1. banijjobarta22@gmail.com : admin :

‘সোনালী লাইফ শিগগিরই নাম্বার ওয়ান জীবন বীমা কোম্পানি হবে’

  • Last Update: Friday, April 14, 2023

রাসেল মাহমুদ

মীর রাশেদ বিন আমান। দেশের বীমা খাতের অতিপরিচিত নাম। জীবন বীমায় অসামান্য দক্ষতা দেখিয়ে ইতিমধ্যে পরিচিতি পেয়েছেন ‘ক্যারিশমাটিক’ লিডার হিসেবে। অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি সিডনি থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেছেন একাউন্টিং ও ম্যানেজমেন্টে। তবে প্রযুক্তিতে তার রয়েছে অগাধ পাণ্ডিত্য। ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত চতুর্থ প্রজন্মের বীমা কোম্পানি সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের শুরু থেকেই তিনি কাজ করছেন। প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) হিসেবে কাজ শুরু করলেও তার ইনোভেটিভ আইডিয়া, স্ট্রং পারসোনালিটি আর দক্ষ নেতৃত্বগুন তাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে কোম্পানির শীর্ষ পদে। বর্তমানে তিনি কোম্পানিটির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) দায়িত্ব পালন করছেন।

মীর রাশেদ বিন আমানের নেতৃত্বে সোনালী লাইফের গ্রস প্রিমিয়াম ছাড়িয়েছে ৬১৪ কোটি টাকার বেশি। মোট সম্পদ ৭১৯ কোটি ৯৮ লাখ টাকার বেশি। লাইফ ফান্ড রয়েছে ৫৭১ কোটি ৯৫ লাখ টাকার।

সিইও হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর গত তিন বছরে প্রতিষ্ঠানটিকে তিনি নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। করোনা পরবর্তী বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ, বীমার প্রসার, প্রতিবন্ধকতা, অনাস্থাসহ খাত সম্পর্কিত নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন বাণিজ্য বার্তার সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রাসেল মাহমুদ

মীর রাশেদ বিন আমান

বাণিজ্য বার্তা : সোনালী লাইফের শুরুর গল্পটা জানতে চাই।

মীর রাশেদ বিন আমান : সোনালী লাইফের অভিভাবক, স্বপ্নদ্রষ্টা এবং প্রতিষ্ঠাতা মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস স্যার বীমাশিল্পের সঙ্গে গত ৩৫ বছর ধরে সম্পৃক্ত। তিনি রূপালী ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান। রূপালী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ভবনে রূপালী লাইফের অফিস ছিল। তখন জীবন বীমার নানা নেতিবাচক অভিজ্ঞতা তিনি দেখেছেন। গ্রাহক হয়রানি, ভোগান্তি, গ্রাহকের কষ্ট সবই তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন। এই বিষয়টি শুধু যে একটি কোম্পানিতে তা নয়, বরং পুরো বীমা খাতের অবস্থা একই। বিষয়গুলো তিনি খুব কাছে থেকে দেখার সুযোগ পেয়েছেন, অভিজ্ঞতা নিয়েছেন। ইন্স্যুরেন্স অথরিটিসহ বিভিন্ন ফোরামে এগুলো নিয়ে কথা বলেছেন, আলোচনা করেছেন। তখন থেকেই তার মনের মধ্যে স্বপ্ন ছিল একটি আদর্শ জীবনবীমা কোম্পানি করবেন। সেই চাওয়া থেকেই সোনালী লাইফ প্রতিষ্ঠা হয়।

বাণিজ্য বার্তা : আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরুর একবছর আগে আপনি কাজ শুরু করেছেন। এ সময়ে ঠিক কী করেছেন?

মীর রাশেদ বিন আমান : ২০১৩ সালের আগস্ট মাসের এক তারিখে আমরা কার্যক্রম শুরু করি। কিন্তু আমাদের প্রস্তুতি শুরু হয় ২০১২ সাল থেকে। অর্থাৎ আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরুরও এক বছর আগে। এই সময়ে আমি ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষণা করেছি। গবেষণা করতে গিয়ে দেখেছি বীমা নিয়ে গ্রাহকদের হাজারো নেগেটিভ অভিজ্ঞতা রয়েছে। ওই এক বছরে আমি দেশের বড় বড় কোম্পানিসহ অনেক কোম্পানির গ্রাহকের সঙ্গে মিশেছি। কিন্তু পজিটিভ কোনো অভিজ্ঞতা পাইনি। গ্রাহকদের মনে হতাশা দেখেছি, কষ্ট দেখেছি।

