1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

সবজি স্বস্তি দিলেও মাছ–ডিমের দাম চড়া

  • Last Update: Friday, July 22, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদুল আজহার সপ্তাহ দুই পার হয়ে গেলেও মাংসের বাজারে ক্রেতার আনাগোনা কম। ক্রেতার ভিড় বেড়েছে শাক-সবজির বাজারে। তবে সবজির বাজার ক্রেতা সাধারণের এই সপ্তাহে স্বস্তিই দিয়েছে। তবে অস্বস্তি বেড়েছে মাছে। ঈদের আগে থেকেই রাজধানীর বাজারগুলোতে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের মাছ। সেই ধারাবাহিকতা ছিলো শুক্রবারও। সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকলেও এদিন বাড়তি দামে বিক্রি হয়েছে সব ধরনের মাছ। আর ডিমে পূর্বের গরম অব্যাহত ছিলো গতকালও। কাঁচা মরিচের ঝালও এদিন বেড়েছে।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত সপ্তাহের তুলনায় শুক্রবার বাজারে কমেছে সবজির দাম। ক্ষেত্র বিশেষ ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ কম দামে বিক্রি হয়েছে সব ধরনের সবজি। তবে ব্যতিক্রম কাঁচা মরিচ। ঈদের আগে থেকে বাড়তি দামে বিক্রি হওয়া কাঁচা মরিচ এখনও আগের অবস্থানই ধরে রেখেছে।

বিক্রেতারা বলছেন, ঈদের পর বাজারে সবজির সরবরাহ বেড়েছে। যার ফলে এ সপ্তাহে সবজির বাজার ৪০-৮০ টাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে। বাজারে আসা ক্রেতারাও সবজি দাম নিয়ে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কয়েকটি ঘুরে দেখে গেছে, কাঁচা মরিচ ১৬০ টাকা, ৩ ধরনের বেগুন ৪০-৬০ টাকা, ধনিয়া পাতা ৮০ টাকা, করলা ৫০-৬০ টাকা, কাঁকরোল ৪০ টাকা, টমেটো ৮০-৯০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, শসা ৬০ টাকা, গাজর ১০০ টাকা, কচুর মুখি ৫০ টাকা, কচুর লতি ৫০ টাকা, মুলা ৫০ টাকা, ধুন্দল ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৩০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, পেঁপে ২৫ টাকা এবং ঢেঁড়স ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

অন্যদিকে লাউ ৫০ টাকা, বাঁধাকপি ৫০ টাকা ও চাল কুমড়া ৩০ টাকা পিস হিসাবে এবং মিষ্টি কুমড়ার ফালি ৩০ টাকা, কাঁচা কলা ৩০ টাকা ও লেবু ৩০ টাকা হালি বিক্রি হয়েছে।

রায়ের বাজারের সবজি বিক্রেতা ইমন হোসেন বলেন, এ সপ্তাহে বাজারের সবজির সরবরাহ স্বাভাবিক আছে, তাই দাম কম। বৃষ্টি হলেই সবজি সরবরাহে ব্যাঘাত ঘটবে। তখন দাম আবার বেড়ে যেতে পারে।

সবজি ক্রেতা মফিজুর রহমান বলেন, গত সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহের বাজার অনেকটা স্বস্তি দায়ক। আমি তো ভেবেছিলাম গত সপ্তাহের মতোই ১২০ থেকে ৮০ টাকা কেজি হবে সবজির। কিন্তু এখন দেখছি ৫০-৬০ টাকার মধ্যেই সব পেয়ে যাচ্ছি। জানি না এই বাজার দর কত দিন থাকবে।

