1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

‘ইন্স্যুরেন্স সেক্টরকে বড় করার চেষ্টা করছি’

  • Last Update: Monday, March 21, 2022
চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সিইও এস এম জিয়াউল হক

নিজস্ব প্রতিবেদক

এস এম জিয়াউল হক। দীর্ঘ ২২ বছর ধরে কাজ করছেন দেশের বীমা খাতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক-প্রশাসন বিভাগ থেকে ফার্স্ট ক্লাস সেকেন্ড পজিশন নিয়ে স্নাতক শেষ করে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফাইন্যান্সে করেন এমবিএ। কর্মজীবন শুরু করেন আমেরিকান লাইফ ইন্স্যুরেন্স (বর্তমান নাম মেটলাইফ) কোম্পানিতে ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি হিসেবে। এরপর কাজ করেছেন প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে। দুটি কোম্পানিতে দীর্ঘ ১৮/১৯ বছর গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। দেশের গুরুত্বপূর্ণ বীমা প্রতিষ্ঠান চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কাজ করছেন ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল থেকে। গত তিন বছরে প্রতিষ্ঠানটিকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। করোনা পরবর্তী বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ, বীমার প্রসারসহ খাত সম্পর্কিত নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন বাণিজ্য বার্তার সাথে। দীর্ঘ সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ থাকছে পাঠকদের জন্য।

বাণিজ্য বার্তা: করোনায় বীমাখাতসহ অর্থনীতির অন্যান্য খাত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চার্টার্ড লাইফের যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে কী পদক্ষেপ নিয়েছেন?

এস এম জিয়াউল হক: যদি আমার ব্যাকরাউন্ড বলেন, আমি গ্লোবাল অবস্টিক্সে ছিলাম। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে যতোটুকু জানি তাহলো আই ডু দ্যা রি-ইঞ্জিনিয়ারিং প্রসেস। কীভাবে একটি অর্গানাইজেশনের পরিবর্তন আনতে হয়। আমি মেটলাইফ থেকে যখন প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সে কাজ শুরু করি তখন আমার মূল কাজটাই ছিলো রি-ইঞ্জিনিয়ারিং প্রসেস। আমি যখন এই অর্গানাইজেশনে আসি তখন সেই ফোকাসটাই থেকে যায়। এটা একটা নতুন কোম্পানি। পাঁচ বছর ধরে স্ট্রাগল করছিলো। সেখান থেকে কোম্পানিটাকে একটা ভালো জায়গায় নিয়ে যাওয়ার জন্যই আমি আসি। সো উই হ্যাভ স্টার্টেট উইথ সো ম্যানি প্লানস অ্যান্ড রিফর্মস।

আমি যদি এভাবে বলি, প্রয়াত আনিসুল হক সাহেব ঢাকার মেয়র হওয়ার আগে পুরো ফিজিবিলিটি এনালাইসিস করেছেন। সিটিকে কীভাবে চালাবেন। আমিও ওইরকম একটা পরিকল্পনা নিয়ে ২০১৯ সালের পহেলা এপ্রিল এখানে জয়েন করি। জয়েন করার পর ওই নয় মাসে আমার পরিকল্পনা ছিলো অনেক ধরনের। যেমন- আমার সেলস টিম কীভাবে কাজ করবে, অপারেশন টিম কীভাবে কাজ করবে, ফাইন্যান্স কীভাবে কাজ করবে, আইটি কীভাবে কাজ করবে, ওভার অল কর্পোরেট ম্যানেজমেন্ট কী হবে। এই রিফর্মগুলোর গাইডলাইনগুলো প্রতি বোর্ড মিটিংয়ে প্লেসড হচ্ছিলো। তাদের কাছ থেকে গাইডলাইনগুলো অনুমোদিত হচ্ছিলো। এবং সেই গাইডলাইনগুলো হচ্ছিলো ইনলাইন উইথ দ্যা ইন্স্যুরেন্স অ্যাক্ট, ইনলাইন উইথ দ্যা আইডিআর’স গাইডলাইনস এবং আমাদের বীমানীতি ইত্যাদি মাথায় নিয়ে। এই নয় মাস আমি আসলে রিফর্মের কাজগুলো করেছিলাম। এবং ২০২০-এর জানুয়ারিতে আমরা বাৎসরিক অনুষ্ঠানটা করি। ওই সময় থেকেই আমরা রিফর্মগুলো এক্সিকিউট করা শুরু করি।

