1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

ব্যাংকের অবণ্টিত লভ্যাংশের তথ্য জানতে চায় বিএসইসি

  • Last Update: Monday, April 18, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ারবাজারের তালিকাভুক্ত ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলোর অবণ্টিত লভ্যাংশের অবস্থা জানতে চেয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এই অর্থ শেয়ারবাজার স্থিতিশীলতা তহবিলে (সিএমএসএফ) পাঠানোর কথা ছিলো। কিন্তু কোনো কোনো ব্যাংক এখনও তা বাস্তবায়ন করেনি।

সম্প্রতি বিএসইসি’র পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোকে পাঠানো হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

এই চিঠির অনুলিপি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর এবং অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশকেও পাঠানো হয়েছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে ‘বিএসইসির নির্দেশনা অনুসারে ব্যাংকগুলো নগদ এবং শেয়ারগুলো অবিরত বা অমীমাংসিত অবস্থায় স্থানান্তরিত করেনি যা বিনিয়োগকারীদের তহবিলের অপব্যবহার করা হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বণ্টন না করা লভ্যাংশের সর্বশেষ অবস্থা কমিশনকে জানাতে নির্দেশ দিয়ে বলা হয়েছে, বিনিয়োগকারীদের কাছে দাবিহীন অ্যাকাউন্টে থাকা শেয়ারগুলো আলোচনার যোগ্য উপকরণের বিপরীতে বহন করছে কি-না এবং দাবিহীন লভ্যাংশগুলো ব্যাংকের শাখাগুলোতে প্রদেয় হিসাবে কোনও আমানতকারীদের অর্থের বিপরীতে রাখা হয়েছে কিনা বা ব্যাংকের কাস্টডিয়ান পরিষেবার অংশ হিসাবে ব্যাংকের নিরাপদ হেফাজতে রাখা হয়েছে কিনা।

ব্যাংকের বিনিয়োগকারীদের অর্থ আটকে রাখার কোন অধিকার নেই। কারণ এই ধরনের তহবিল ব্যাংকের ডেডিকেটেড ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এবং বিনিয়োগকারীদের দাবি নিষ্পত্তির জন্য ব্যাংকের সাসপেন্স বিও অ্যাকাউন্টে আলাদাভাবে রাখার বিধান রয়েছে।

২০২১ সালের ২৭ শে জুন বিএসইসি দেশের সকল তালিকাভুক্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠনগুলোকে নির্দেশ দেয় যে বণ্টন না করা দাবিহীন নগদ এবং স্টক লভ্যাংশ ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে স্থানান্তর করতে হবে।

বারবার সতর্কতা সত্তেও বিএসইসি এবং বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকগুলোকে দুটি ভিন্ন নির্দেশনা দেওয়ায় কোনও ব্যাংক এখনও সিএমএসএফ এর ফান্ডে দাবিকৃত লভ্যাংশ হস্তান্তর করতে পারেনি।

২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর, বাংলাদেশ ব্যাংক বিএসইসিকে বলেছিল যে ব্যাংক এবং ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে (এনবিএফআই) দাাবিকৃত বা অমীমাংসিত লভ্যাংশ সিএমএসএফ এর কাছে স্থানান্তর করার অনুমতি নেই কারণ এটি ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ধারা ৩৫(১) এর সাথে সাংঘর্ষিক।

বিএসইসি সর্বশেষ ব্যাংকগুলোকে বলেছে যে, শেয়ারহোল্ডারদের অর্থ তাদের বিনিয়োগের উপর লভ্যাংশ (বণ্টন করা হোক বা না হোক) তাদের পাওয়ার অধিকার রয়েছে। যা চূড়ান্তভাবে কোম্পানি আইন, ১৯৯৪ এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে বার্ষিক সাধারণ সভায় অনুমোদিত হয়। বলা হয়েছে, বিএসইসির নির্দেশের সাথে উল্লেখিত ধারার কোনো বৈপরীত্য নেই এবং ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর উল্লেখিত ধারা ৩৫(১) ব্যাংকের আমানতকারীদের অর্থ এবং উল্লেখিত ব্যাংকিং পরিষেবাগুলির জন্য প্রযোজ্য।

বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বিএসইসি’র মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে লভ্যাংশ ঘোষণা, পারিশ্রমিক কমিটি গঠন, ব্যাংকের শেয়ারবাজার এক্সপোজার এবং পুঁজিবাজার স্থিতিশীল তহবিলে ব্যাংকের দাবিহীন লভ্যাংশ স্থানান্তরসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে।

যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকগুলোর প্রাথমিক নিয়ন্ত্রক এবং তারা চায় যে ব্যাংকগুলো ব্যাংক কোম্পানি আইন মেনে চলুক। অপর দিকে বিএসইসি তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর নিয়ন্ত্রক হিসাবে ব্যাংকগুলোকে সিকিউরিটিজ আইন মেনে চলতে হবে বলে নির্দেশনা দিচ্ছে।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com