এদিকে সবজির বাজারে স্বস্তি মিললেও ভুগিয়েছে মাছের দাম। অন্যদিকে মাংসের দোকানে ক্রেতা কম থাকলেও আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে গরু ও খাসির মাংস। পাশাপাশি বেড়েছে ডিমের দামও। মাছ ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঈদের পর মাছের চাহিদা বেড়েছে। তাই দামও কিছুটা বেশি। অন্যদিকে ক্রেতাদের অভিযোগ, ভালো মাছের পাশাপাশি কম দামের মাছগুলোর এখন বেশি দামে কিনতে হচ্ছে।
রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, চাষের বড় কই মাছ বাজারে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ২৪০ টাকা, পাঙ্গাশ প্রতি কেজি ১৮০ টাকা, তেলাপিয়া বড় সাইজের ২২০ টাকা কেজি, রুই ৩২০ থেকে ৩৫০ টাকা, বড় কাতল ৪০০ টাকা, পাবদা আকার ভেদে ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকা, চিংড়ি মাঝারি সাইজের প্রতি কেজি ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা, টেংরা প্রতি কেজি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা, শোল ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, শিং ৫৫০ থেকে ৬৫০ টাকা, আইড় ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে। সেই সঙ্গে ছোট সাইজের ইলিশ ৮৫০ টাকা কেজিতে আর মাঝারি সাইজের ইলিশ ১০০০ থেকে ১২০০ এবং দেড় কেজি সাইজের ইলিশ প্রতি কেজি ১৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে গরু, খাসির মাংসের দোকানগুলোতে ক্রেতার উপস্থিতি কম দেখা গেছে। বিক্রেতারা বলছেন, ঈদের পর থেকে এখনও সেভাবে মাংস বিক্রি শুরু হয়নি। ক্রেতারা এখন কম মাংস কিনছেন। আজ বাজারে গরুর মাংস প্রতি কেজি ৭০০ টাকা আর খাসির মাংস ৯০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে সব ধরনের মুরগি ও ডিমের দাম বেড়েছে। বাজারে বয়লার মুরগি প্রতি কেজি ১৬০ টাকা, সোনালি মুরগি ২৭০ টাকা, লেয়ার মুরগি ২৫০ থেকে ২৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি লাল ডিম ১২০ টাকা ডজন, হাঁসের ডিম ১৮০ এবং দেশি ডিম ১৮০ টাকা ডজন বিক্রি হচ্ছে।

সবজিতে স্বস্তি মিললেও নিত্যপণ্যের বাজারে নেই সুখবর। উল্টো দাম বেড়েছে বেশ কয়েকটি পণ্যের। আমদানি করা হলুদের দাম কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা। আমদানি করা আদার দামও কেজিতে ২০ টাকা বেড়েছে। দারুচিনির দাম বেড়েছে কেজিতে ৪০ টাকার মতো। লবঙ্গের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫০ টাকার মতো। একইভাবে গুঁড়ো দুধের দাম বেড়েছে কেজিতে ৩০ টাকার মতো। নতুন করে দাম বাড়ার তালিকায় আরও রয়েছে চিনি, আটা ও ময়দাসহ বেশ কিছু পণ্য।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৮২ টাকা। যা গত সপ্তাহের তুলনায় অন্তত দুই টাকা বেশি। গত সপ্তাহে ৭৮ টাকায় ১ কেজি চিনি পাওয়া গেছে। এদিকে গত সপ্তাহে যে হলুদ ২২০ টাকায় পাওয়া যেত, এই সপ্তাহে সেই হলুদ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা কেজি দরে। ১০০ টাকা কেজির আদা এই সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে ৯৫০ টাকা কেজি যে লবঙ্গ পাওয়া যেতো, একই সপ্তাহে সেই একই লবঙ্গ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার টাকায়। একইভাবে ৪৬০ টাকা কেজি দরের দারুচিনি বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে খোলা আটা ৪২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করলেও এই সপ্তাহে সেই একই আটা ৪৫ টাকা কেজি বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া ৫৪ টাকা কেজি দরের প্যাকেট আটা এই সপ্তাহে ৫৫ টাকা কেজি করে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারের ভালো ময়দা বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে ৫৫ টাকা কেজি দরে ময়দা পাওয়া গেছে, এই সপ্তাহে ৫৮ টাকার নিচে কোনও ময়দা নেই। মার্কস গুঁড়ো দুধ বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে এই একই পণ্য বিক্রি হতো ৬৭০ টাকা কেজিতে।

বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার দেশের বাজারে সয়াবিন তেলের দাম কমানোর ঘোষণা দেওয়ার পর খুচরা পর্যায়ে দাম কিছুটা কমেছে। তবে সরকার যে হারে কমানোর কথা বলেছে, সে হারে দাম কমেনি। খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে এই সয়াবিন তেলের দাম ছিল ১৮০ টাকা লিটার। কোথাও কোথাও ১৬৬ টাকা লিটার পাওয়া যাচ্ছে সয়াবিন তেল। এক লিটার বোতলজাত তেল বিক্রি হচ্ছে ১৮৫ টাকা দরে। গত সপ্তাহে এই সয়াবিনের দাম রাখা হয় ১৯৫ টাকা। আর পাঁচ লিটার সয়াবিন তেলের দাম কমে ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com