বাণিজ্য বার্তার সাথে কথা বলছেন এস এম জিয়াউল হক

জানুয়ারি মাসে আমাদের হেড অব ডিপার্টমেন্ট এবং কোর মেম্বারদের জন্য ১৭টা ল্যাপটপ নিলাম। প্লান ছিলো ল্যাপটপগুলো আসলে ডেস্কটপগুলো ঢাকার বাইরের অফিসগুলোতে পাঠিয়ে দেবো। ফেব্রুয়ারির মধ্যে ডেস্কটপগুলো চলে গেলো। মার্চের প্রথম সপ্তাহে আমি সবাইকে ল্যাপটপ ক্যারি করতে বললাম। অর্থাৎ বাসায় আনা নেয়ার অভ্যাস করতে বললাম। এবং হঠাৎ করেই যখন লকডাউন হয়ে গেল তখন আমার হেড অব ইন্টারনাল অডিট ফেনীতে। আমার পেমেন্টগুলো যেহেতু অডিট ছাড়া হয় না, তাই সে ফেনীতে থেকেও আমাকে সাপোর্ট দিতে পেরেছে। কারণ তখন আমরা ডিজিটালাইজড হয়ে গেছি। উই গট দ্যাট অ্যাডভান্টেজ।

এমডিদের তিন বছরের কন্ট্রাক্ট হয়। আমি একসাথে দুটো কন্ট্রাক্ট সাইন করেছি। ছয় বছরের জন্য কোম্পানি আমাকে নিয়েছে। ওই ছয় বছরের পরিকল্পনার কিছু কাজ আমি প্রথম বছরে করেছি। এরপরের বছরেই কোভিড এসেছে। সেটাকে ওভারকাম করার জন্য আমি সারা দেশে ঘুরে বেড়িয়েছি। টিমকে সহযোগিতা করেছি। টিমকে মোটিভেট করেছি। একজন লিডার হিসেবে তাদের ভাইব্রেন্ট রেখেছি। ওই সময় তাদের সহযোগিতা করা দরকার ছিলো। এরফলে তাদের মধ্যে একটা কমিটমেন্ট আনতে পেরেছি।

কোভিডকালীন বিভিন্ন সেক্টর অনুদান পেয়েছে। কিন্তু বীমা খাতে কোনো অনুদান আসেনি। ওই সময় আমি ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাসোসিয়েট, ইউনিট ম্যানেজার এবং ব্র্যাঞ্চ ম্যানেজারদের এডভান্স দিয়েছি। বোর্ড থেকে অনুমোদন করিয়ে নিয়েছিলাম ওইভাবেই। এখন অ্যাডভান্স নেবে ডিসেম্বরের মধ্যে ব্যবসা করে তা ফেরত দেবে। আমি তখন ৫৬ লাখ টাকা দিয়েছিলাম। পরে ঠিকই সে টাকা যথা সময়ে ফেরত আসে। কারণ প্রত্যেকের মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে যে, কোম্পানি আমাকে বিপদের সময় হেল্প করেছে, আমি আয় করে ঋণ শোধ করবো, আমারও আয় বাড়বে। এবং তারা আয় করতে পেরেছে বলেই ঋণ শোধ করতে পেরেছে। আমার টিমটা ছোট, কিন্তু খুবই দক্ষ। এমনকি এফএ’র ক্ষেত্রেও আমি খুব সচেতন।

বাণিজ্য বার্তা: স্বাধীনতার ৫০ বছর পর বীমা খাতের অগ্রগতি কতোটুকু বলে মনে করেন?

এস এম জিয়াউল হক: এ সময়ে বীমা খাত একটা চড়াই উৎরাইয়ের মধ্য দিয়ে গেছে। কখনো ভালো ছিলো কখনো খারাপ ছিলো। স্বাধীনতার আগে বীমা খাতের এক ধরনের অবস্থা ছিলো। স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে পরিস্থিতি বিবেচনা এবং প্রয়োজন সাপেক্ষে সব কোম্পানিকে একিভূত করা হয়েছে। আবার সেই প্রয়োজনেই ৮৫ সালে প্রাইভেটাইজেশন হয়। প্রাইভেটাইজেশন হওয়ার পর নতুন কোম্পানি নতুনভাবে, নতুন পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলো। কিন্তু কিছুদিন পর আবার নতুন নতুন কোম্পানি হলো। কিন্তু আইনের জায়গায় নজর আসেনি। না আসার কারণে বীমা খাতে নতুন করে ক্ষত তৈরি হওয়া শুরু করেছে। ৮৫’র আগে তেমন ক্ষত ছিলো না। কিন্ত ৮৫ পরবর্তী সময়ে যেমন এগিয়েছে, তেমন ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। এবং সেখান থেকে যখন রিফর্ম হয়, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীনে আসে তখন থেকে এক ধরনের নতুন যাত্রা শুরু হয়। তাহলে কি হচ্ছে। আমার যে রেগুলেটর সে অনেক কোম্পানির চেয়ে ছোট ফলে চাইলেই তার উপর দিয়ে খবরদারি করতে পারে না। কারণ পুরনো ক্ষতগুলো ছিলো।

চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স

অগ্রগতির কথা যদি বলেন, তাহলে অনেক বেশি অগ্রগতি হয়েছে বলা যায়। সূচক ভালো দেখবেন। অনেক বেশি পলিসি হয়েছে, অনেক বেশি ক্লেইম পাচ্ছে, মানুষ অনেক বেশি সচেতন হয়েছে। কিন্তু মূল যে জায়গাটা নীতি, তা ঠিক হয়নি। তবে বীমা খাতের অগ্রগতির প্রথম নিয়ামক বীমা দিবস। কারণ সরকার অনুধাবন করেছে বীমাটা প্রয়োজন, বীমাটা সার্বজনীন হতে হবে। সার্বজনীন হয়তো একবারে করতে পারেনি কিন্তু পর্যায়ক্রমে হবে। তবে যে পরিবর্তনটা হচ্ছে তা ধীর।

বাণিজ্য বার্তা: দেশে বর্তমানে ৮১টি বীমা কোম্পানি রয়েছে। এরমধ্যে ৩৫টি লাইফ এবং বাকি ৪৬টি নন-লাইফ কোম্পানি। বাংলাদেশ ছোট দেশে হিসেবে কোম্পানির সংখ্যা বেশি বলে মনে করেন অনেকেই। বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখেন।

এস এম জিয়াউল হক: দুভাবে এটার উত্তর দেয়া যায়। প্রথমত সংখ্যাটা অবশ্যই বেশি। ভারতের ১৪০ কোটি জনগণের জন্য ৫২টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি রয়েছে। এরমধ্যে ৫টা রি-ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। বাকি থাকে ৪৭টা। আমাদের সাথে যদি তুলনা করি ৪৭ ভারসেস ৮১। ১৭ কোটি ভারসেস ১৪০ কোটি। তাহলে অবশ্যই সংখ্যাটা বেশি। কিন্তু আবার বেশি না। কারণ জিডিপিতে বীমার অবদান লেসদেন ওয়ান পার্সেন্ট। তারমানে একটা স্টান্ডার্ড গাইটলাইনে এটা টেন পার্সেন্ট হওয়া উচিত। মানে ১০০ জনে অন্তত ১০ জনের কাছে বীমা যাওয়ার কথা। তারমানে আমি যদি এটাকে ১০ জনের কাছে পৌঁছাতে পারি তাহলে মার্কেট ১০গুণ বাড়বে। এখন আমাদের ১৪ হাজার কোটি টাকার মার্কেট, তখন দেড় লাখ কোটি টাকার মার্কেট হয়ে যাবে। সেই হিসেবে ৮১টি কোম্পানি বেশি না। তবে অন্য দেশের তুলনায় সংখ্যাটা বেশি। এই কারণেই আমরা রুগ্ন হয়েছি। এখানে দক্ষ লোকের অভাব রয়েছে। আমাদের এফএ’র যেমন অভাব তেমনি এমডিরও অভাব।

বাণিজ্য বার্তা: চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কবে নাগাদ শেয়ারবাজারে আসতে পারবে?

এস এম জিয়াউল হক: ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি এবং প্রোডাকশন কোম্পানির আইপিও’র ক্ষেত্রে কিছু পার্থক্য রয়েছে। আমরা এই নীতির জায়গায় আটকে গেছি। বিএসইসি প্রোডাকশন কোম্পানির জন্য যে গাইডলাইন ধরেছে, বীমা কোম্পানির জন্যও একই গাইডলাইন ধরেছে। তাহলেতো ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি যেতে পারবে না। ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির মূল জায়গাটা হলো তার লাইফ ফান্ডের স্ট্রেন্থ কেমন, সে সারপ্লাসে আসছে কিনা, এনএভি ঠিক আছে কিনা এগুলো দেখা। ইপিএস এখানে মুখ্য না। আমরা অন্যগুলো কোয়ালিফাই করেছি। কিন্তু ইপিএস কিছু কম ছিলো।

