1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

‘পতন দীর্ঘায়িত হলে শেয়ারবাজারের সৌন্দর্য নষ্ট হয়’

  • Last Update: Thursday, June 30, 2022
এসবিএসি ব্যাংক ইনভেস্টমেন্টের এমডি এস. এম. নাসির উদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

এস. এম. নাসির উদ্দিন। শেয়ারবাজারের দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে লংকাবাংলা সিকিউরিটিজে চিফ মার্কেটিং অফিসার, স্টারলিং স্টক অ্যান্ড সিকিউরিটিজ এবং বিডি সানলাইফ সিকিউরিটিজ লিমিটেডে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও হিসেবে কাজ করছেন এসবিএসি ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডে।

জনাব নাসির উদ্দিন দেশের শেয়ারবাজার উন্নয়নে দীর্ঘদিন ধরে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শেয়ারবাজার বিশ্লেষক হিসেবে দেশের মিডিয়াতে তিনি বেশ পরিচিত মুখ। শেয়ারবাজারের সাম্প্রতিক টানাপোড়েন, বাজার স্থিতিশীলতার জন্য করণীয়সহ নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন ব্যবসা-বাণিজ্য ভিত্তিক নিউজপোর্টাল বাণিজ্য বার্তার সাথে। দীর্ঘ আলোচনার চুম্বক অংশ থাকছে পাঠকদের জন্য।

বাণিজ্য বার্তা: শেয়ারবাজারে সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা টানাপোড়েন চলছে, কেন?

এস. এম. নাসির উদ্দিন: টানাপোড়েন শেয়ারবাজারের সৌন্দর্যের একটি অংশ। তবে পতন দীর্ঘায়িত হলে উত্থান আর পতনের যে সৌন্দর্য তা আর থাকে না। আমাদের বাজারে বর্তমানে নিয়মিত যে পতন হচ্ছে তা বাংলাদের অর্থনীতির অর্জনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। পতনের পিছনে বিনিয়োগকারীদের মন মানসিকতার একটা ইস্যু জড়িত। দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের অভাব রয়েছে। আমরা স্বল্প সময়ে ক্যাপিটাল গেইন বা রিটার্ন আশা করি। এ কারণে পতন আরও তরান্বিত হয়।

কোনো পণ্য সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় করতে হলে একটি ডিস্ট্রিবিউশন চ্যানেল লাগে। মানুষের কাছে পণ্যটাকে পৌঁছে দিতে হবে, জনপ্রিয় করতে হবে। আমরা অলমোস্ট ১৮ কোটির জনসংখ্যার দেশ। এরমধ্যে এক শতাংশ মানুষকেও আমরা এখন পর্যন্ত ক্যাপিটাল মার্কেটে সম্পৃক্ত করতে পারি নাই। জনসংখ্যার ন্যূনতম ২০ শতাংশ শেয়ারবাজারে জড়িত থাকার কথা ছিলো। উন্নত দেশগুলোর প্রতিটি নাগরিকের কিছু না কিছু বিনিয়োগ ক্যাপিটাল মার্কেটে থাকে। আমরা সেটা করতে পারি নাই। এই না পারার বিষয়টা আমাদের শেয়ারবাজারের দীর্ঘমেয়াদী পতনের কারণ।

ক্যাপিটাল মার্কেটে বিনিয়োগ করলে ডিভিডেন্ড হোক বা ক্যাপিটাল গেইনের মাধ্যমে হোক রিটার্ন আসে। এই বিষয়টি মানুষের কাছে ওইভাবে পরিচিত হয় নাই। শেয়ারবাজারের গ্রাহক সংখ্যা ঢাকা, চট্টগ্রামসহ আশেপাশের জেলার মধ্য সীমাবদ্ধ রয়েছে। মার্কেটে নতুন বিনিয়োগকারীর সন্ধান করতে হবে।

