1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ক্রমেই বাড়ছে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণ

  • Last Update: Tuesday, June 14, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দেয়ার পরও  নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের (এনবিএফআই) খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়ছেই। বর্তমানের দেশের প্রায় অর্ধেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান ৫০ থেকে ৯০ শতাংশ খেলাপি ঋণে ধুঁকছে।  

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি পরিমাণ ১২১৬ কোটি টাকা বা ৯.৩৪ শতাংশ। আর চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি- মার্চ) ২০২২ পর্যন্ত এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে মোট ১৪ হাজার কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের (এনবিএফআই) খেলাপি ঋণ ১২১৬ কোটি টাকা বা ৯.৩৪ শতাংশ বেড়ে ২০২২ সালের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) ১৪ হাজার ২৩২ কোটি টাকা হয়েছে। যা ২০২১ সালের একই প্রান্তিকে ছিলো ১৩ হাজার ১৬ কোটি টাকা। যা বেড়ে ৩৭ দশমিক ৪৫ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রান্তিক প্রতিবেদনে হিসাবে দেখা যায়, গত মার্চ মাস শেষে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২০ দশমিক ৬৩ শতাংশ

যদিও বেশিরভাগ ব্যবসায়ী মহামারী থেকে পুনরুদ্ধারের পর গত দুই বছরে ঋণ পরিশোধের বিভিন্ন সুবিধা উপভোগ করেছেন। কিন্তু অনেক ঋণগ্রহীতা এখনও তাদের ঋণ পরিশোধ করতে অনিচ্ছুক বলে মনে হচ্ছে, এমনটিই মত দেন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টরা। 

আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঠিক মূল্যায়ন ছাড়াই অনেক দুর্বল কোম্পানিকে টাকা ধার দিয়েছে, যা পরিস্থিতির পিছনে একটি মূল কারণ, ‘নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা এমন তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘অন্তত অর্ধেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান আছে যাদের ৫০-৯০ শতাংশ খেলাপি ঋণ নিয়ে লড়াই করছে। এমনও অনেক ঋণগ্রহীতা আছেন যারা এখন ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণ পরিশোধে বিলম্ব করছে।’

২০২১ সালে মার্চ মাসে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণের পরিমাণ ছিলো ১০ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা। দ্বিতীয় প্রান্তিক (এপ্রিল-জুন ২০২১) ঋণ পরিশোধে সুযোগ সুবিধা প্রত্যাহার করার পরিমাণ কমেছে মাত্র ২৫ কোটি টাকা। যাতে দেখা যায় আগের চেয়ে ঋণ খেলাপী গ্রাহক বেড়েছে।

জুলাই-সেপ্টেম্বর’২১ প্রান্তিকে খেলাপি ঋণ এক লাফে ১৪২৯ কোটি টাকা থেকে বেড়ে ১১ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা এবং অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকে ১২৫৯ কোটি থেকে বেড়ে  দাড়িয়েছে ১৩ হাজার ১৬ কোটি টাকায়

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ঋণ নিয়ে পরিশোধ না করা এখন একটা অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। যদি ঋণ খেলাপিদের বারবার সুবিধা দেয়ার পাশাপাশি ঋণের মেয়াদ বাড়ানো হয় এবং এককালীন কিস্তি সুবিধা দেওয়া হয়, তাহলে খেলাপিদের তালিকা আরও বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, ঋণখেলাপিদের হাত থেকে রেহাই পেতে অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। এটি করতে ব্যর্থ হলে ঋণগ্রহীতারা সুবিধা গ্রহণ করবে। এর ফলে অন্য ঋণগ্রহীতারা ঋণ পরিশোধে আগ্রহী হবে না।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ব্যাংকিং খাতে মোট ঋণ বিতরণের পরিমাণ ছিল ১৩ লাখ এক হাজার ৭৯৭ কোটি টাকা। খেলাপী ছিল ৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ। ২০২২ সালে মার্চ মাস শেষে মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ২৯ হাজার ৭৩৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com