এই হতাশা দেখে আমরা কর্মীদের নিয়ে গবেষণা করেছি। তাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে গবেষণা করেছি। প্রোডাক্ট নিয়ে গবেষণা করেছি। আমাদের স্বপ্ন ছিল সেবা বলতে যা বুঝায় তেমন একটি রূপরেখা তৈরি করে সেবার শতভাগ প্রতিশ্রুতি নিয়েই কাজ শুরু করব। একটি প্রফেশনাল সার্ভিস ইন্ডাস্ট্রির রূপরেখা যেমন হওয়া উচিত আমরা সেভাবেই চিন্তা করেছি। বলতে পারেন, ওই সময়টা ছিল আমাদের শেখার বছর। আমরা প্রচুর শিখেছি, অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছি। আনুষ্ঠানিক যাত্রার পর অর্জিত অভিজ্ঞতা থেকে পজিটিভ বিষয়গুলো বের করে তা কাজে লাগিয়েছি।

মীর রাশেদ বিন আমানকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিচ্ছেন কোম্পানির কর্মকর্তারা

বাণিজ্য বার্তা : আপনার নেতৃত্বে সোনালী লাইফ অনন্য উচ্চতায় উঠে গেছে। খাত সংশ্লিষ্টরা বলেন, শুরু থেকেই আইটি নির্ভরতা আপনাদের আলাদা করেছে। বিষয়টি কীভাবে মূল্যায়ন করবেন।

মীর রাশেদ বিন আমান : কোম্পানির কার্যক্রম শুরুর সময়ই অনুধাবন করেছি, স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা ছাড়া ভালো ব্যবসা করা সম্ভব নয়। আর শতভাগ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে চাই প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার। এজন্য শুরু থেকেই ইআরপি সফটওয়্যার ব্যবহারের প্রযোজনীয়তা দেখা দেয়। এবং আমরা তার ব্যবহার শুরু করি। মজার বিষয় হলো- এই সফটওয়ার আমরা নিজেরাই তৈরি করি। আমরা বুঝেছিলাম যদি সফল হতে চাই, আমাদের ভিশন বাস্তবায়ন করতে চাই, আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই তাহলে প্রতিষ্ঠানকে আইটি নির্ভর করা ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই।

প্রথম থেকেই আমরা কল সেন্টার চালু করি। অনেক বড় একটি টিম আমাদের কলসেন্টারে কাজ করছে। তারা গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলছেন। গ্রাহকদের কি আশ্বাস দিয়ে, কি কথা বলে পলিসি করানো হয়েছে সেগুলো আমরা যাচাই-বাছাই করার ব্যবস্থা রেখেছি। অনেকে আমাদের এ ধরনের নজরদারি পছন্দ করেনি। এ কারণে অনেকে এখান থেকে চলেও গেছে। বীমা পলিসির কিস্তি যদি মাঠকর্মীদের হাতে দেওয়া হয়, তাহলে ওই টাকা অনেক সময় গ্রাহকের হিসাবে জমা হয় না। এই সমস্যা দূর করার জন্য আমরা অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেম চালু করেছি। এসএমএস চালু করেছি। আমরা যখন এসএমএস, অনলাইন পেমেন্ট, গ্রাহককে সরাসরি ফোন করে তথ্য-উপাত্ত যাচাই করা শুরু করেছি তখন এগুলো অন্য কেউ চিন্তাও করতে পারত না। গ্রাহকদের জন্য আমরা মোবাইল অ্যাপস চালু করেছি। আমরাই প্রথম এদেশে ই-কেওয়াইসি ব্যবস্থা চালু করেছি। গ্রাহকদের এডুকেটেড করতে না পারলে তারা কখনো সিস্টেমের মধ্যে আসতে চাইবে না। গ্রাহকদের সচেতন করা, বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহারের সুবিধা গুলো সম্পর্কে জানানো বুঝানো এই কাজগুলো আমরা গ্রাহকদের জন্য সব সময় করছি। আমাদের সিস্টেমের কারণে কর্মীরা যেমন তাদের উন্নতির রোডম্যাপ দেখতে পাচ্ছে, ঠিক তেমনি গ্রাহকরা আমাদের উপর আস্থা রাখতে পারছে। আমরা প্রতিটি কাজের জন্য সুনির্দিষ্ট সিস্টেম চালু করেছি। সিস্টেম চালু করার ফলে কারও ভুল করার কোনো সুযোগ নেই। এক কথায় প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।

বাণিজ্য বার্তা : দশ বছরে কোম্পানির প্রাপ্তি কতটুকু বলে মনে করেন।

মীর রাশেদ বিন আমান : আসলে প্রাপ্তি নিয়ে আলাদা করে ভাবিনি। তবে আমি বলবো লক্ষ্য অর্জনে আমরা এখনো সঠিক পথেই আছি। ২০২২ সাল শেষে আমাদের গ্রস প্রিমিয়াম ৬১৪ কোটি ছাড়িয়েছে। মোট সম্পদ হয়েছে ৭১৯ কোটি ৯৮ লাখ টাকার। লাইফ ফান্ড রয়েছে ৫৭১ কোটি ৯৫ লাখ টাকার। সবচাইতে বড় কথা হলো- আমরা গ্রাহকের সব দাবি স্বল্প সময়ের মধ্য পূরণ করি। ফলে সোনালী লাইফের প্রতি গ্রাহকের আস্থা রয়েছে। এটাই বড় প্রাপ্তি বলে আমি মনে করি।

