1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ কমছে কেন?

  • Last Update: Sunday, August 21, 2022

রাসেল মাহমুদ

দেশের শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ আনতে একাধিক দেশে রোড শো করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। সংস্থাটি বরাবরই বলেছে, রোড শো দেশের শেয়ারবাজার সম্পর্কে বিদেশিদের কাছে ইতিবাচক বার্তা দেবে। এতে বড় বিনিয়োগ আসবে। তবে বাস্তবে এর বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। গত সাত বছরে দেশের শেয়ারবাজার থেকে উল্লেখযোগ্য হারে বিদেশি বিনিয়োগ কমেছে। চলতি বছরের জুন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মোট ইকুইটি বাজার মূলধনে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের অবদান ৩ দশমিক ৯ শতাংশে নেমেছে। ২০১৯ সালেও যা ছিলো ৬ দশমিক ৮ শতাংশ।

আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড আগস্ট মাসে যে ব্যবসায়িক পর্যালোচনা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সেখানে এ তথ্য উঠে এসেছে।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী ডিএসইতে বর্তমানে যে বিদেশি বিনিয়োগ রয়েছে তা গত সাত বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশের প্রিমিয়ার শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের নিট বিনিয়োগ ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সর্বকালের সর্বোচ্চ ছিলো। টাকার পরিমানে যা ২ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা।

এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, এতো চেষ্টার পরও কেন শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ কমছে। এর উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছে বাণিজ্য বার্তা।

ক্রমাগত বিদেশি বিনিয়োগ কমায় হতাশ বাজার সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে শেয়ারবাজারে যে অস্থিরতা বিরাজ করছে বিদেশি বিনিয়োগ কমার বড় একটি কারণ এটি। এছাড়া ঘন ঘন নীতি পরিবর্তন এবং মুদ্রা বাজারে অস্থিরতার কারণে অনেক বিদেশি বিনিয়োগকারী উৎসাহ হারিয়েছেন।

পাশাপাশি আর্থিক খাতের অস্থিরতা বিদেশিদের শেয়ার বিক্রির বড় কারণ হতে পারে বলেও মনে করছেন কেউ কেউ।

জানা গেছে, করোনা মহামারী, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার ক্রমাগত অবমূল্যায়ন, বহিরাগত ঋণ নিয়ে উদ্বেগ এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী সরবরাহে বিঘ্নসহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে লড়াই করছে। এ অবস্থায় বিদেশি বিনিয়োগকারীরা চাচ্ছে আগে মূলধন সুরক্ষিত হোক।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, শেয়ারবাজার থেকে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা ২০২২ সালে এক হাজার ৭৮০ কোটি টাকার বিনিয়োগ তুলে নিয়েছে।

একজন শেয়ারবাজার বিশ্লেষক বলেন, শেয়ারবাজারে সুশাসনের কিছুটা অভাব রয়েছে। পাশাপাশি ব্যাংক কেলেঙ্কারি পোর্টফোলিও বিনিয়োগকে নিরুৎসাহিত করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন স্টক ব্রোকার বলেন, আইপিও প্রক্রিয়া এবং সামগ্রিক বাজারের কার্যক্রমে স্বচ্ছতার অভাবের কারণে ভালো মৌলিক সংস্থাগুলো স্টক মার্কেটে তালিকাভুক্ত হতে চায় না। দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত খুব কম কোম্পানি রয়েছে যেখানে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী।

শেয়ারবাজার বিশ্লেষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর বেশির ভাগই সুশাসনের অভাবে ভুগছে। এই কোম্পানির স্পন্সর ডিরেক্টররা প্রায়ই বেনামে শেয়ার লেনদেন করে, সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করে। তারা মিথ্যা আর্থিক প্রতিবেদন তৈরি করে। সেক্ষেত্রে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করবে না। ভালো কোম্পানিগুলোকে আকৃষ্ট করা, তালিকাভুক্তির প্রক্রিয়া সহজ করা এবং সরকারি ও বহুজাতিক কোম্পানিগুলোকে নিয়ে আসা বাজারের বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।

আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড প্রকাশিত প্রতিবেদনটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, তালিকাভুক্ত কোম্পানির মধ্যে চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত ব্র্যাক ব্যাংকে সর্বোচ্চ ৩৬ দশমিক ১ শতাংশ বিদেশি শেয়ার ছিলো।

এরপরেই ছিলো বেক্সিমকো ফার্মায়। এই কোম্পানিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিলো ২৮ দশমিক ৬ শতাংশ।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজে বিদেশি মালিকানায রয়েছে ২৫ দশমিক ৭ শতাংশ।

রেনাটা লিমিটেডের ২২ দশমিক ৯ শতাংশ, ইসলামী ব্যাংকের ২০ দশমিক ৬ শতাংশ, ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের (ডিবিএইচ) ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ, বিএসআরএম লিমিটেডের ১৭ দশমিজ ৫ শতাংশ, স্কয়ার ফার্মার ১৩ দশমিক ৯ শতাংশ, রিং শাইন টেক্সটাইলের ১০ দশমিক ২ শতাংশ এবং শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ৯ দশমিক ৪ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগ রয়েছে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com