বিএসইসির যতোগুলো রিকয়্যারমেন্ট ছিলো আমার যতোদূর মনে আছে শুধু ইপিএস ছাড়া সবগুলো আমরা কোয়ালিফাই করেছি। বিএসইসি (বাংলাদেশে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন) চাইলে আমাদের ছেড়ে দিতো পারতো। তারা রবিকে ছেড়েছে। কারণ রবি একটা মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি। আমি আইপিওতে গিয়েছি কারণ একটা নির্দেশান ছিলো। রেগুলেটর (বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ-আইডিআরএ) মনে করেছে, আমরা কোয়ালিফাই করে গেছি, তাই তারাই রেকমেন্ড করেছে। কিন্তু বিএসইসি মৌলিক সূচকের জায়গায় হয়তো কোয়ালিফাই করিনি। তাছাড়া দুই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে হয়তো গ্যাপ ছিলো। বিএসইসি আমাদের জানিয়েছে, কোয়ালিফাইতো করেই গেছো, শুধু এই জায়গাগুলো (ইপিএস) ফুলফিল করো। আলহামদুলিল্লাহ সেগুলো ফুলফিল করে আগামী এপ্রিলে আমরা জমা দিয়ে দেবো। এবছরের মধ্যেই আমরা শেয়ারবাজারে আসতে পারবো বলে আশা করছি।

বাণিজ্য বার্তা: চার্টার্ড লাইফ নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাই।

এস এম জিয়াউল হক: শুধু চার্টার্ড লাইফ নয়, আমার পূর্ববর্তী প্রতিষ্ঠান অ্যালিকোর ডিজিটালাইজেশন, সার্ভিস, কালেকশন সিস্টেমস এবং আজকের অ্যালিকোর ব্র্যান্ড ভ্যালু ক্রিয়েটেও আমি কাজ করেছি। প্রগতিতে গিয়েছি, সেখানেও একইভাবে কাজ করেছি। আমার মূল উদ্দেশ্যটা হলো- আমি যেই জায়গা থেকে শুরু করেছি, বাংলাদেশ মধ্যম আয়ে যেতে চায়। মধ্যম আয়ের দেশগুলোর সাথে কেউ কম্পেয়ার করেনি যে মধ্যম আয়ের দেশে যেতে কি কি রিকয়্যারমেন্ট দরকার হয়। এখন অন্য কেউ করেনি, আমি করেছি। আমার কাছে মনে হয়েছে, মধ্যম আয়ের দেশে গেলে সেই দেশগুলোতে ইন্স্যুরেন্স সিস্টেম যদি ঠিক না থাকে তবে তা দেশের ক্ষতি, প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি। মানে একটা লোক চিকিৎসা নিতে যাচ্ছে তার জমিজমা বিক্রি করে। যদি তার ইন্স্যুরেন্স থাকতো তাহলে এটা তার করা লাগতো না। আজকে একটা কোম্পানি যখন তার আগুন বা এমন কোনো ক্ষতি হচ্ছে তখন সে ব্যাংকের টাকা মেরে দিয়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হচ্ছে। ইন্স্যুরেন্স থাকলে তাকে পালাতে হতো না। আমাদের আজ যে বড় বড় কাজগুলো হচ্ছে- যেমন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ বলি, পদ্মা সেতু বলি, এগুলোর রিস্ক কে নিবে? ইন্স্যুরেন্সইতো নেবে। তাই ইন্স্যুরেন্সকে আমি বড় করার চেষ্টা করছি। আর আমি সেটা করছি অন্যের দিকে বা সরকারের দিকে তাকিয়ে নয়। আমি আমার জায়গাটা পরিবর্তন করার চেষ্টা করি, আমাকে দেখে যদি আরও পাঁচজন করে, আমার প্রতিষ্ঠান যদি ভালো হয়, আরও পাঁচটা প্রতিষ্ঠান যদি ভালো করার নিয়ত করে, দিনশেষে আমি বীমা খাত দিয়ে হেল্প করতে পারবো আমার কোম্পানিকে, ইন্ডাস্ট্রিকে, আমার রাষ্ট্রকে।

বাণিজ্য বার্তা: বীমা নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে অনাস্থা রয়েছে। এই অনাস্থা দূর করার জন্য কী করা যেতে পারে।