বাণিজ্য বার্তা : এই আস্থা তৈরিতে কতোটা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছে।

মীর রাশেদ বিন আমান : যে ভিশন, স্বপ্ন আর লক্ষ্য নিয়ে পথচলা শুরু করেছিলাম ওই সময় এদেশের কোনো বীমা প্রতিষ্ঠানে এই ধরনের ভাবনাই ছিল না। সকলের কাছে মনে হতো আমাদের ভাবনাগুলো অসম্ভব। যেমন- ডিপিএস বই থেকে শুরু করে কর্মীদের মনমানসিকতা, কর্মীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, কাজ করার যোগ্যতাসহ প্রতিটি জায়গা নিয়ে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছে। আর আমরা যা ভাবছি সেই ভাবনাটা যে সম্ভব সেটা বোঝানোই ছিল বড় চ্যালেঞ্জ। আলহামদুলিল্লাহ আমরা সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছি। এবং আমরা তাতে সফল। কারণ আমাদের বিজনেস মডেল, আইটি দক্ষতা এখন অনেক কোম্পানিই কাজে লাগাতে চায়, নিতে চায়।

বাণিজ্য বার্তা : সোনালী লাইফ দাবি পরিশোধে কতোটা গুরুত্ব দিচ্ছে?

মীর রাশেদ বিন আমান : দেশের জীবন বীমার ক্ষেত্রে বড় একটা চ্যালেঞ্জ দাবি পরিশোধের। দুর্ঘটনা বা মৃত্যু কিংবা পলিসির মেয়াদ পূর্ণ হলে কোনো টাকা পাওয়া যায় না- এমন ভাবনা শুধু গ্রাহকের নয়, যারা গ্রাহক নয়; তাদেরও। এই অবস্থা আমাদের প্রতিশ্রুতি ছিল গ্রাহক তার পূর্ণ টাকা পাবে এবং নির্ধারিত তারিখেই পাবে। একথা বিশ্বাস করানোই ছিল একটা বড় চ্যালেঞ্জ। আমরা যখন কার্যক্রম শুরু করি তখন দেখেছি এই শিল্পের প্রতি মানুষের অভিজ্ঞতা একদম তিতা হয়ে গেছে। মানুষ ছয় মাস, এক বছর, দুই বছর ধরে ঘুরেও টাকা পাচ্ছে না। তখন আমরা দুটি কমিটমেন্ট ঠিক করেছি। প্রথমত কোনো গ্রাহকের যদি মৃত্যু হয় অথবা দুর্ঘটনার শিকার হয় বা পলিসি স্যারেন্ডার করে তাহলে সাত দিনের মধ্যে দাবি পরিশোধ করতে হবে। এটি আমাদের দেশের বীমাশিল্পে কেউ কল্পনাও করেনি, স্বপ্নেও ভাবেনি। আমরা সেটা করেছি। দ্বিতীয় কমিটমেন্ট ছিল- বীমার মেয়াদ যে তারিখে পূর্ণ হবে ওই তারিখেই দাবী পরিশোধ করতে হবে। এখানে একদিনও বিলম্ব করার কোনো সুযোগ নেই। যে গ্রাহক আমাদের দশ বছর বা বারো বছর অথবা পনেরো বছরের একটি পলিসি নিয়েছে তার সঙ্গে তো পলিসি নেওয়ার প্রথম দিনেই চুক্তি হয়ে যায় কত সালের কোন মাসের কত তারিখে পলিসির মেয়াদ পূর্ণ হবে। গ্রাহককে তো আমরা প্রথম দিনই প্রতিশ্ৰুতি দিচ্ছি মেয়াদান্তে তার সকল লাভসহ টাকা দেওয়া হবে। এখানে তো গ্রাহককে তার পাওনা টাকা পাওয়ার জন্য কোনো অ্যাপ্লিকেশন করার প্রয়োজন নেই। বীমা অফিসে এক টেবিল থেকে আরেক টেবিলে ছুটে বেড়ানোর প্রয়োজন নেই। আমরা শুধু কমিটমেন্ট করেছি তা নয়; বাস্তবায়নও করছি।

একজন গ্রাহক ব্যাংকে এফডিআর করে যেমন নির্ধারিত তারিখে মুনাফাসহ টাকা ফেরত পান, ঠিক একইভাবে আমাদের গ্রাহকদেরও ওই একই আমেজ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, এখনো দিচ্ছি এবং আমরা সেটা বাস্তবায়ন করছি। আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে পারি এখন পর্যন্ত আমরা কোনো ডেটলাইন অতিক্রম করিনি। আমরা যা বলেছি সেটাই করেছি।

নতুন শাখা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন মীর রাশেদ বিন আমান