আমাদের অর্থনীতির সাথে কিছুটা সামঞ্জস্যপূর্ণ ভারতের অর্থনীতি। আমরা ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা সেতু করছি, বড় বড় মেগা প্রজেক্ট হচ্ছে, এ অবস্থায় ক্যাপিটাল মার্কেটের সাইজ এতো ছোট থাকতে পারে না। ক্যাপিটাল মার্কেটের সাইজ টোটাল জিডিটির ১৫ শতাংশও যায় না। কেনো সাইজটা এতো ছোট সেটা নিয়েও গবেষণা করি না। আমরা সব সময় চিন্তা করছি মার্কেট খারাপ। নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে দোষারোপ করছি, বাংলাদেশ ব্যাংককে, সরকারকে দোষারোপ করছি। সর্বোপরি মার্কেট ভালো করতে হলে পলিসি মেকারদের কাজ করতে হবে। যারা দেশের পলিসি মেক করে, শেয়ারবাজার সম্পর্কে তাদের ভাবতে হবে। শেয়ারবাজার দেশের অর্থনীতির আয়না। একটি দেশের অর্থনীতি কোন পর্যায়ে রয়েছে তা প্রকাশ করে শেয়ারবাজার। কিন্তু বাংলাদেশে আমরা সেইভাবে পলিসি মেকারদের শেয়ারবাজার নিয়ে ভাবতে দেখিনি।

বাণিজ্য বার্তা: এই অবস্থা থেকে উত্তরণের উপায় কী?

এস. এম. নাসির উদ্দিন: কোয়ালিটি সাপ্লায়ের মাধ্যমে ডিমান্ড ক্রিয়েট করা যায়। তবে ডিমান্ড ক্রিয়েট করার জন্য কাজ করতে হবে। আমার দেখা গত ১৫ বছরের শেয়ারবাজারে সাপ্লাই নিয়ে যথেষ্ট কাজ করা হয়েছে। এ সময়ে লেস কোয়ালিটি বা কোয়ালিটিহীন কিছু কোম্পানি তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। কিন্তু নতুন বিনিয়োগকারী সৃষ্টির জন্য কাজ করা হয়েছে কিনা, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী তৈরি হয়েছে কিনা, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সেভাবে নিয়ে আসতে পেরেছি কিনা; এ সমস্ত বিষয়গুলো আমাদের চিন্তা করতে হবে।

বাণিজ্য বার্তা: শেয়ারবাজারে দীর্ঘমেয়াদী স্থিতিশীলতার জন্য কী করা যেতে পারে।

এস. এম. নাসির উদ্দিন: শেয়ারবাজার স্থিতিশীল করার জন্য বাজারকে প্রসারিত করার কোনো বিকল্প নাই। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে শেয়ারবাজারের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। ব্যাংকিং সেবাকে যদি আমরা গ্রাম-গঞ্জে পৌঁছে দিতে পারি তাহলে শেয়ারবাজারের সেবা কেনো গ্রাম-গঞ্জে পৌঁছে দিতে পারবো না? মুদ্রা বাজার ও শেয়ারবাজার একে অপরের পরিপূরক। মুদ্রা বাজার দেশের ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল সাপোর্ট দেবে আর শেয়ারবাজার অর্থনীতির ভিত্তি স্থাপন করবে। বড় বড় শিল্প কারখানা, মেগা প্রজেক্টগুলো শেয়ারবাজার থেকে অর্থ নিয়ে হবে। পৃথিবীর সব দেশেই দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের অর্থ সংস্থান করে শেয়ারবাজার। কিন্তু আমাদের এখানে চিত্র সম্পূর্ণ উল্টো। ব্যাংক থেকে ১০ থেকে ১২ শতাংশ লোন নিয়ে আমরা ইন্ডাস্ট্রিতে বিনিয়োগ করি। ফলে আমাদের ইন্ডাস্ট্রিগুলো ধীরে ধীরে সিক হয়ে যাচ্ছে। শেয়ারবাজার নির্ভর অর্থনীতি চিন্তা করতে হবে। আগে পলিটিশিয়ানদের দেখতে হবে, চিন্তা করতে হবে। আমাদের দেশের বড় কোনো সিদ্ধান্তগুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীই নেন। দেশের বড় অর্জনগুলোও তার হাত ধরে হয়েছে। যেহেতু তার হাত ধরেই সব হয়েছে, আমি মনে করি, শেয়ারবাজারে স্থিতিশীলতার জন্য তিনি চিন্তা করনেব। এই স্থিতিশীলতার মধ্য দিয়ে দুটো বিষয় হবে। তা হলো- আরও ১০ লাখ মানুষের কর্ম সংস্থান করে দেয়া যাবে। পাশাপাশি শেয়ারবাজারের সাইজ হবে টোটাল জিডিপির ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ।

