1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

আজও পতন শেয়ারবাজারে

  • Last Update: Tuesday, May 17, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

পতনের ধারাবাহিকতা থেকে বের হতে পারছে না দেশের শেয়ারবাজার। গত কয়েকদিনের মতো আজ মঙ্গলবারও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্য সূচকের পতন হয়েছে। টাকার অংকেও কমেছে লেনদেন। দিনের শুরুতে সূচকের উত্থান হলেও দিনশেষ হয়েছে পতন দিয়ে।

শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক মন্দাবস্থা ও দেশে ডলারের দর বেড়ে যাওয়ায় শেয়ারবাজারে এর প্রভাব পড়েছে বলে গুঞ্জন উঠেছে। আর এই গুঞ্জনেই বিনিয়োগকারীদের মধ্যে মনস্তাত্বিক প্রভাব ফেলেছে। আতঙ্কিত হয়ে শেয়ার বিক্রি করছেন অনেকেই। ফলে বাজারে পতন হয়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, আজ ডিএসই’র প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬ হাজার ৪০৩ পয়েন্টে। শরিয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪০৮ পয়েন্টে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৩৬৩ পয়েন্টে।

গতকাল প্রধান সূচক পড়েছিলো ১৩৪ পয়েন্ট। তবে ওইদিন ঢাকার অঙ্কে লেনদেন বেড়েছিলো। কিন্তু মঙ্গলবার টাকার অঙ্কেও লেনদেন কমেছে। ডিএসইতে এদিন ৭৭৭ কোটি ৭৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন থেকে ২৪৬ কোটি ৩৬ লাখ টাকা কম। গতকাল লেনদেন হয়েছিলো ১ হাজার ২৪ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার।

এদিন লেনদেন হওয়া ৩৭৯টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৮৯টির, কমেছে ২৪৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৫টির।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)ও সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। আজ সিএসই সার্বিক সূচক সিএসপিআই ১৩৩ পয়েন্ট কমেছে। এদিন সিএসইতে ২৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

শেয়ারবাজারের দরপতনের বিষয়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, শেয়ারবাজারে দরপতনের যুক্তিসঙ্গত কোনো কারণ নেই। সরকারের দেওয়া তথ্য অনুসারে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ভালো। সম্প্রতি বেসরকারি খাতে আমদানি বেড়েছে। তাতে মনে হয়ে দেশে বিনিয়োগও হচ্ছে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনের যুদ্ধে মূল্যস্ফীতি বাড়ছে কিন্তু সেটা শেয়ারবাজারে সরাসরি প্রভাব ফেলে না। কাজেই বিনিয়োগকারীরা কিছুটা অকারণে আতঙ্কিত হয়ে শেয়ার বিক্রি করছেন। এটার কোনো যুক্তিসঙ্গত ভিক্তি নেই।

মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ডলারের দাম বাড়ায় বিদেশিরা শেয়ার বিক্রি করতে পারেন। কিন্তু শ্রীলঙ্কার অর্থনীতির সঙ্গে আমাদের তুলনা করাটা ঠিক না। কারণ আমাদের রিজার্ভ কিছু কমলেও এখনো ৫ মাসের আমদানি বিলের সমান রিজার্ভ রয়েছে।

তিনি বলেন, বিশ্বে কিছুটা মন্দা অবস্থা তৈরি হয়েছে। কিন্তু তার প্রভাব বাংলাদেশে পড়ার কথা না। এছাড়াও দেশের অর্থনীতি যে অবস্থা রয়েছে তাতে পুঁজিবাজারে বড় পতনের কোনো কারণ দেখি না।বিনিয়োগকারীদের আতঙ্কিত হওয়ার কারণ দেখছি না। বিনিয়োগকারীদের উচিত প্যানিক সেল থেকে বিরত থাকা।

বাজারের উত্থান-পতন ঠেকানো নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাজ না উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবে কোনো ষড়যন্ত্র করে কোনো শেয়ার ওঠানামা করা হচ্ছে কি না সেটা দেখভালের দায়িত্ব নিয়ন্ত্রক সংস্থার।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com