বাণিজ্য বার্তা : যোগ্য কর্মী বাছাই করা কতোটা চ্যালেঞ্জ ছিল।

মীর রাশেদ বিন আমান : যে কোনো প্রতিষ্ঠানের জন্য যোগ্যকর্মী বেছে নেওয়া সব সময়ই চ্যালেঞ্জের। বীমা খাতে যোগ্য ও শিক্ষিত কর্মীর অভাব বেশ তীব্র। ফলে আমাদের প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্বারোপ করতে হয়েছে। প্রযুক্তি জ্ঞান শূন্য মানুষের অভাব নেই এখানে। বলা যায়, অনেকে কম্পিউটারের মাউসই ধরতে পারত না। কিন্তু আমরা হাল ছাড়িনি। প্রশিক্ষণ দিয়ে আমাদের মতো করে তৈরি করেছি। এখনো আমরা নতুন কর্মী নিয়োগের আগে ১০ দিনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রাখি। সেই প্রশিক্ষণে দক্ষ করে তবেই চূড়ান্ত নিয়োগ দেওয়া হয়।

বাণিজ্য বার্তা : দক্ষ কর্মী বীমা খাতের জন্য কতোটা জরুরি বলে মনে করেন।

মীর রাশেদ বিন আমান : দক্ষ কর্মী সব সেক্টরেই জরুরি। বীমা খাতে আরও বেশি জরুরি। আমরা কর্মীদের দক্ষ করতে পেরেছি বলেই তারা আত্মবিশ্বাসী হয়েছেন। শুধু তাই নয়; কর্মীর বেতন ভাতার দিকেও আমরা খেয়াল রাখি। প্রত্যেকটা কর্মী তার পারফরম্যান্স অনুযায়ী ইনক্রিমেন্ট পান। তার মূল্যায়ন কাজের মাধ্যমেই হয়। এটাও হয় ডিজিটালি। কার অগ্রগতি কতোটুকু তা তারা নিজেরাই সিস্টেমে ঢুকে চেক করতে পারেন। এতে তাদের মধ্যে কাজের প্রতিযোগিতা হয়। ফলে তারা নিজেরা যেমন লাভবান হয়, কোম্পানিও লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যায়।

বাণিজ্য বার্তা : টিম লিডার হিসেবে নিজেকে কীভাবে মূল্যায়ন করবেন।

মীর রাশেদ বিন আমান : ইতিমধ্যে আমরা প্রমাণ করেছি ইচ্ছা আর সৎ উদ্দেশ্য নিয়ে এগিয়ে গেলে সবই সম্ভব। বহুদূর এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন আমাদের ছিল। মনের গভীরে ভালো কিছু করার তীব্র আকাঙ্খা ছিল, আমাদের চেষ্টায় কোনো ত্রুটি ছিল না। তারই ফলস্বরূপ আমরা গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করতে পেরেছি। কর্মীদের মনে স্বপ্ন দেখাতে পেরেছি। তাদেরকে কাজের মধ্যে শতভাগ সম্পৃক্ত করতে পেরেছি। গ্রাহকরা এখন নিজেদের পলিসি নিজেরাই অনলাইনে পেমেন্ট করেন। আমাদের কমিটমেন্ট ছিল গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সন্তুষ্টি দিয়ে বীমাশিল্পকে একটি মেসেজ দেওয়া। কমিটমেন্ট ছিল বীমাশিল্পে নতুন দিনের সূচনা করব। আমাদের এতো বছরের জার্নিতে এখনো কোথাও ব্যর্থ হইনি। আমাদের গ্রাহকদের কোনো মৃত্যু দাবি সাত দিনের জায়গায় আট দিনে মেটানো হয়নি। সাত দিন মানে সাত দিন। এখানে এর কোনো ব্যতিক্রম ঘটেনি। মেয়াদ পূর্ণ হলে নির্ধারিত তারিখেই পেমেন্ট হয়েছে। পেমেন্ট ম্যাচিউরড হওয়ার দুই মাস আগে থেকেই আমরা কাজ শুরু করি। আমাদের কাস্টমার কেয়ার, আন্ডার রাইটিং প্রসেসসহ প্রতিটি জায়গা যথাযথভাবে পরীক্ষিত। অতএব কারও বিলম্ব করার কোনো সুযোগ নেই। এই সবকিছুই আমরা করছি ইন্ডাস্ট্রির ভালোর জন্য, আমাদের গ্রাহকদের ভালোর জন্য, আমাদের কর্মীদের ভালো এবং আত্মতৃপ্তির জন্য।

আমরা কর্মীদের কাজের চমৎকার একটি পরিবেশ দিতে পেরেছি। তারা কাজ করেন মনের আনন্দে, উচ্ছ্বাস নিয়ে। চ্যালেঞ্জ এখনো আছে, আগামীতেও থাকবে। গত ৯টি বছর আমরা অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে এবং সাহসিকতার মধ্যদিয়ে সফলভাবে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছি। আমি মনে করি, টিম লিডার হিসেবে এগুলো করাই ছিল আমার প্রধান কাজ। যা আমি চেষ্টা করেছি। তবে আমার মূল্যায়ন করবে ইন্ডাস্ট্রির মানুষেরা, আপনারা।

বীমা নিয়ে টিভিতে কথা বলছেন মীর রাশেদ বিন আমান

বাণিজ্য বার্তা : আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা কতোটা প্রস্তুত আপনি?