বাংলাদেশের অর্থনীতি ঢাকা-চট্টগ্রাম কেন্দ্রীক না। সকল জেলার মানুষেরই এখন ক্রয় ক্ষমতা আছে। ১০ লাখ, ২০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করার মতো অনেক মানুষ জেলাগুলোতে রয়েছে। তাই আমি যদি ব্যবসাটাকে বিস্তৃত না করি, ডিস্ট্রিবিউশন চ্যানেলটাকে ঠিক না করি তাহলে ব্যবসা প্রসারিত হবে না। আর প্রসারিত না করা গেলে শেয়ারবাজার কখনো স্টাবলিশ হবে না। সাময়িক ভাইব্রেশনের জন্য নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে। তবে স্থায়ী স্থিতিশীলতার জন্য মার্কেট প্রফেশনাল তৈরির কোনো বিকল্প নেই।

মার্কেট প্রফেশনাল তৈরির মাধ্যমে শেয়ারবাজার দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে দিতে হবে। শুধু ব্র্যাঞ্চ নির্ভর করে শেয়ারবাজার প্রসারিত করা যাবে না।

বাণিজ্য বার্তা: টি+১ সেটেলমেন্ট এই মুহূর্তে শেয়ারবাজারের জন্য কতোটা চ্যালেঞ্জের হবে।

এস. এম. নাসির উদ্দিন: নতুন সব কিছুর মধ্যেই চ্যালেঞ্জ থাকে। এই চ্যালেঞ্জ ওভারকাম করতে হয়। বিশ্বর বড় বড় ব্রোকার হাউজগুলোতে শেয়ার কেনার পরই বিক্রির সুযোগ থাকে। টি+১ হলে ভলিউম বাড়বে। তবে এটার আগে বাজার প্রসারিত করা বেশি দরকার বলে আমি মনে করি। তবে এটা ভালো একটা মাইল ফলক। এতে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আকৃষ্ট হতে পারে। তবে এটার ভালো-মন্দ দুটো দিকই আছে।

বাণিজ্য বার্তা: শেয়ারবাজারে আপনার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা থেকে বিনিয়োগকারীদের জন্য কী পরামর্শ দিবেন।

এস. এম. নাসির উদ্দিন: বিনিয়োগকারীদে বলবো- আপনারা ভালো কিছু শেয়ারে বিনিয়োগ করুন। পাশাপাশি ধৈর্য ধারন করুন। ধৈর্যটা এমন হবে যে শেয়ারটার দাম না বাড়া পর্যন্ত আমি বিক্রি করবো না। বিনিয়োগকারীদের প্রতি আমার অনুরোধ- আপনার সর্বোস্ব শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করবেন না। পাশাপাশি একটু পড়াশোনা করতে হবে। কেউ যদি মুদি দোকান বা ফার্মেসি ব্যবসা করে তাহলে সেখানে সে প্রচুর সময় দেয়। এখানেও সময় দিতে হবে। স্টাডি করতে হবে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com