1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

কৌশল পরিবর্তন করে সক্রিয় শেয়ার কারসাজি চক্র

  • Last Update: Thursday, May 12, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘দেশের শেয়ারবাজার কারসাজি চক্র নিয়ন্ত্রণ করে’- বিনিয়োগকারীদের বড় একটি অংশ এটা জোড় দিয়ে বলেন। বিনিয়োগকারীদের এ দাবির সত্যতা মিলেছে একাধিকবার। আর কারসাজি বন্ধে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনও (বিএসইসি) সময়ে সময়ে পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু শক্তিশালী এই চক্রকে নির্মুল করা যায়নি। বরং কৌশল পরিবর্তন করে সক্রিয় থেকে বাজার থেকে কোটি কোটি টাকা বের করে নিয়ে যাচ্ছে চক্রের সদস্যরা। এতে দীর্ঘ মেয়াদী ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে শেয়ারবাজার।

জানা গেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে শেয়ার কারসাজি করা একাধিক ব্যক্তি ও চক্রের সন্ধান পেয়ে ব্যবস্থা নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এতে চক্রের জালিয়াতি সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ হয়। কিন্তু নতুন কৌশল নিয়ে ফের সক্রিয় হয়েছে চক্রটি। এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামকে ব্যবহার করে শেয়ারবাজারের কিছু কারসাজি চক্র নতুন করে জালিয়াতি করছি।

এই চক্রটি শেয়ারবাজার নিয়ে বিভিন্ন ধরনের চটকদার ও প্রলোভনমূলক তথ্য ছড়িয়ে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সম্প্রতি এ রকম একটি চক্রের সন্ধান পেয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মার্কেট সার্ভিল্যান্স অ্যান্ড ইন্টেলিজেন্স বিভাগ।

ইতোমধ্যে টেলিগ্রাম গ্রুপটির কার্যক্রম বিএসইসির নজরদারিতে রয়েছে। প্রতারণা ও কারসাজির পর্যাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে শিগগিরই কারসাজি চক্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হবে বলে বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষায় কৌশল প্রণয়ন ও অংশীজনদের সঙ্গে সমন্বিতভাবে বিএসইসি এ কাজ করছে বলে জানা গেছে।

সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি অর্থ লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) কাছে চিঠি দিয়েছে বিএসইসি। চিঠিতে বিএসইসি জানিয়েছে, একটি টেলিগ্রাম গ্রুপ বিকাশ নম্বর (০১৮১১৭৬২৩৬৯) ব্যবহার করে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত রয়েছে বলে শনাক্ত করা হয়েছে। ওই টেলিগ্রাম গ্রুপের সদস্যরা নিশ্চিত করছে যে, গ্রুপটি তাদের সদস্যদের শেয়ার কেনাবেচা করার নির্দেশনা দিয়ে থাকে। আর ওই বিকাশ নম্বর ব্যবহার করে গ্রুপটি সদস্যদের কাছ থেকে সাবস্ক্রিপশন বাবদ অর্থের বিনিময়ে সিকিউরিটিজ ট্রেডিং থেকে মুনাফা অর্জন করছে, যা সিকিউরিটিজ আইন অনুযায়ী বেআইনি।

চক্রটির প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড চিহ্নিত করতে তদন্ত চলছে। তদন্ত পরিচালনার জন্য বিকাশ নম্বরের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রয়োজন। আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে এ সংক্রান্ত তথ্য কমিশনের প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হয়।

এদিকে বিএসইসির প্রাথমিক অনুসন্ধানে উঠে এসেছে, বেশ কিছু টেলিগ্রাম গ্রুপ বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়বে- এমন তথ্য তথ্যের বিনিময়ে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ওই গ্রুপের সদস্য বানানো হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের। আর এ জন্য সাবক্রিশন ফি বাবদ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এ কাজের জন্য টেলিগ্রম গ্রুপটি একটি উল্লিখিত বিকাশ নম্বর ব্যবহার করছে। ইতোমধ্যে ওই বিকাশ অ্যাকাউন্টে কী পরিমাণ টাকা এসেছে, তা জানার চেষ্টা চলছে। একইসঙ্গে ওই অ্যাকাউন্টে আসা টাকা আর কোন কোন অ্যাকাউন্টে হস্তান্তর হয়েছে, সেই বিষয়টিও খোঁজ নিচ্ছে বিএসইসি।

বিষয়টি নিয়ে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম গণমাধ্যমে বলেন, শেয়ারবাজার নিয়ে যে কোনো কারসাজি ও প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড কঠোরভাবে মনিটরিং করছে বিএসইসি। এ ধরনের বেশ কিছু সক্রিয় কারসাজি চক্র বিএসইসির নজরদারিতে রয়েছে। এর মধ্যে দুই-একটি কারসাজি চক্রের বিরুদ্ধে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। আরো কিছু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সকল কারসাজিকারীদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এ কাজ শেষ হলে কারসাজি ও প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত গ্রুপ পরিচালনাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com