1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ডেল্টা লাইফের শেয়ার কারসাজিতে হিরো ও তার স্বজনরা

  • Last Update: Friday, May 20, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ারবাজারে কারসাজিতে বিভিন্ন সময় সমবায় অধিদপ্তরের ডেপুটি রেজিস্ট্রার আবুল খায়ের হিরোর নাম আলোচিত হয়েছে। গণমাধ্যমেও উঠে এসেছে কারসাজিতে তার সম্পৃক্ততার কথা। এবার ফের আলোচনায় এসেছেন হিরো।

বীমা খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানি ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারে কারসাজিতে শুধু যে আবুল খায়ের হিরো জড়িত তা নয়, তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা মিলে কোম্পানিটির শেয়ার নিয়ে কারসাজি করেছেন।

সম্প্রতি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) এক তদন্ত প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে।

শুধু ডেল্টা লাইফ নয়, বস্ত্র খাতের কোম্পানি সাফকো স্পিনিং মিলসের শেয়ার কারসাজিতেও হিরোর সংশ্লিষ্ট পেয়েছে ডিএসই। তবে সাফকোর কারসাজিতে যে ৬ জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে পারিবারিক কোনো সম্পর্ক আছে কি-না তা জানা যায়নি। কিন্তু ডেল্টা লাইফের শেয়ার কারসাজি করেছেন নিজের পরিবার ও শশুরবাড়ির সদস্যদের নিয়ে।

প্রতিবেদন অনুসারে, গত বছর মাত্র পাঁচ মাস সময়ের মধ্যে ডেল্টা লাইফের শেয়ারের দাম বাড়ে ১৯০ শতাংশ। শেয়ারটির দাম ৮০ টাকা থেকে বেড়ে ২৩২ টাকায় উন্নীত হয়। আর ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ২৬ অক্টোবর সময়ের মধ্যে শেয়ারটির দাম ১৩৪ টাকা থেকে ২৩২ টাকায় তোলা হয়। এটি করা হয় অ্যাক্টিভ লেনদেনের (Active Trade) মাধ্যমে। আর এই অ্যাক্টিভ ট্রেডে যুক্ত ছিলেন আবুল খায়ের হিরো ও তার পরিবারের পাঁচ সদস্য।

ডিএসই তার তদন্তে ডেল্টা লাইফের শেয়ার কারসাজিতে অন্য যাদের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে, তারা হচ্ছেন- আবুল খায়ের হিরোর স্ত্রী কাজী সাদিয়া হাসান, তার বাবা আবুল কালাম মাতব্বর, বোন কনিকা আফরোজ, ভাই সাজেদ মাতব্বর ও মোহাম্মদ বাশার এবং শ্যালক কাজী ফুয়াদ হাসান।

হিরোর স্ত্রী কাজী সাদিয়া হাসান ডিএসইর একটি সদস্য প্রতিষ্ঠানের (ব্রোকার হাউজ) ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

তদন্ত প্রতিবেদন অনুসারে, ২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ২৬ অক্টোবর সময়ের মধ্যে আবুল কালাম মাতব্বর শেয়ারটির মোট লেনদেনের ১৪ দশমিক ৩৪ শতাংশ, আবুল খায়ের (হিরো) ১২ দশমিক ২৬ শতাংশ এবং কনিকা আফরোজ ৩ দশমিক ১২ শতাংশ লেনদেন করেছেন।

ডিএসই ডেল্টা লাইফের শেয়ার লেনদেনে নানা অস্বাভাবিকতা খুঁজে পেয়েছে, যেগুলো মূলত সিকিউরিটিজ আইনের পরিপন্থি।

তদন্ত প্রতিবেদন অনুসারে, চারদিনে মাত্র ৪৮টি হাওলার মাধ্যমে ডেল্টা লাইফের ১০ লাখ ৬৬ হাজার শেয়ার কেনাবেচা হয়। আর এই পুরো কেনাবেচাটি হয় হিরো ও তার সহযোগীদের মধ্যে। এই লেনদেনগুলো ছিল প্রকৃতপক্ষে সাজানো ও মিথ্যা লেনদেন (False Trading)। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্ত ও প্রলুব্ধ করার লক্ষ্যে এসব লেনদেন করা হয়। একাধিক দিন সিরিজ লেনদেনের (Series Trade) মাধ্যমে শেয়ারটির দাম বাড়ানো হয় বলে তদন্তে উঠে এসেছে।

একদিনের দিনের ঘটনা উল্লেখ করে বলা হয়, সেদিন সকাল ১১টা ৩৫ মিনিটে সিরিজ ট্রেডিং শুরু করা হয়। তখন ডিএসইতে ডেল্টা লাইফের শেয়ারের দাম ছিল ১৫৯ টাকা ৮৯ পয়সা। বেলা ১২টা ৪০ মিনিটে শেয়ারটির দাম বেড়ে দাঁড়ায় ১৭৪ টাকা ৪০ পয়সা। মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যে শেয়ারটির দাম বাড়ানো হয় ১২ টাকা ৪০ পয়সা বা ৭ দশমিক ৮২ শতাংশ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com