিজের পরিচালকদের কেলেঙ্কারি, আক্রান্ত ব্রোকারেজ ফার্মের সমস্ত সম্পদ বাতিল করতে এবং বিনিয়োগকারীদের আত্মসাৎকৃত অর্থ ফেরত দিতে ডিএসইকে নির্দেশ দেয়। একই সঙ্গে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রতারিত বিনিয়োগকারীদের দাবি নিস্পত্তির আহ্বান জানায়।

চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি তামহা সিকিউরিটিজের বিওধারী বিনিয়োগকারীরা এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, অভিনব কায়দায় প্রতারণা করে দুই শতাধিক বিনিয়োগকারীর ৬৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া এই সিকিউরিটিজের মালিক ডুপ্লিকেট সফটওয়্যার ব্যবহার করে বিনিয়োগকারীদের সব শেয়ার বিক্রি করে দেয় বলে অভিযোগ করেন তারা। বিএসইসি ওই সিকিউরিটিজের শেয়ার লেনদেন স্থগিত করে দেয়ার পর সিডিবিএলে যোগাযোগ করে বিনিয়োগকারীরা জানতে পারেন তাদের হিসাবে কোনো শেয়ার নেই।

তামহা কর্তৃপক্ষ দুই শতাধিক বিনিয়োগকারীর মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করে ডুপ্লিকেট সফটওয়্যার ব্যবহার করে শেয়ার ক্রয়-বিক্রয়ের তথ্য বিনিয়োগকারীদের ফোনে এসএমএস ও মেইল পাঠাতো। এ কারণে তারা জালিয়াতি বুঝতে পারেনি। হাউজটি ১৩৯ কোটি টাকা ৭০ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে বলে বিএসইসির এক পরিদর্শন প্রতিবেদনে ওঠে আসে। অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে গত ২৮ নভেম্বর ব্রোকারেজ হাউসটির শেয়ার কেনাবেচার কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় ডিএসই।

এদিকে অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে গত বছর বানকো সিকিউরিটিজের কার্যক্রমও বন্ধ করে দেয়া হয়। বিএসইসির তদন্ত অনুযায়ী, এ ব্রোকারেজ হাউসের মালিকপক্ষ গ্রাহকদের ৬৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে। আর ২০২০ সালের জুনে ডিএসইর এক তদন্তে উঠে আসে ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের মালিকপক্ষ গ্রাহকের ৮০ কোটি টাকার বেশি আত্মসাত করেছে। অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির এমডি শহিদ উল্লাহ ও তার স্ত্রী নিপা সুলতানাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com