মীর রাশেদ বিন আমান : আগেই বলেছি, প্রশিক্ষিত কর্মী ইন্ডাস্ট্রির প্রাণ। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সোনালী লাইফের সব কর্মী প্রশিক্ষিত। তারা চ্যালেঞ্জ নিতে জানে। আমাদের এজেন্টরাও প্রশিক্ষিত। তাদের প্রশিক্ষণ ভিন্ন। তাদের ক্যাপাসিটি, কোয়ালিটি ট্রেনিং সবই ভিন্ন। এই পর্যন্ত আসতে আমাদের সময় লেগেছে। অনেক সময় ব্যয় করতে হয়েছে। কিন্তু আমরা থেমে যাইনি। হাল ছাড়িনি। কোথাও আপোষ করিনি। আমাদের এখানে এখনো কেউ প্রশিক্ষণ ছাড়া যোগদান করতে পারে না। যত বড় রেফারেন্সই হোক না কেন তাকে আমাদের প্রশিক্ষণ নিয়ে পথ চলতে হবে। এখানকার প্রতিটি কাজ, প্রতিটি সিস্টেম, রোডম্যাপ যা কিছু আছে তার সবই আমার হাতে করা। আমি আমাদের প্রতিষ্ঠানের স্বপ্নদ্রষ্টার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্যই সবকিছু করে চলেছি। আমি এই প্রতিষ্ঠানকে শুধুমাত্র একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখতে ইচ্ছুক নই। আমি সব সময় আউট অফ বক্স চিন্তা করতে পছন্দ করি। সবাই যা করে আমি তা করতে চাই না। আমি যদি সবার মতো হই তাহলে আমার ভিন্নতা কোথায়? একটি ব্র্যান্ডকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে নিজের কিছু থাকতে হয়। অপরের মতো হয়ে নিজেকে কখনো শ্রেষ্ঠ প্রমাণ করা যায় না। কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা যায় না। তাই ইনোভেটিভ আইডিয়া নিয়েই সামনের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে সোনালীর অবস্থান সমুন্নত রাখতে সক্ষম হবো ইনশাআল্লাহ।

বাণিজ্য বার্তা : দেশের জীবনবীমা শিল্পকে আপনি কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?

মীর রাশেদ বিন আমান : ভারত বা বিশ্বের অন্য উন্নত দেশগুলোতে বীমা বাধ্যতামূলক। আমাদের দেশে এটা হয়নি। এখানে প্যানিট্রেশন নেই, জিডিপিতে কন্ট্রিবিউশন নেই। আরও অনেক কিছু নেই। এই সবকিছু না থাকার পেছনে মূল কারণ হল আস্থা নেই। আস্থা যে কারণেই হোক না কেন এটা হয়নি। অ্যালিকো (বর্তমানে মেটলাইফ) প্রথম এদেশে জীবন বীমার কার্যক্রম শুরু করে। এরপর জীবনবীমা কর্পোরেশন এসেছে। পরবর্তীতে ন্যাশনাল, ডেলটা এবং পর্যায়ক্রমে আরও অনেকগুলো কোম্পানি এসেছে। আমি অন্যদের কাজকে ছোট করে দেখছি না। কিন্তু সবাই যদি কাস্টমার ওরিয়েন্টেড, কাস্টমার ফার্স্ট, কাস্টমারই অলইন অল এই ভাবনা মাথায় রেখে কাজ করত তাহলে মনে হয় আমাদের বীমাশিল্প আজ আরও অনেকদূর এগিয়ে যেত। এখন আমরা এটাকে কীভাবে আরও সমৃদ্ধ করব, আরও কাস্টমার ওরিয়েন্টেড করব, কাস্টমার ফোকাস করব, ক্রেতাবান্ধব করব, কীভাবে মূল্যায়ন করব এই বিষয়গুলো নিয়েই কাজ করছি। আমাদের কাজগুলো সরকারের প্রত্যাশার সাথে মিলে যায়। সরকার দেশকে ডিজিটাল করার জন্য কাজ করছে। আমাদের প্রতিষ্ঠানের সার্বিক কার্যক্রমও শুরু থেকেই প্রযুক্তি নির্ভর। সোনালী লাইফকে আমরা ইতোমধ্যে ডিজিটাইজড করতে পেরেছি। আমাদের যদি ডেভেলপ নেশন ক্যাটাগরিতে যেতে চাই তাহলে বীমাকে বাধ্যতামূলক করতে হবে। বাংলাদেশের বীমাশিল্পকে আমরা মূল্যায়ন করছি বলেই এত বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। কোভিড এসে আবারও প্রমাণ করল জীবনবীমা মানুষের জন্য কত গুরুত্বপূর্ণ। কোভিড আসার পর এদেশের মানুষ অনলাইনে মিটিং করতে শুরু করল। কোভিড আসার আগে আমরা অনলাইনে মিটিং করার কথা চিন্তাও করিনি। কোভিডের কারণে আমরা ওয়ার্ক ফ্রম হোম প্র্যাকটিস করেছি। অনেক প্রতিষ্ঠান এক্ষেত্রে যথেষ্ট পারদর্শিতা, মুন্সিয়ানা দেখাতে পেরেছে। মজার ব্যাপার হল- সোনালী লাইফ অনেক আগে থেকেই অনলাইনে বিভিন্ন কার্যক্রম প্র্যাকটিস করে আসছে। মিটিং থেকে শুরু করে অনেক কিছুই আমরা অনেক আগে থেকে অনলাইনে করছি। মূল্যায়নটা কীভাবে হচ্ছে। এখন অনেক কোম্পানি অনলাইনে পেমেন্ট নেওয়া শুরু করেছে। মোবাইল অ্যাপস নিচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বীমা দিবস পালিত হচ্ছে। এটা আগে কখনো হয়নি। আমরা শুরু থেকেই যে পদ্ধতিগত বিষয়গুলো অনুসরণ করে, প্রযুক্তিকে শতভাগ কাজে লাগিয়ে ব্র্যান্ড ইমেজ তৈরির মধ্য দিয়ে গ্রাহক সন্তুষ্টিকে সর্বোচ্চ অগ্রধিকার দিয়ে পথচলা শুরু করেছিলাম। তা কিন্তু এখন অনেকেই করছে। বাজারে টিকে থাকার জন্য এর কোনো বিকল্প নেই। সরকার পলিসিগত দিক থেকে অনেক পরিবর্তন এনেছে, আগামীতে আরও পরিবর্তন আসবে। বীমা দিবস ঘোষণা করা হয়েছে আমরা এটিকে মূল্যায়ন করছি বলে। এটার প্রয়োজনীয়তা আছে বলেই এখন আমরা এভাবে হাঁটতে পারছি।

