1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

শেয়ারবাজার: চলমান মন্দা কাটবে তো?

  • Last Update: Thursday, March 31, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরুর পর থেকেই দেশের শেয়ারবাজার মন্দা হতে শুরু করে। হু হু করে সূচকের পতন হয়, তলানীতে নামে লেনদেন। ‘গুজবের’ প্রভাবে বাজার টালমাটাল হয় বলে আলোচনা ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। এখনো কাটেনি সেই প্রভাব। তবে মন্দা বাজারকে চাঙ্গা করতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্ত পতনের বৃত্ত থেকে দীর্ঘ মেয়াদে বের হতে পারেনি। এই পরিস্থিতি উত্তরে সর্বশেষ গতকাল বুধবার বাজার মধ্যস্থতাকারীদের সাথে বৈঠক করেছে বিএসইসি।

বৈঠকে শেয়ারবাজারের মন্দাভাবের মধ্যে রোজায় বিনিয়োগ বাড়ানোর আশ্বাস এসেছে বাজার মধ্যস্থতাকারীদের পক্ষ থেকে।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, মার্চেন্ট ব্যাংকের চাওয়া অনুযায়ী ১০ হাজার কোটি টাকার তহবিলের প্রস্তাব যাচাই-বাছাই করা হবে। এছাড়া প্রতিটি ডিলার আগামী এক মাসে কমপক্ষে ১ কোটি করে ২৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। পাশাপাশি শেয়ারবাজার স্থিতিশীলতা তহবিল থেকেও বিনিয়োগ বাড়ানো হবে। মার্চেন্ট ব্যাংক বিনিয়োগ করবে ২০০ থেকে ৩০০ কোটি টাকা। বিনিয়োগ বাড়াবে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিও। অর্থাৎ আগামী এক মাসে শেয়ারবাজারে ৫০০ থেকে ৬০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ হবে। আর এই বিনিয়োগ বাজারকে স্থিতিশীল করবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছাড়া বাজারকে স্থিতিশীল করা কঠিন। তাই এসব সিদ্ধান্তকে বাজার উপযোগী বলা যায়।

মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) পক্ষ থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশে শেয়ারবাজারের প্রধান দুর্বলতা হচ্ছে এখানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কম। ব্যক্তিশ্রেণির ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কিত হয়ে শেয়ার বিক্রি করে দিচ্ছে। প্রধান এই দুর্বলতা কাটাতে এ ধরনের একটি তহবিল দরকার।

তবে এসব সিদ্ধান্ত ইতিবাচকভাবে নিতে পারছেন না সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। তারা বলছেন, মধ্যস্থতাকারীদের সুযোগ দিতেই এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাজারকে তার স্বাভাবিক গতিতে চলতে দেয়ার কথাও বলেছেন কেউ কেউ।

বুধবার সন্ধ্যায় মধ্যস্থতাকারীদের সাথে বিএসইসির বৈঠকে নেয়া সিদ্ধান্তগুলো সংবাদমাধ্যমে আসার পর থেকেই শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট ফেসবুক গ্রুপগুলোতে নেতিবাচক আলোচনা শুরু হয়।

সেখানে এসকে সরকার নামের একজন লিখেছেন, আগে বাস্তবায়ন করা হোক তারপর বিশ্বাস করবো।

জামির নামের একজন লিখেছেন, মাস শেষে নিউজ দিয়েন, “কেউ কথা রাখেনি।” প্রস্তুত আছি আমরা।

শাহিদুল আলম বাচ্চু লিখেছেন, কাল মাল খাওয়ানোর জন্য হল্ট থাকবে বাজার। যারা আছো মামুদের মাল গিলাইয়া দেও। গিলাতে পারলে আরও ২ দিন ভালো থাকবে।

আমজাদ হোসাইন লিখেছেন, জাস্ট একটা নাটক হবে।

শাহ গোলাম রহমান লিখেছেন, এই সিদ্ধান্তটি কি আইন দ্বারা নিশ্চিত হয়েছে এবং স্টেক-হোল্ডাররা কি তাদের দ্বারা আলোচনা করা বৈঠকে বিনিয়োগ করতে বাধ্য? অনুসরণ করার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে স্টেক-হোল্ডারদের কোন জবাবদিহিতা আছে কি?

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে বাজারে কারেকশন শুরু হয়। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও কারেকশন বন্ধের আভাস মিলছে না। উপরন্তু বাজারে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ হিসেবে আসে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ।

টানা দরপতন ঠেকাতে এক দিনে শেয়ারের দরপতনে সর্বোচ্চ সীমা ২ শতাংশ নির্ধারণ করে দিলেও ক্রেতা সঙ্কটে ভুগছে অনেক কোম্পানি।

চলতি মাসের ৯ ও ১০ তারিখে ব্যাংক ও সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানির প্রতিনিধিরা বিএসইসিতে বৈঠক করে বিনিয়োগ বাড়ানোর ঘোষণা দেয়ার পরও লেনদেনে মন্দাভাব কাটেনি।

তবে পদক্ষেপ নিতে কার্পণ্য করছে না নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। এই অবস্থায় শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ বাড়াতে অতালিকাভুক্ত ২৬টি বীমা কোম্পানিকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পাশাপাশি তাদের ইক্যুইটির ২০ শতাংশ বিনিয়োগের নির্দেশ দেয়।

এতসব পদক্ষেপের পরও শেয়ারবাজারে মন্দাভাব না কাটার পরিপ্রেক্ষিতে বাজার মধ্যস্থতাকারীদের সঙ্গে গতকাল বৈঠক হয়।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ।

বৈঠকে অংশ নেন মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সভাপতি ছায়েদুর রহমান, ডিএসই ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও, ক্যাপিটাল মার্কেট স্টাবিলাইজেশন ফান্ডের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন, অ্যাসোসিয়েশন অফ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিজ অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ডসের সভাপতি হাসান ইমাম প্রমুখ।

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com