1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

শর্ত পূরণ না করেই বীমার সিইও মনিরুল আলম

  • Last Update: Wednesday, July 13, 2022

রাসেল মাহমুদ

বিধি অনুসারে, বীমা কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে নিয়োগ পেতে একই ধরনের কোনো কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার ঠিক পরের পদে কমপক্ষে তিন বছরের কর্ম অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সেই সাথে যে শ্রেণির বীমার জন্য মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগের প্রস্তাব করা হবে, অনুরূপ শ্রেণির বীমা ব্যবসায় কমপক্ষে ১৫ বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কিন্তু এই বিধিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অভিজ্ঞতার সনদে ‘মিথ্যা’ তথ্য দিয়ে ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সে সিইও পদে যোগ দেন এম এম মনিরুল আলম। এরপর ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি আরও তিন বছরের জন্য তার নিয়োগ নবায়ন করা হয়। বর্তমানে তিনি বেঙ্গল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের (সাবেক এনআরবি গ্লোবাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও’র দায়িত্ব পালন করছেন।

বীমা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ প্রবিধানমালার শর্ত পূরণ ছাড়াই কোনো ব্যক্তিকে এ পদে নিয়োগ দেওয়া হলে তা হবে অবৈধ। প্রথমবারের নিয়োগ অবৈধ হলে তার পরের সব নিয়োগই অবৈধ বলে গণ্য হবে। এক্ষেত্রে তার সব নিয়োগ বাতিল হবে এবং ফেরত দিতে হবে বেতন-ভাতা বাবদ নেওয়া সব টাকা। সে হিসেবে গত সাড়ে ৭ বছর ধরে একাধিক কোম্পানিতে সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করা মনিরুল আলমের নিয়োগ বৈধ নয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রের তথ্য অনুসারে, ১৯৯১ সালে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ঊর্ধ্বতন নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে বীমায় কর্মজীবন শুরু করেন মনিরুল আলম। এরপর ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত তিনি ওই কোম্পানিটির আরও দুটি পদ- জেএভিপি ও এভিপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ১৯৯৯ সালের ১ নভেম্বর যোগ দেন প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সে।

মনিরুল আলম প্রগতি লাইফে কাজ করেন ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বা ১৫ বছর ১ মাস ৩০ দিন। এ সময়ে তিনি বীমা কোম্পানিটির ভিপি, এসভিপি, জেইভিপি, সহকারী ব্যবস্থাপনা পরিচালক, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) কাছে দাখিল করা জীবনবৃত্তান্ত অনুসারে, মনিরুল আলম প্রগতি লাইফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হন ২০১২ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। আর অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পান ২০১৩ সালের ২৪ নভেম্বর। এ পদে তিনি ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। সে হিসেবে তিনি প্রগতি লাইফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন ১ বছর ৯ মাস ২২ দিন এবং অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন ১ বছর ১ মাস ৭ দিন। অর্থাৎ উভয় পদকে বীমা কোম্পানিটির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদ ধরা হলেও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার পরের পদে তার কর্মঅভিজ্ঞতা দাঁড়ায় ২ বছর ১০ মাস ২৯ দিন, যা দ্বারা মুখ্য নির্বাহী নিয়োগ প্রবিধানমালার শর্ত পূরণ হয় না।

তবে প্রগতি লাইফ থেকে ইস্যু করা একটি প্রত্যয়নপত্র অনুসারে, মনিরুল আলমের দেওয়া ওই তথ্যও মিথ্যা। কোম্পানিটির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা জালালুল আজিম স্বাক্ষরিত ওই প্রত্যয়নপত্র আইডিআরএ-তে দাখিল করেছেন মনিরুল আলম নিজেই। যদিও প্রত্যয়নপত্রটি কবে ইস্যু করা হয়েছে তার কোনো তারিখ উল্লেখ নেই। তবে এর বক্তব্য অনুসারে, তিনি বীমা কোম্পানিটিতে কর্মরত অবস্থায়ই এটি ইস্যু করা হয়

প্রত্যয়নপত্রটির তথ্য অনুসারে, মনিরুল আলম প্রগতি লাইফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিযুক্ত হন ২০১৩ সালের ২০ সেপ্টেম্বর এবং অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হন ২৫ নভেম্বর ২০১৩ সালে। সে হিসেবে গার্ডিয়ান লাইফে যোগদানের আগ পর্যন্ত প্রগতি লাইফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে তার কর্মঅভিজ্ঞতা ১ বছর ৩ মাস ১১ দিন। অর্থাৎ মুখ্য নির্বাহী নিয়োগ প্রবিধানমালার শর্ত পূরণ করেননি এম এম মনিরুল আলম।

নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, পূর্বের প্রতিষ্ঠান প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স থেকে ছাড়পত্র না নিয়েই গার্ডিয়ান লাইফে যোগ দেন মনিরুল আলম। বিভাগীয় আর্থিক অনিয়মের কারণেই প্রগতি লাইফ তার ছাড়পত্র আটকে দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি ছাড়পত্র পেয়েছেন কিনা তা জানা সম্ভব হয়নি।

বীমা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আগের প্রতিষ্ঠান থেকে ছাড়পত্র না নিয়ে বীমা কোম্পানির সিইও হওয়ার সুযোগ নেই।

বিষয়টি জানতে চাইলে মনিরুল আলম বাণিজ্য বার্তাকে বলেন, আইডিআরএ’র কাছে সব কাগজপত্র দেওয়া আছে। আমি গার্ডিয়ান লাইফে যোগ দেওয়ার আগেই সিইও’র নিচের পদে তিন বছরের কাজের অভিজ্ঞতা ছিল। তাছাড়া উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হওয়ার আগে যে পদে ছিলাম, তখন এমডির নিচে আমার ওপর কেউ ছিল না। আপনারা যে তথ্য পেয়েছেন তার বাইরেও কিছু তথ্য আইডিআরএ’র কাছে আছে। যেগুলো পর্যালোচনা করে আমার নিয়োগ অনুমোদন করা হয়েছে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com