হাস্যোজ্জ্বল মীর রাশেদ বিন আমান

আমাদের স্পষ্ট বক্তব্য- সচেতনতা তৈরির মধ্য দিয়ে গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করা, গ্রাহকদের আস্থা বৃদ্ধি করা, গ্রাহকদের আস্থা ধরে রাখা। আর এই আস্থার মধ্য দিয়ে যদি সফলতা আনতে পারি তাহলেই বীমাশিল্পের মূল্যায়ন হবে। যেখানে কোনো ফোন কলের রেওয়াজ ছিল না সেটা চালু হয়েছে। এখন আমাদের গ্রাহকরা ফোন কল না পেলে উল্টো তারাই ফোন করে অভিযোগের স্বরে বলেন, আমরা কেন এই মাসে ফোন দেইনি। প্রয়োজন না থাকলেও গ্রাহকরা আমাদের নিকট থেকে ফোন কল প্রত্যাশা করেন। দিনে দিনে বীমাশিল্প আরও সমৃদ্ধ হবে। তারই ধারাবাহিকতায় বলতে পারি এদেশের বীমাশিল্প আগামীতে আরও মূল্যায়িত হবে। আরও কদর বাড়বে। আরও সমৃদ্ধ হবে।

বাণিজ্য বার্তা : বীমাশিল্পের অগ্রযাত্রায় সরকার কেমন সহায়তা করছে?

মীর রাশেদ বিন আমান : বীমাশিল্পের অগ্রযাত্রায় সরকার অনেক সাপোর্ট দিচ্ছে। এদেশে ব্যাংক দিবস নেই। কিন্তু বীমা দিবস আছে। এটা সরকার থেকেই করা হয়েছে। যে কোনো বিষয় নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে যদি পুশ করা হয় তাহলে দেশের জনগণ সেটাকে আরও গুরুত্বসহ বিবেচনা করে। বীমা দিবস ঘোষণা করার পর রাতারাতি সব পরিবর্তন হয়ে যাবে এটা আশা করা ঠিক নয়। মানুষের আস্থা ফিরে আসবে এটাও আশা করা যায় না। বীমা নিয়ে মানুষের মধ্যে এখনো নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। কিন্তু এখন মানুষের মনে বীমা নিয়ে কিছু না কিছু ভাবনাচিন্তা হচ্ছে। বীমাশিল্পকে নিয়ন্ত্রণ করার একটি সরকারি সংস্থা রয়েছে। এই সংস্থাটি যদি সরকারের নিকট থেকে যথাযথ সাপোর্ট পায় তাহলে তাদের পক্ষে শিল্পের উন্নয়নে কাজ করা আরও সহজ হবে। আমার মনে হয়, সংস্থাটি সহযোগিতা পাচ্ছে, তবে আরও সহযোগিতা দরকার। আরও সহযোগিতা পেলে আরও মনিটরিং করতে পারবে। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গাইডলাইন দিতে পারবে। এই শিল্পে যারা ভালো কাজ করবে তাদেরকে উৎসাহিত করতে পারবে। তাদেরকে আরও শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারবে।

পুরস্কার হাতে মীর রাশেদ বিন আমান

বাণিজ্য বার্তা : বীমা নিয়ে মানুষের যে নেতিবাচক মনোভাব রয়েছে, তা পরিবর্তন কীভাবে সম্ভব?