এস এম জিয়াউল হক: এই অনাস্থা তৈরি হয়েছে দুটো কারণে। একটা কারণ হচ্ছে- মানুষ ইন্স্যুরেন্সকে মনে করেছে ব্যাংকের মতো। অর্থাৎ এখানে তারা টাকা রাখবে আর যখন মন চাইবে তুলে নেবে। ইন্স্যুরেন্সতো তা না। এবং যখন-তখন তুলে ফেলতে পারে না বলেই মানুষ বলে ইন্স্যুরেন্সের টাকা পাওয়া যায় না। আসলে কিন্তু তা না। আর দ্বিতীয় অনাস্থা তৈরি করেছি আমরা। কোম্পানিগুলো। গ্রাহকের টাকাটা আনার পরে কর্মীরা সঠিক জায়গায় জমা দেয়নি। ফলে পলিসিটা বন্ধ হয়ে গেছে। তামাদি হয়ে গেছে, টাকাটা সে মেরে দিয়েছে। আবার আমার কাছে যখন ক্লেইম এসেছে তখন আমি দীর্ঘসূত্রিতা করেছি। এই দুইয়ের কারণে মানুষের মধ্যে অনাস্থা তৈরি হয়েছে। এখন এখান থেকে পরিবর্তনটা আসবে কীভাবে। আমরা এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে যেমন- বিকাশ, রকেট, বিইএফটিএনের মাধ্যমে টাকা কালেক্ট করছি। তারমানে টাকাটা আসা নিশ্চিত হয়েছে। এটা যখন মানুষ দেখছে তখন আস্থা তৈরি হচ্ছে।

নিশ্চিত হয়েছে। এটা যখন মানুষ দেখছে তখন আস্থা তৈরি হচ্ছে।

এখন ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে টাকাটা আসার সাথে সাথে তার কাছে এসএমএস যাচ্ছে। কোম্পানির ওয়েবসাইটে গিয়ে বা এসএমএস দিয়ে সে আপডেট পাচ্ছে টাকাটা জমা হয়েছে কিনা। অ্যাপস দিয়ে তার স্টেটমেন্ট নিজে দেখতে পাচ্ছে। অর্থাৎ টাকা কোম্পানির হাতে আসার যে দায়ভার সেটা আনার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় বিষয়টা হলো সেবা দেয়া। ক্লেইমের টাকাটা টাইমলি দেয়া। আইডিআরএ ‘আশার আলো’ প্রোগ্রাম করে ক্লেইম দেয়াটাকে উৎসাহিত করছে। আমিও তা করছি। কোনো ক্লায়েন্টের ম্যাচিউরিটি, পারশিয়াল ম্যাচিউরিটি আজকে ডিউ হলে কাল আমার কল সেন্টার থেকে কল যাচ্ছে, পরদিন এপ্রুভাল হচ্ছে, এভাবে তিনদিনের মধ্যে তার একাউন্টে টাকাটা চলে যাচ্ছে। তারমানে টাকা পাওয়ার আস্থাটা তৈরি হয়েছে। আর একটা কাজ করতে হবে তা হলো অ্যাওয়ারনেস তৈরি।

আমাদের মধ্যে একটা প্রবণতা রয়েছে, আমরা যখন কোনো দিকে ঝুঁকি তখন চিন্তাভাবনা না করেই ঝুঁকি। কারণ আমরা অল্পতে অনেক বেশি লাভ করতে চাই। আমাদের ধৈর্য নাই। অল্পতে অনেক বেশি পাওয়ার চিন্তা আছে- এই ভাবনাটা পরিবর্তন করতে হবে। বীমা যে একটা প্রোটেকশন, আমাদের বিপদে বন্ধু হয়ে পাশ থাকবে এই জায়গাটাতে জনগণকে সচেতন করতে হবে, এডুকেট করতে হবে। তৃতীয় আরও একটি কাজ আমি শুরু করেছি, তাহলো মানুষকে জানানো। কোভিডের সময় প্রচুর ওয়েবিনার করেছি, টকশো করেছি, লেখালেখি করেছি। এই বছরের বীমা দিবসে আমার ৬টি লেখা প্রকাশিত হয়েছে। লিখে জানানোর চেষ্টা করছি।

বাণিজ্য বার্তা: সর্বনিম্ন কতো দিনের মধ্যে চার্টার্ড লাইফ বীমা দাবি পরিশোধ করেছে।

এস এম জিয়াউল হক: সর্বনিম্ন দু’ঘণ্টার মধ্যে আমরা বীমা দাবি পরিশোধ করেছি। দু’ঘণ্টায় ক্লেইম সেটেল করে আমরা একটা সার্টিফিকেটও পেয়েছি।

সাক্ষাৎকারের বিস্তারিত থাকছে ভিডিওতে

Banijjobarta© Copyright 2020-2022, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com