মীর রাশেদ বিন আমান : বীমাশিল্প নিয়ে এখন সাধারণ মানুষের ধারণা টাকা পাওয়া যায় না। তাহলে প্রথমেই আমাকে চিন্তা করতে হবে কী কী করা হলে টাকা পাওয়া যাবে। কারও সুপারিশ ছাড়া, স্পিড মানি ছাড়া, গ্রাহককে হয়রানি ছাড়া, কোনো প্রকার বিলম্ব ছাড়া নির্ধারিত তারিখে কী করলে গ্রাহক টাকা পাবে। ঠিক ওই কাজগুলো করলেই মানুষের মনোভাব নেতিবাচক থেকে ইতিবাচক হবে। এখানে মনে রাখতে হবে, সার্ভিস ফর অল অর্থাৎ একজন ক্ষুদ্র দোকানদার হোক কিংবা একজন শিল্পপতি হোক কারও সেবার ক্ষেত্রে তারতম্য হবে না। যার যেদিন টাকা পাওয়ার কথা তিনি ওই দিনই টাকা পাবেন। এই টাকা পাওয়ার জন্য কোনো সুপারিশ করতে হবে না। কাউকে ধরতে হবে না। কোনো স্পিড মানি বা ঘুষ দিতে হবে না। তার মানে কোনো অনিশ্চয়তা তৈরি হবে না। এই প্র্যাকটিসটা যদি আমাদের গ্রাহকরা দেখতে পায় তাহলেই মনোভাব ইতিবাচক হবে। এই দেখতে পাওয়ার বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ। গ্রাহকরা এতদিন মিথ্যা কথা শুনেছে। এখন যা-ই শুনুক না কেন সেটাও মিথ্যা মনে করবে। এ কারণে স্বচ্ছতার ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর হওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। আইটির মাধ্যমে গ্রাহকরা দেখতে পারবে, বুঝতে পারবে। এখন গ্রাহকরা অনেক সচেতন। তাদের হাতে হাতে স্মার্টফোন। তারা যখন তখন গুগল সার্চ করে। ওয়েবসাইট ভিজিট করে। এ কারণে আমি, আপনি বললে হবে না। তাদেরকে দেখাতে হবে। তাদেরকেই বুঝাতে হবে। যখন তারা এটা বুঝবে তখন স্বাভাবিকভাবেই তাদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন হবে। যখন তাদের টাকা, আমানত যথাসময়ে মুনাফাসহ পাবে, তিনি না থাকলেও তার পরিবার পরিজন বা বংশধররা সেই টাকার মালিক হবে এবং সেটা পেতেও কোনো সমস্যা হবে না, কোনো প্রকার হয়রানি করা হবে না এই বিষয়টা নিশ্চিত করাই হচ্ছে মনোভাব পরিবর্তনের মূলমন্ত্র।

৫০০ কোটি উদযাপন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন মীর রাশেদ বিন আমান

বাণিজ্য বার্তা : বীমাশিল্পের ভবিষ্যৎ নিয়ে আপনি কতটুকু আশাবাদী?

মীর রাশেদ বিন আমান : আমি অত্যন্ত আশাবাদী মানুষ। গত ৯ বছর ধরে আমরা একটি স্বতন্ত্র ভাবধারা নিয়ে যেভাবে কাজ করছি এবং ইতোমধ্যে আমাদের যে অর্জনগুলি হয়েছে, মানুষের যে আস্থা পাচ্ছি, গ্রাহকদের যে সমর্থন পাচ্ছি, তাতে আমরা শতভাগ আশাবাদী হতেই পারি। যদি ইন্ডাস্ট্রিতে আমাদের প্র্যাকটিসগুলো কেউ ধারণ না করত তাহলে হয়তো আমি এভাবে আশাবাদী হতে পারতাম না। আমরা শুধু একা পরিবর্তনের চেষ্টা করলে সেটা হয়তো সম্ভব হতো না। এককভাবে কিছু পরিবর্তন করা যায় না। টিকে থাকতে হলে এগুলো করতেই হবে।

বাণিজ্য বার্তা : সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাই।

মীর রাশেদ বিন আমান : আমাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা অনেক আগেই নির্ধারণ করা। সোনালী লাইফ ২০২৬ সালের মধ্যে দেশের এক নম্বর জীবনবীমা কোম্পানি হবে এটিই আমাদের অন্যতম স্বপ্ন। সোনালী লাইফ অর্থ সুখের জীবন। ‘সোনালী জীবন সুখের জীবন’ এই শ্লোগানের আওতায় আমরা আরও অনেক মানুষকে আমাদের এই পথচলার শরিক করতে চাই। তাদের জীবনকে সত্যিকার অর্থেই সুখের জীবনে রূপান্তর করতে চাই। আমি একজন মানুষ হিসেবে ব্যর্থ হতেই পারি। কিন্তু যে সিস্টেম ডেভেলপ করা হয়েছে সেখানে ব্যর্থ হওয়ার সুযোগ নেই। পরিবর্তন আনতে হলে কাজ করতে হবে। সেই কাজটাই আমরা করে যাচ্ছি। এখনই কোনো কোনো ক্ষেত্রে আমরা নাম্বার ওয়ান দাবি করতে পারি। সিস্টেম, কমিটমেন্ট, সার্ভিস, কাস্টমার কেয়ার এ ধরনের আরও কিছু ক্ষেত্রে আমাদের অবস্থান এক নম্বরে। আইটি, ডিসিপ্লিন, বিজনেস গ্রোথ, প্রতিটি জায়গায় আমরা এক নম্বরে। কর্পোরেট কালচার, কর্পোরেট গভর্নেন্স, বোনাস, এই জায়গাগুলোতে আমরা এক নম্বরে। কিন্তু মানুষ বিবেচনা করবে গ্রাহকের সংখ্যা দিয়ে। সেই জায়গাটিতে আমরা পিছিয়ে আছি। কিন্তু আশার কথা হলো- মাত্র ৯ বছরের পথচলায় ইতোমধ্যে আমাদের গ্রাহক সংখ্যা প্রায় পাঁচ লাখ হয়ে গেছে। এটাও আমাদের দেশের জীবনবীমা শিল্পে একটি মাইলফল। কিন্তু এই জায়গাটিতে আমরা এক নম্বর নই। তবে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি এবং মনে করি আমাদের বর্তমান গতি গ্রাহক সংখ্যায় এক নম্বরে পৌঁছাতে খুব বেশি সময় নিবে না। ২০২০ সালে আমাদের প্রিমিয়াম কালেকশনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৩৫ কোটি টাকা, ২০২১ সালে ৩২০ কোটি টাকা, ২০২২ সালের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬০০ কোটি টাকা ইতিমধ্যে সেটা ৬১৪ কোটিরও বেশি হয়েছে।

ভালো পথে থেকে ভালো কাজ করে, অন্যের ভালো চেয়ে, শতভাগ স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে ব্যবসা করেও যে সাফল্য অর্জন করা যায়, ঈর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন করা যায়, মানুষকে চমকে দেওয়া যায়, তারই প্রমাণ আমাদের গত কয়েক বছরের পথচলা। অন্যান্য কোম্পানিগুলো চিন্তা করছে এত স্বচ্ছতা, এতো সিস্টেম অনুসরণ করেও কী করে সম্ভব হচ্ছে এতো গ্লোথ। প্রথম দিকে তো অনেকেই বলত নির্ধারিত তারিখে গ্রাহকদের টাকা কী করে দিবে। যখন দেওয়া শুরু করেছি তখন বলেছে, দেখি না কত দিন দেয়। এই কথাগুলো শুনতে শুনতে তো নয় বছর পেরিয়ে দশ বছরও পার হতে চলল। আমরা যা যা বলেছি তাই তো করেছি। প্রতিশ্রুতির তো কোনো হেরফের হয়নি। আশা করি হবেও না। আমার গ্রাহক যদি সন্তুষ্ট থাকে, আমার কর্মীরা যদি সন্তুষ্ট থাকে, শেয়ারহোল্ডাররা যদি সন্তুষ্ট থাকে তাহলে ব্যবসা বাড়বে না কেন? আমি মনে করি, এই ইন্ডাস্ট্রি এখনো গ্রিনফিল্ড। প্রয়োজন স্বচ্ছতা, দক্ষতা, যোগ্যতা আর সিস্টেম প্রমাণ করা। এই সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হলে আমাকে ইনভেস্ট করতে হবে। ইনভেস্টকে খরচ হিসেবে বিবেচনা করলে হবে না। আমরা শুরু থেকেই কাস্টমার কেয়ার ইউনিট চালু করেছি। নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইতোমধ্যে প্রতিটি জীবনবীমা কোম্পানির জন্য কাস্টমার কেয়ার ইউনিট রাখা বাধ্যতামূলক করেছে। আমরা শুরু থেকেই আমাদের ওয়েবসাইটে পেমেন্ট ডিসক্লোজ করে দিচ্ছি। আইডিআরএ এটাও সকলের জন্য বাধ্যতামূলক করেছে। আমরা মুখে যা বলছি, গ্রাহকরা সেটাই ওয়েবসাইটে দেখতে পাচ্ছেন। এখানে কোনো লুকোচুরি নেই। দেশে বর্তমানে ৩৫টি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি রয়েছে। সংখ্যাটি যথেষ্ট। আমরা সকলে যদি এই শিল্পের উন্নয়নে কাজ করি তাহলে এই শিল্পের ভাবমূর্তি পরিবর্তন হতে বাধ্য। আর এখানে কাজ না করে ভালো করার কোনো উপায় নেই।

Banijjobarta© Copyright 2022-2024, All Rights Reserved
Site Customized By NewsTech.Com